পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরাতে মাত্র ২টি ট্রেন চেয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার: অধীর চৌধুরী

West Bengal: একটি ট্রেন রাজস্থান থেকে কলকাতার দিকে রওনা হয়ে গেছে এবং অন্য ট্রেনটি এর্নাকুলাম থেকে বহরমপুরের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে, জানান ওই কংগ্রেস সাংসদ

পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরাতে মাত্র ২টি ট্রেন চেয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার: অধীর চৌধুরী

Coronavirus Lockdown: লকডাউনের কারণে আটকে পড়া মানুষদের ফেরাতে ১১৫টি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করেছে কেন্দ্র (ফাইল চিত্র)

হাইলাইটস

  • লকডাউনের কারণে ভিন রাজ্যে আটকে পড়েছেন বহু মানুষ
  • তাঁদের ফেরাতে ১১৫টি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার
  • পশ্চিমবঙ্গ সরকার নিজের রাজ্যের মানুষদের ফেরাতে মাত্র ২টি ট্রেন চেয়েছে
কলকাতা:

করোনা ভাইরাসকে রুখতে ২৫ মার্চ থেকে সারা দেশে লকডাউন (Coronavirus Lockdown) চলছে। বন্ধ রেল, বিমান, সড়ক পরিবহণ সহ সমস্ত গণপরিবহণ ব্যবস্থা। ফলে পশ্চিমবঙ্গ (West Bengal) থেকে বিভিন্ন রাজ্যে কাজের খোঁজে বা অন্য প্রয়োজনে যাওয়া বহু মানুষ আটকে পড়েছেন সেখানে। তাঁদের (Migrant Labour) ফেরানোর জন্যে পর্যাপ্ত ট্রেনের ব্যবস্থা করছে না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার, বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন কংগ্রেস সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী। ওই কংগ্রেস নেতা (Adhir Ranjan Choudhury) বলেন, "বাংলার যে সমস্ত মানুষজন অন্য রাজ্যে আটকে রয়েছেন দিনের পর দিন তাঁরা চরম দুরবস্থার মধ্যে কাটাচ্ছেন। তাঁরা পশ্চিমবঙ্গে ফিরতে চেয়ে বারবার আমাকে ফোন করছেন, কাকুতিমিনতি করছেন।তাঁদের দুর্ভোগ মেটানোর জন্যে আমি কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়ালের সঙ্গে আলোচনা পর্যন্ত করেছি। কিন্তু তিনিই আমায় জানান যে পশ্চিমবঙ্গ সরকার এখনও পর্যন্ত তার রাজ্যের শ্রমিকদের ঘরে ফেরাতে মাত্র দুটি ট্রেনের কথা বলেছে, যেখানে বহু মানুষ বিভিন্ন রাজ্যে আটকে রয়েছেন"।

পরিযায়ী শ্রমিকদের দুরবস্থার জন্যে দায়ী কেন্দ্রের অদূরদর্শিতাই, বলল তৃণমূল

তিনি আরও জানিয়েছেন যে একটি ট্রেন ইতিমধ্যেই রাজস্থান থেকে কলকাতার দিকে রওনা হয়ে গেছে এবং অন্য ট্রেনটি এর্নাকুলাম থেকে বহরমপুরের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে। কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী বলেন, "এটা জানতে পেরে খুবই হতাশ লাগছে যে মাত্র দুটি ট্রেনের ব্যবস্থা করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। যেখানে অন্যান্য রাজ্যে বহু মানুষ আটকে রয়েছেন, তাঁরা ফিরতে চাইছেন। অথচ অন্যান্য রাজ্যগুলিতে আরও যেসব পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা আটকা পড়ে রয়েছেন তাঁদের জন্য কোনও ট্রেন চালানোর অনুরোধ করেনি সরকার।"

২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ৩,৫৬১ জন, দেশ জুড়ে মোট আক্রান্ত ৫২,৯০০, মৃত ১,৭৮৩

এদিকে তৃণমূল নেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন যে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রশাসনিক দক্ষতা এবং পরিকল্পনার অভাবের কারণেই ভোগান্তির শিকার হয়েছেন রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকরা।  "কেন্দ্রের দূরদর্শিতার অভাবের কারণেই দেশ জুড়ে শ্রমিকরা এমন সঙ্কটের মুখোমুখি হয়েছে", বলেন তিনি। সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় আরও জানান, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই পরিযায়ী শ্রমিকদের দুরবস্থার প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করেছেন।

২৫ মার্চ থেকে দেশে কার্যকর হওয়া লকডাউনের কারণে হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিক দেশের বিভিন্ন জায়গায় নিজেদের বাড়িঘর থেকে দূরে আটকা পড়েছেন। তাঁদের পোহাতে হচ্ছে অসীম ভোগান্তিও। এই শ্রমিকদের বাড়ি ফিরতে সহায়তা করুক কেন্দ্র, বিভিন্ন রাজ্যের তরফে এই অনুরোধের পরে, ১ মে থেকে তাঁদের ফেরানোর জন্যে ১১৫ টি বিশেষ ট্রেন চালাচ্ছে ভারতীয় রেল। কেন্দ্রীয় সরকার বলেছে যে, ওই শ্রমিকদের ফেরাতে তাঁদের টিকিটের ভাড়া বাবদ ৮৫ শতাংশ অর্থ ভারতীয় রেল বহন করছে এবং বাকি ১৫ শতাংশ বহন করছে সেই রাজ্য সরকার যাদের অনুরোধে ট্রেন চালানো হচ্ছে।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)