This Article is From Sep 17, 2018

স্যারিডন বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা উঠল, 10টি পয়েন্ট

গত সপ্তাহে স্যারিডন-সহ (Saridon) 328 রকমের ওষুধ তৈরি এবং বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু আজ সুপ্রিম নির্দেশে তার মধ্যে স্যারিডন (Saridon) এবং আরও দুটি ওষুধের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে গেল।

স্যারিডন বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা উঠল, 10টি  পয়েন্ট

Supreme Court on Saridon: 328টি এফডিসি প্রকারের ওষুধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সরকার।

হাইলাইটস

  • 328 টি ওষুধের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে কেন্দ্র
  • নির্দেশের বিরুদ্ধে আদালতে যায় ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি
  • তাদের পক্ষে রায় দিল সুপ্রিম কোর্ট
নিউ দিল্লি: গত সপ্তাহে স্যারিডন-সহ (Saridon) 328 রকমের ওষুধ তৈরি এবং বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু আজ সুপ্রিম নির্দেশে তার মধ্যে স্যারিডন (Saridon) এবং আরও দুটি ওষুধের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে গেল। কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশের পর আদালতে মামলা হয়। সেই মামলার পরিপ্রেক্ষিতেই এমন নির্দেশ দিল আদালত (Supreme Court)। পাশাপাশি 328 রকমের ওষুধ তৈরি এবং বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল কেন সেটাও জানতে চাওয়া হয় কেন্দ্রের কাছে ।

রইল দশটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

  

  1. কেন্দ্র যে সমস্ত ওষুধের উপর নির্দেশিকা জারি করেছে সেগুলি এফডিসি প্রকারের। মানে এ ধরনের ওষুধ একাধিক উপাদান থেকে তৈরি হয়।  
     

  2.  এরকম 328টি এফডিসি প্রকারের ওষুধে নিষেধাজ্ঞা  আরোপ করে সরকার। তাদের যুক্তি এতে রোগ  সারে না।    
     

  3. এ সংক্রান্ত নিয়ামক সংস্থা ডিএটিবির সুপারিশ মেনে নির্দেশিকা জারি হয়েছে।    
     

  4. এ দেশে মোট 2,000 রকমের এফডিসি প্রকারের ওষুধ পাওয়া যায়। তাঁর মধ্যে 328 টির ওপর নিশেধাজ্ঞা জারি  হয়েছে। আমেরিকায় এ রকম ওষুধের সংখ্যা প্রায়   500।
     

  5.  দিল্লি হাইকোর্টে আবেদন খারিজ হওয়ার পর কেন্দ্রীয় নির্দেশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করে ওষুধ সংস্থাগুলি।  
        .

  6. কেন্দ্রীয় নির্দেশকে স্বাগত জানায় চিকিৎসকদের সংগঠনগুলি। আইএমএ-র সভাপতি কে কে  আগরওয়াল সেই কথাই জানিয়েছিলেন এনডিটিভিকে।
     

  7. তাঁর মনে হয়েছিল নতুন ধরনের ওষুধ বাজারে আনার সময় যথবিধ সতর্ক হওয়া উচিত সংস্থাগুলির।
            

  8.   2010 সালের মার্চ মাসে 344 টি এফডিসির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি হয়।  
         

  9. গত বছরের15 ডিসেম্বর  এ ব্যাপারে কমিটি গঠন করে রাজ্য   
        

  10.  2016 সালেও এরকম পদক্ষেপ করতে চেয়েছিল কেন্দ্র। তার বিরুদ্ধেওব আদালতের দ্বারস্থ হয়  ওষুধ সংস্থাগুলি।