This Article is From Mar 21, 2020

'যে যেখানে আছেন, সেখানেই থাকুন," পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর

যে নাগরিক, যে শহরে বন্দি, সে অনুগ্রহ করে সেই শহরেই থাকুন। অপ্রয়োজনীয় সফর এড়ান আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন।টুইট করে পরামর্শ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি

'যে যেখানে আছেন, সেখানেই থাকুন,

অপ্রয়োজনীয় সফর বাতিল করতে আবেদন প্রধানমন্ত্রীর।

নয়া দিল্লি:

যে নাগরিক, যে শহরে বন্দি, সে অনুগ্রহ করে সেই শহরেই থাকুন। অপ্রয়োজনীয় সফর এড়ান আর স্বাস্থ্যবিধি (Health Measure) মেনে চলুন। শনিবার টুইট করে পরামর্শ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Modi)। রবিবার সকাল ৭টা-৯টা অনুষ্ঠিত হবে জনতা কার্ফু (Janata Curfew)। সেই মর্মে এই অনুরোধ করেন প্রধানমন্ত্রী। তার আগে শনিবার একাধিক টুইট করেছেন তিনি। লেখেন, "আমি অনুরোধ করছি নাগরিকরা যে শহরে আটকে, তাঁরা সেই শহরে থাকার চেষ্টা করুন। অপ্রয়োজনীয় সফর এড়ান। এভাবে আমরা করোনার সংক্রমণ (COVID-19) প্রতিরোধ করতে পারবো। অযথা বাড়ির বাইরে পা রাখবেন না। নিজের এবং পরিবারের কথা ভাবুন।" মনে রখবেন আতঙ্ক না, সতর্কতা! টুইটে এমনটা বলেছেন তিনি। এদিকে, মার্চ ১৩-১৬-এর মধ্যে ১২ জন সংক্রমিত ভারতীয় রেলে যাত্রা করেছে। শনিবার টুইট করে এ কথা জানিয়েছে রেল। ভারতীয় রেলের পরামর্শ, "সংক্রমণ এড়াতে অবিলম্বে রেল যাত্রা বন্ধ করুন। আপনি হয়তো জানেন না, আপনার সহযাত্রী করোনা সংক্রমিত। ফলে সেই যাত্রা ঝুঁকিপূর্ণ হবে। তাই নিজে সুস্থ থাকুন, পরিবারকে সুস্থ রাখুন।" ইতিমধ্যে রেল সূত্রে খবর, শনিবার মধ্যরাত থেকে রবিবার রাত ১০টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে দুরপাল্লার রেল পরিষেবা। তবে, যে ট্রেনগুলো মাঝপথে সেগুলো পৌঁছবে গন্তব্যে। জানিয়েছে ভারতীয় রেল। 

"আপনি হোম কোয়ারান্টাইন", বাড়ির বাইরে স্টিকার সাঁটছে চণ্ডীগড়

একই পরামর্শ দিয়েছেন সনিয়া গান্ধিও। করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশবাসীকে বার্তা দিলেন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধি। দলের তরফে বিবৃতি জারি করে ওই নেত্রী বলেন, "প্রত্যেক নাগরিককে আমি অনুরোধ করছি বাড়ির বাইরে বেরবেন না। জরুরি ভিত্তি ও চাহিদা পূরণ ছাড়া ঘরে থাকার চেষ্টা করুন।" তাঁর পরামর্শ, "যত বেশি ঘরে থাকবেন, তত এই ভাইরাসের হাত থেকে দূরে থাকবেন। প্রবীণ ও শিশুদের বিশেষ যত্নে রাখুন।" স্বাস্থ্য মন্ত্রক ও হু-য়ের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। সাধারণ জ্বর হলেও চিকিৎসকের পরামর্শ নিন আর যতবার সম্ভব হাত ধোয়ার চেষ্টা করুন। এদিন বিবৃতিতে সনিয়া গান্ধি আরও বলেছেন, সংক্রমণ চিহ্নিত করার একটাই মাধ্যম নমুনা পরীক্ষা। ফলে আমাদের সরকারি ও বেসরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের পরিকাঠামো বাড়াতে নজর দিক কেন্দ্র। করোনা  উপসর্গ নিয়ে কারা, কারা পরীক্ষা করাতে আসছেন, তাঁরা কতজনের সংস্পর্শে এসেছেন। এঁদের সবার নমুনা সংগ্রহের ব্যবস্থা করা হোক।