লকডাউনে বিনাপয়সায় পুলিশকর্মীদের ঘুরে ঘুরে চা, জলখাবার পৌঁছে দিচ্ছেন এরা..

এই শহরেই এমন দুজন ব্যক্তি রয়েছেন যাঁরা সেই লক ডাউনের শুরুর দিন থেকেই ঝুঁকি নিয়েই বেরিয়ে পড়েন পুলিশের পাশে দাঁড়াতে।

কলকাতা পুলিশকে চা খাওয়াচ্ছেন দুই ব্যক্তি

হাইলাইটস

  • করোনা ভাইরাসে জেরবার বিশ্ব
  • পুলিশ কর্মীদের জন্য চা আর জলখাবারের পরিবেশন করেন
  • কার্লটন এবং তাঁর এক বন্ধু
কলকাতা:

করোনা ভাইরাস(Coronavirus) জেরবার বিশ্ব। চলছে লকডাউন। ঘরবন্দি মানুষজন , তবে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইটা একেবারে সামনে থেকে যারা লড়ছেন তারা হলেন চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী পুলিশ কর্মী এবং আরও অনেকে। রোগীদের চিকিৎসায় যেমন ব্যস্ত রয়েছেন চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীরা তেমনই রাস্তায় নিয়ম-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে প্রাণপণ লড়াই করছেন পুলিশকর্মীরা। কোথাও মানুষ নিয়ম ভাঙলে কড়া শাস্তি থেকে তাকে বোঝানো সবকিছুই চলছে প্রতিদিন প্রতিনিয়ত। কিন্তু রোদে পুড়ে, জলে ভিজে, রাত জেগে যারা প্রাণপণ রাস্তায় দাঁড়িয়ে কাজ করছেন সেই পুলিশ কর্মীরা(Kolkata Police) নিজেদের কর্তব্য পালন করছেন ঠিকই কিন্তু ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া করছেন কি, সবথেকে বড় কথা সময় কি পাচ্ছেন?

৬৪টি উড়ানে ফেরানো হবে লকডাউনে বিদেশে আটকে থাকা ১৪,৮০০ ভারতীয়কে: ১০ তথ্য

এসব নিয়ে আমরা কজনই বা ভাবি! কিন্তু এই শহরেই এমন দুজন ব্যক্তি রয়েছেন  যাঁরা সেই লক ডাউনের শুরুর দিন থেকেই ভেবেছেন এই কথা আর তাই ঝুঁকি নিয়েই বেরিয়ে পড়েন পুলিশের পাশে দাঁড়াতে। ভারতীয় নৌবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রাক্তন কর্মী কার্লটন এবং তাঁর এক বন্ধু। এই দুজনে মিলে লকডাউন শুরুর দিন থেকেই প্রতিদিন ধর্মতলা ,পার্ক স্ট্রিট  চত্বরে পুলিশ কর্মীদের(Kolkata Police)জন্য চা আর জলখাবারের পরিবেশন করেন একেবারে বিনা পয়সায়।

রাজ্যে নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৮৫, মোট সংক্রমিত ৯৪০

রাস্তায় দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে যে সমস্ত পুলিশকর্মীরা শহরের আইন শৃঙ্খলা বজায় রাখছেন, তাদের পাশে দাড়ান এই দুই ব্যক্তি। সকাল-বিকেল চা নিয়ে হাজির হয়ে যান এই চত্বরে পুলিশ কর্মীদের জন্য । তবে সারাদিন যেভাবে অক্লান্ত পরিশ্রম করেন পুলিশকর্মীরা শুধু চা তে কি পেট ভরে? তাই বাড়িতে বানানো ঝালমুড়ি আবার ডিম সেদ্ধও নিয়ে হাজির হয়ে যান তাঁরা। কার্লটন এবং তাঁর বন্ধু।

বাড়িতে তৈরি হ্যান্ড স্যানিটাইজারও নিয়ে আসেন তাঁরা পুলিশ কর্মীদের (Kolkata Police) জন্য।প্রতিদিন অন্তত ২০০ থেকে ২৫০ পুলিশকর্মী, কলকাতা পুরসভার বিভিন্ন কর্মীদেরও এইভাবে চা এবং জলখাবার খাওয়ান। আর পুলিশকর্মীরা বেশ খুশি এতে। করোনা ভাইরাস আমাদের শেখাচ্ছে একে অপরের পাশে দাঁড়াতে ,যদিও নানান অমানবিক খবর ও ঘটছে। তবে এই ধরনের মানবিক সাহায্য করোনা যোদ্ধাদের মনোবল আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে ।