“সিরিয়াসলি নেওয়া হচ্ছে না”: কর্মসংস্থানের পরিসংখ্যান নিয়ে প্রধান সহ পদত্যাগ সদস্যের

জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশন: ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসটিক্যাল সার্ভিসের প্রাক্তন সদস্য, এবং দিল্লি স্কুল অফ ইকনোমিক্সের অধ্যাপক জেভি মীনাক্ষিও পদত্যাগ করেছেন।

কর্মসংস্থান সম্পর্কিত তথ্য দেয় ন্যাশনাল স্যাম্পেল সার্ভে অফিস

নিউ দিল্লি:

কর্মসংস্থান বিষয়ক পরিসংখ্যান নিয়ে সরকারের সঙ্গে মতানৈক্যের জেরে পদত্যাগ করলেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান সহ জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশনের দুজন বেসরকারি সদস্য, তাঁদের উদ্বেগ নির্বাচনের আবহে বিষয়টি ধামাচাপা পড়ে যেতে পারে। স্বশাসিত এই কমিটির দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান পিসি মহানন এনডিটিভিকে জানিয়েছেন, তাঁকে “সিরিয়াসলি নেওয়া হচ্ছে না”, এবং বেশ কয়েক মাস ধরেই তিনি একঘরে হয়ে রয়েছেন।

পিসি মহাননের পাশাপাশি পদত্যাগ করেছেন কমিটির অপর সদস্য তথা দিল্লি স্কুল অফ ইকনোমিক্সের অধ্যাপক জেভি মীনাক্ষিও, তাঁদের মেয়াদ ছিল ২০২০ পর্যন্ত।

'রাফাল- দাবি'র পর প্রাক্তন প্রতিরক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করলেন কংগ্রেস সভাপতি

পরিসংখ্যান তৈরি করা এই কমিটিতে এখন রইলেন মাত্র দুজন সদস্য, একজন মুখ্য পরিসংখ্যানবিদ প্রবীণ শ্রীবাস্তব এবং নীতি আয়োগের অমিতাভ কান্থ।

এডিটিভিকে পিসি মহানন জানিয়েছেন, “আমরা লক্ষ্য করেছি, এই কমিটিক যা করার প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছিল তা করতে খুব একটা সক্রিয় ছিল না।এবং ইদানীং, আমাদের মনে হচ্ছে, আমাদের একঘরে করে দেওয়া হচ্ছিল এবং আমাদের সিরিয়াসলি নেওয়া হচ্ছিল না”।তিনি আরও বলেন, “দেশের সমস্ত পরিসংখ্যানের এটি সর্বোচ্চ কমিটি।সেই উদ্দেশ্যটা আদতে পালন করা হচ্ছিল না। আমাদের সেটাই মনে হয়”।

“১৫ জন ধনীর সর্বোচ্চ আয়ের গ্যারান্টি প্রধানমন্ত্রীর”,বিরুদ্ধে আক্রমণ রাহুল গান্ধীর

যে কর্মসংস্থান নিয়ে পরিসংখ্যান নিয়ে তাঁর একটি রিপোর্ট প্রকাশ করা হয় নি, আর তাতেই অসন্তুষ্ট হয়ে পদত্যাগ করেছেন বলে স্বীকার করেছেন তিনি।কর্মসংস্থান এবং তার অভাব সংক্রান্ত ডিসেম্বরে জাতীয় নমুনা সার্ভে অফিসের ২০১৭-১৮ সালের(ন্যাশনাল স্যাম্পেল সার্ভে অফিস)পিয়িওডিক লেবার ফোর্স সার্ভিস রিপোর্ট তৈরি করলেও, এখনও তা পর্যন্ত তা প্রকাশ করা হয় নি।

 

mg4309h

জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশন: স্বশাসিত কমিটির দায়িত্বপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ছিলেন পিসি মহানন

পিসি মহানন বলেন, “প্রকাশ করার জন্য এটিকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছি, কারণ, কমিশনের হাতে এনএসএসও রিপোর্টের অনুমোদনের ক্ষমতা রয়েছে, এবং আমরা এটাকে প্রকাশ করার অনুমোদন দিয়েছি”।

পরিসংখ্যান ও পরিকল্পনা রূপায়ণ(স্ট্যাটিসটিক্স অ্যান্ড প্রোগ্রাম ইমপ্লিমেন্টেশন)মন্ত্রকের আওতায় এই কমিশনে সাতজন সদস্য রয়েছেন।পদত্যাগের আগে তিনটি পদ খালি হয়।

এই পদত্যাগ বিতর্ক উস্কে দিয়েছে। জিডিপি, কর্মসংস্থান নিয়ে সরকারকে কাঠগড়ায় তুলেছে বিরোধীরা।

কংগ্রেসের পোস্টারে প্রিয়াঙ্কাই ঝাঁসি রানি! পেলেন গোরক্ষপুর কেন্দ্র থেকে ভোটে লড়ার প্রস্তাব

পরিসংখ্যান কমিশনের দুই সদস্যের পদত্যাগ নিয়ে আজ সকালে ট্যুইট করে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন কংগ্রেস নেতা পি চিদাম্বরম। প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী ট্যুইটে লেখেন, “পুনর্জন্মের আগে পর্যন্ত ভাল থাকুক জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশন।জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশনের মৃত্যুতে আমরা শোকপ্রকাশ করছি জিডিপি, কর্মসংস্থানের তথ্য প্রকাশ নিয়ে এর লড়াইয়ের জন্য কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। সরকারের থেকে বিদ্বেষপূর্ণ অবহেলা পেয়ে ২০১৯-এর ২৯ জানুয়ারি মৃত্য হল একটি নামকরা প্রতিষ্ঠানের মৃত্যু হল”।

সরকারের পদ্মশ্রী প্রত্যাখ্যান করলেন নবীন পট্টনায়েকের বোন লেখিকা গীতা মেহতা

গত নভেম্বরে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকারের আমলের, সংশোধিত জিডিপি সম্পর্কিত তথ্য পেশ করে নীতি আয়োগ।

ইউপিএ আমলের গড় বৃদ্ধি সম্পর্কিত তথ্য বাদ দিয়ে দেন নীতি আয়োগের ভাইস-চেয়ারম্যান রাজীব কুমার এবং মুখ্য পরিসংখ্যানবিদ প্রবীণ শ্রীবাস্তব, তার জায়গায় বিজেপি সরকারের আমলের চার বছরে বৃদ্ধির হার বেশী বলে দেখান।