This Article is From Jul 07, 2019

ফের ‘জয় শ্রী রাম’ বলায় খুনের অভিযোগ বিজেপির, মহিলা হেনস্থার পাল্টা অভিযোগ তৃণমূলের

মৃতের নাম কৃষ্ণ দেবনাথ (Krishna Debnath), বয়স ২৬। বিজেপির তরফে জানানো হয়েছে, বুধবার রাতে তাঁকে বেধড়ক পেটানো হয়

ফের ‘জয় শ্রী রাম’ বলায় খুনের অভিযোগ বিজেপির, মহিলা হেনস্থার পাল্টা অভিযোগ তৃণমূলের

শুক্রবার কলকাতার একটি হাসপাতালে মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির (প্রতীকী)

কলকাতা:

ফের জয় শ্রী রাম (Jai Shri Ram) স্লোগান দেওয়া জন্য দলীয় কর্মীকে হত্যার অভিযোগ তুলল রাজ্যের প্রধান বিরোধীদল বিজেপি (BJP)। বিজেপির দাবি, পশ্চিমবঙ্গের নদিয়া জেলায় ‘জয় শ্রী রাম' স্লোগান দেওয়ার জন্য বিজেপির এক সমর্থককে পিটিয়ে মেরে ফেলে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা। তৃণমূল (Trinamool Congress) যদিও এই অভিযোগ ‘পুরোপুরি ভিত্তিহীন' বলেই পালটা দাবি করেছে। তৃণমূল সূত্রের খবর, মহিলাদের হেনস্থা করায় স্থানীয়রাই ওই ব্যক্তিকে পিটিয়ে মারে। 

“মানুষ মারার অস্ত্র হয়ে উঠেছে জয় শ্রী রাম”; কলকাতায় বললেন অমর্ত্য সেন

মৃতের নাম কৃষ্ণ দেবনাথ (Krishna Debnath), বয়স ২৬। বিজেপির তরফে জানানো হয়েছে, বুধবার রাতে তাঁকে বেধড়ক পেটানো হয় এবং তারপর তাঁকে তাঁর পরিবার স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে তাঁকে কলকাতার একটি হাসপাতালে পাঠানো হয়, সেখানেই, শুক্রবার রাতে তিনি মারা যান।

রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ (State BJP president Dilip Ghosh) অবিলম্বে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Chief Minister Mamata Banerjee) পদত্যাগ দাবি করেছেন। দিলীপ বলেন, “রাজ্যে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখার ক্ষেত্রে নিজের দায়িত্ব পালনে সম্পূর্ণ ব্যর্থ মুখ্যমন্ত্রী।” তৃণমূল সরকার যে বাংলায় সন্ত্রাসের শাসন চালাচ্ছে বারেবারেই সেই অভিযোগও করেছেন দিলীপ।

বিজেপি নেতা মুকুল রায় (BJP leader Mukul Roy) নিহতের পরিবারের সঙ্গে দেখা করে সাংবাদিকদের বলেন, “আমরা লোকসভা ফলাফলের পর থেকে আমাদের বহু কর্মীকে হারিয়েছি। কৃষ্ণ দেবনাথের মৃত্যুর পরে সেই সংখ্যাটা দাঁড়াল ১৯! এটা খুবই লজ্জাজনক যে, জয় শ্রী রাম স্লোগানের দেওয়ার জন্য আমাদের দলীয় কর্মীদের প্রাণে মেরে ফেলা হচ্ছে।” 

“বিদেশে রইলে বাংলাকে জানবেন কীভাবে?” অমর্ত্য সেনকে আক্রমণ দিলীপ ঘোষের

বরিষ্ঠ তৃণমূল কংগ্রেস নেতা গৌরীশংকর দত্ত (Trinamool Congress leader Gouri Shankar Dutta) অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বিষয়টি “সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত।” তাঁর কথায়, “এটি একটি ভিত্তিহীন অভিযোগ। জয় শ্রী রাম বলার জন্য মোটেও মারা হয়নি। মদ খেয়ে মহিলাদের সঙ্গে অভব্য আচরণ করার জন্যই এই ঘটনা ঘটে। আমাদের দলের কর্মীরা ঘটনাটির সঙ্গে জড়িত নয়।”