দীর্ঘ রোগভোগের পর ৬৪ বছরে প্রয়াত সাংসদ অমর সিং

তাঁর মৃত্যুতে শোক জানিয়ে টুইট করেছেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং ও কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধি

দীর্ঘ রোগভোগের পর ৬৪ বছরে প্রয়াত সাংসদ অমর সিং

দীর্ঘদিন ধরে কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। (ফাইল ছবি)

নয়াদিল্লি:

দীর্ঘ রোগভোগের পর শনিবার প্রয়াত হলেন সাংসদ অমর সিং (MP Amar Singh death)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৪ বছর। রাজ্যসভার এই সাংসদ গত মার্চে কিডনির অস্ত্রোপচারে সিঙ্গাপুরে গিয়েছিলেন। একসময় উত্তরপ্রদেশের একদা শাসক দল সমাজবাদী পার্টির দাপুটে নেতা ছিলেন অমর সিং (EX SP leader)। প্রথম ইউপিএ রকারকে বাঁচানোর নেপথ্যেও তাঁর মস্তিষ্ক। এমনটাই জাতীয় রাজনীতিতে চর্চা। অসামরিক পারমাণবিক চুক্তি ঘিরে তৈরি সংঘাতে বামফ্রন্ট সমর্থন তুলে নেওয়ার পর সংখ্যালঘু হয়ে পড়ে প্রথম ইউপিএ। সে সময় দলের সুপ্রিমো  মুলায়ম সিং যাদবকে (Mulayam Singh Yadav) বুঝিয়ে কেন্দ্রের সরকারকে সমর্থনের পরিসর তৈরি করেছিলেন তিনি। কিন্তু ২০১০ সালে অমর সিং ও তাঁর ঘনিষ্ঠ জয়াপ্রদাকে সমাজবাদী পার্টি থেকে বহিষ্কৃত করা হয়েছিল। অভিযোগ ছিল, দলবিরোধী কাজে মদত।

কিন্তু সপা প্রধানের সেই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেননি অমর সিং। উল্টে তাঁর রাজনৈতিক উত্থানের পিছনে মুলায়ম সিংয়ের ভূমিকা অপরিসীম। সেই  সময় টুইট করেছিলেন অমর সিং। তাঁর মৃত্যুতে শোক জানিয়ে টুইট করেছেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং ও কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধি। এদিকে, বচ্চন পরিবারের একসময় খুব ঘনিষ্ঠ ছিলেন অমর সিং। তাঁর মদতেই সমাজবাদী পার্টির রাজ্যসভার সাংসদ জয়া বচ্চন।

কিন্তু ২০১৬ সালে সেই সম্পর্কে ফাটল ধরে। যদিও চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে দুই পরিবার ফের ঘনিষ্ঠ হতে শুরু করে। অপরদিকে, ১৯৯৬ থেকে ২০১০ পর্যন্ত টানা রাজ্যসভার সাংসদ ছিলেন অমর সিং। মাঝে ছয় থেক সাত বছর রাজনৈতিক সন্ন্যাস গ্রহণ করেছিলেন। ফের ২০১৭ সালে নির্দল প্রার্থী হিসেবে সমাজবাদী পার্টির সমর্থনে রাজ্যসভার সাংসদ হয়েছিলেন অমর সিং।