This Article is From Dec 06, 2018

শীর্ষ নেতৃত্বের উদ্দেশে তোপ দেগে বিজেপি ছাড়লেন সাংসদ

দীর্ঘ  দিন ধরে দলের মধ্যেই বিরোধিতা সুর চড়িয়ে ছিলেন। শেষমেশ  দল ছেড়েই দিলেন বিজেপি সাংসদ সাবিত্রী বাই ফুলে।

শীর্ষ নেতৃত্বের উদ্দেশে তোপ দেগে বিজেপি ছাড়লেন  সাংসদ

শুধু আর্থিক প্রশ্নে নয় অন্য দিক থেকেও বিজেপিকে আক্রমণ করেছেন সাবিত্রী।

হাইলাইটস

  • দীর্ঘ দিন ধরে দলের মধ্যেই বিরোধিতা সুর চড়িয়ে ছিলেন
  • শেষমেশ দল ছেড়েই দিলেন বিজেপি সাংসদ সাবিত্রী বাই ফুলে
  • দল ছাড়ার সময় কড়া ভাষায় বিঁধলেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বকে
নিউ দিল্লি:

দীর্ঘ  দিন ধরে দলের মধ্যেই বিরোধিতা সুর চড়িয়ে ছিলেন। শেষমেশ  দল ছেড়েই দিলেন বিজেপি সাংসদ সাবিত্রী বাই ফুলে। দল ছাড়ার সময় কড়া ভাষায় বিঁধলেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বকে। তাঁর কথায়, আমাদের দেশে উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ টাকা  দিয়ে এখন মূর্তি তৈরি হচ্ছে। এই প্রথম নয় এর আগেও বেশ কয়েকবার প্রকাশ্যেই বিজেপির কাজকর্ম নিয়ে সমালোচনা শোনা গিয়েছে তাঁর মুখে। অনাস্থা  প্রস্তাবের সময় তিনি  দলের হয়ে  ভোট দেবেন কিনা তা নিয়েও ভাবতে  হচ্ছিল বিজেপি নেতাদের। তার আগে  থেকেই  এই দলিত নেত্রীর সঙ্গে  বিজেপির সম্পর্ক খারাপ হতে থাকে। এবার  দলই ছেড়ে  দিলেন উত্তরপ্রদেশের এই সাংসদ।                                                                                

বিজেপিকে রথযাত্রার অনুমতি দিল না কলকাতা হাইকোর্ট

 

শুধু আর্থিক প্রশ্নে নয় অন্য দিক থেকেও বিজেপিকে আক্রমণ করেছেন সাবিত্রী। একেবারে  বিরোধী দলের নেতাদের সুরে সুর মিলিয়ে তিনি বলেছেন, আমি একজন সমাজসেবী। সমাজের জন্য কাজ করি। কিন্তু বিজেপি দলিতদের জন্য কিছু করেনি। উত্তরপ্রদেশের বাহরিচের সাংসদ সরাসরি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকেও আক্রমণ করেন। কয়েকদিন আগে যোগী বলেছিলেন হনুমান  দলিত ছিলেন। এই মন্তব্যকে হাতিয়ার করে  সাংসদ বলেন, হনুমান ভগবান রামের জন্য সব করেছেন। তাহলে তিনি মানুষ না হয়ে  বাঁদর হলেন কেন? শুধু তাই নয়  দলিত বলে তাঁকে নানা রকম কটাক্ষও সহ্য করতে হয়েছিল। দলিতদের মানুষ ভাবতে  সমস্যা  কোথায়?