নবান্নের ২ গাড়ির চালক করোনা পজিটিভ, স্যানিটাইজ করা হচ্ছে গোটা ভবন

Coronavirus: বৃহস্পতি ও শুক্রবার বন্ধ থাকছে নবান্ন, কয়েকদিন বাড়ি থেকেই রাজ্যের প্রশাসনিক কাজকর্ম পরিচালনা করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

নবান্নের ২ গাড়ির চালক করোনা পজিটিভ, স্যানিটাইজ করা হচ্ছে গোটা ভবন

Nabanna: স্যানিটাইজ করার জন্যে বৃহস্পতি ও শুক্রবার বন্ধ থাকছে নবান্ন

হাইলাইটস

  • রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে
  • এবার নবান্নে কর্মরত ২ গাড়ির চালকের শরীরে করোনা পজিটিভ ধরা পড়ল
  • রাজ্যের সচিবালয়টিকে স্যানিটাইজেশনের জন্যে দু'দিন বন্ধ রাখা হচ্ছে
কলকাতা:

রাজ্যের প্রশাসনিক ভবনেও (Nabanna) এবার হামলা করলো করোনা ভাইরাস। জানা গেছে, নবান্নের ২ গাড়ির চালকের শরীরে করোনা (Coronavirus) পজিটিভ ধরা পড়েছে। স্বভাবতই আতঙ্ক ছড়িয়েছে গোটা ভবন ও তার আশেপাশের এলাকায়। স্যানিটাইজ করা হচ্ছে গোটা ভবন, এই কারণেই বৃহস্পতি ও শুক্রবার বন্ধ থাকছে নবান্ন। আগামী কয়েকদিন তাই বাড়ি থেকেই রাজ্যের (West Bengal) প্রশাসনিক কাজকর্ম পরিচালনা করবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। রাজ্যের প্রশাসনিক ভবনে পরিষেবার দায়িত্বে থাকা গাড়িগুলোর চালকদের মধ্যে যে ২ চালকের শরীরে কোভিড- ১৯ বাসা বেঁধেছে তা জানাজানি হওয়ার পরেই অন্য চালকদেরও শরীর থেকে নমুনা নিয়ে করোনা টেস্টের জন্যে পাঠানোর ভাবনাচিন্তা করা হচ্ছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। তবে করোনা আক্রান্ত চালকদের নাম-পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে।

২৪ ঘণ্টায় আরও ৯,৩০৪ জনের শরীরে করোনার থাবা, মোট করোনা আক্রান্ত ২.১৬ লক্ষ

রাজ্য সচিবালয়ের ১৪ তলাতেই রয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কার্যালয়। ফলে জরুরি ভিত্তিতে আপাতত সেই ঘরও বন্ধ করে রাখা হয়েছে। বুধবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠক করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, "নবান্নের দুই গাড়ি চালকের করোনা ধরা পড়েছে। বাকি গাড়ি চালকদেরও টেস্ট করাতে বলা হয়েছে। আগামীকাল নবান্নে স্যানিটাইজেশন করা হবে"। এর আগে এপ্রিল ও মে মাসেও নবান্ন স্যানিটাইডজ করা হয়েছিল। 

করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ব্যবহারে সম্মতি দিল 'হু'

এর আগে নবান্নেরই এক আমলার ছেলের শরীরে কোভিড- ১৯ সংক্রমণ ধরা পড়ে। ছেলে করোনা আক্রান্ত হওয়ায় স্বভাবতই তাঁর সংস্পর্শে এসেছিলেন ওই আমলাও। জানা যায়, তারপরেও ওই আমলা নবান্নে এসে কাজকর্ম করেন। এরপরেই গোটা নবান্নে বেশ আতঙ্কের সৃষ্টি হয়।

রাজ্যের ওই আমলার ছেলে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনো করতেন, ১৫ মার্চ তিনি দেশে ফেরেন। যদিও তখন নাকি ওই যুবকের শরীরে করোনার কোনও উপসর্গ ছিল না। পরে তাঁর কোভিড-১৯ পজিটিভ ধরা পড়ে। এর পরেই ওই আমলা ও তাঁর স্বামীকে কোয়ারান্টাইন করে রাখা হয় ও সোয়াব টেস্ট করা হয়। তবে স্বস্তির বিষয় হল, সেই টেস্টে তাঁদের করোনা নেগেটিভ আসে। সেই সময়েও আরও একবার নবান্নে স্যানিটাইজেশন করা হয়।

এদিকে যতদিন যাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের কোভিড চিত্র গুরুতর হয়ে উঠছে। বুধবার এরাজ্যে আরও ১০ জনের প্রাণ কাড়ল করোনা ভাইরাস। এই নিয়ে এখনও পর্যন্ত বাংলায় ২৭৩ জনের মৃত্যু হল ওই ভাইরাসের হামলায়। সেই সঙ্গে নতুন করে ৩৪০ জনের শরীরে বাসা বাঁধল ওই মারণ রোগ। ফলে রাজ্যের করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬,৫০৮ জনে। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের থেকে বুধবার যে মেডিকেল বুলেটিন প্রকাশ করা হয়েছে, তার থেকেই ওই তথ্য জানা গেছে।

নতুন করে যাঁদের প্রাণ কেড়েছে করোনা, তাঁদের মধ্যে ৭ জন কলকাতার বাসিন্দা এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হাওড়া ও দার্জিলিং জেলার বাসিন্দা বাকি ৩ জন। থেকে একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, এখনও পর্যন্ত যতজন রোগী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তার মধ্যে ৭২ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী মারা গেছিলেন কোমর্বিডিটির কারণে। রাজ্যে বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগী ৩৫৮৩ জন।