ধর্ষণে অভিযু্ক্ত বিজেপি বিধায়ককে বহিষ্কার করা হয়েছে, জানাল বিজেপি

বিজেপি বারবার ওই বিধায়কের বিরুদ্ধে গড়িমসি করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সূত্র বলছে, গত বছরই দলটি কুলদীপ সিং সেঙ্গারকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে

উন্নাও ধর্ষণ কাণ্ডের প্রধান অভিযুক্ত বিজেপির চার বারের বিধায়ক কুলদীপ সিংহ সেঙ্গারকে বহিষ্কার করল বিজেপি।

হাইলাইটস

  • বিজেপি-র চারবারের বিধায়ককে বহিষ্কার করা হল
  • এই সপ্তাহের শুরুতেই বিজেপি তাঁকে বহিষ্কারের ইঙ্গিত দিয়েছিল
  • কিশোরীকে ধর্ষণ ও মারার চেষ্টার অভিযোগ আছে তাঁর বিরুদ্ধে
লখনউ:

উন্নাও (Unnao) ধর্ষণ কাণ্ডের প্রধান অভিযুক্ত বিজেপির চার বারের বিধায়ক কুলদীপ সিং সেঙ্গারকে (Kuldeep Singh Sengar) বহিষ্কারই করেছে বিজেপি (BJP), ফের একবার নিশ্চিতভাবে একথা ঘোষণা করলেন উত্তরপ্রদেশের গেরুয়া দলের প্রধান। এর আগে ওই বিজেপি বিধায়কের দল থেকে বহিষ্কার নিয়ে সংশয় তৈরি হয়। কুলদীপের বিরুদ্ধে এক কিশোরীকে ধর্ষণ, তার পরিবারকে হুমকি দেওয়া এবং গাড়ি দুর্ঘটনা ঘটিয়ে হত্যার চক্রান্ত করার মতো মারাত্মক অভিযোগ । এই ঘটনার বিরুদ্ধে তৈরি হওয়া জনরোষের প্রেক্ষিতেই বিজেপির এই সিদ্ধান্ত বলে মনে করা হচ্ছে। সূত্র বলছে শেষ পর্যন্ত বিজেপি উপলব্ধি করতে পেরেছে যে কুলদীপ সিং সেঙ্গারের জন্যে গোটা গেরুয়া দলের প্রতি খারাপ মনোভাব তৈরি হচ্ছে। তাই এবার চারবারের বিজেপি বিধায়ক কুলদীপকে দল থেকে ছেঁটে (BJP expels Kuldeep Singh Senger) ফেলল তাঁরা।

আশঙ্কাজনক উন্নাওয়ের নিগৃহীতা, পঞ্চম দিনে লাইফ সাপোর্ট, জানাল হাসপাতাল

বিজেপির উত্তর প্রদেশের প্রধান স্বতন্ত্র দেব সিং বলেন, "কাউকে দল থেকে বহিষ্কার করার বিষয়টি রাজ্য সভাপতিদের হাতে থাকে না। এই বিষয়টি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের অনুমতিতেই করতে হয়। কানপুরে যখন আমি বলেছিলাম যে তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে, তখন কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে আমার কোনও জ্ঞান ছিল না। কিন্তু এখন নিশ্চিত ভাবে জানাচ্ছি যে সেঙ্গারকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে" ।

উন্নাওয়ের নিগৃহীতার গাড়ি দুর্ঘটনায় ৭ নং অভিযুক্ত এক বিজেপি নেতা

কয়েক দিন আগে ওই নিগৃহীতা ও তার আইনজীবী এক ভয়াবহ দুর্ঘটনায় আহত হন। মারা যান তার দুই আত্মীয়া। একটি গাড়িতে করে যাওয়ার সময় একটি ট্রাক এসে ধাক্কা মারলে ওই ঘটনা ঘটে। গাড়ির নম্বরপ্লেটটি কালো রঙে ঢাকা ছিল। এই দুর্ঘটনার চক্রী হিসেবেও কুলদীপ ও তাঁর সঙ্গীদের নামই উঠে এসেছে অভিযোগে। তদন্তে নেমেছে সিবিআই।

বিজেপির সিদ্ধান্ত অনেকটা সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরে এল। প্রায় এক বছর ধরে পুলিশি অপদার্থতা, প্রশাসনিক অবহেলা ও এক ক্ষমতাবান ধর্ষণে অভিযুক্ত রাজনীতিবিদের প্রসঙ্গ সামনে এলেও কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। রাজ্যের শাসক দলকে প্রবল সমালোচনার মধ্যে পড়তে হয়েছে এক বছরের মধ্যে ওই বিধায়কের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ার জন্য।

উন্নাও মামলায় সিবিআই আধিকারিকদের ১২টার মধ্যে দেখা করার নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

সপ্তাহের গোড়াতেই বিজেপির তরফে জানানো হয়েছিল, কুলদীপকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। কিন্তু কবে সেই পদক্ষেপ করা হল, সে বিষয়ে তারা কিছু বলতে চায়নি।

সুপ্রিম কোর্টে উত্তরপ্রদেশে বিজেপি সরকার অস্বস্তিতে পড়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই বিজেপির তরফে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হল।

Newsbeep

বৃহস্পতিবার আদালত নির্দেশ দিয়েছে, যে চারটি মামলা হয়েছে উন্নাও ধর্ষণ কাণ্ডে, সেগুলিকে উত্তরপ্রদেশ থেকে দিল্লিতে সরিয়ে নেওয়ার। প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈকে লেখা মেয়েটির চিঠি, যেখানে ওই দুর্ঘটনার আগেই সে জানিয়েছিল, তাদের পরিবারকে হুমকি দেওয়া হচ্ছে, সেটির পরিপ্রেক্ষিতেই এই পদক্ষেপ, এমনটাই মনে করছেন অনেকে।

আদালত সিবিআইয়ের কাছ থেকে জানতে চেয়েছে এই মামলার সম্পর্কে কী কী পদক্ষেপ করা হয়েছে। ২০১৮ সালের এপ্রিলে কুলদীপ গ্রেফতার হওয়ার পরে গত এক বছরে মামলা সেভাবে না এগোনোর প্রসঙ্গটিও উঠে এসেছে।

উন্নাও ধর্ষণ কাণ্ড নিয়ে একাদশ শ্রেণির ছাত্রীর প্রশ্নে নিরুত্তর উত্তরপ্রদেশ পুলিশ

ওই নিগৃহীতার অভিযোগ, ২০১৭ সালের জুন মাসে এক আত্মীয়র সঙ্গে অভিযুক্ত বিধায়কের বাড়িতে চাকরির জন্য গেলে তাকে ধর্ষণ করেন অভিযুক্ত বিধায়ক।

এক বছর পরেও নানা জায়গায় আবেদনের পরে কোনও বিচার না পেয়ে ওই মেয়েটি ও তার মা মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বাড়ির সামনে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে বিষয়টি জাতীয় সংবাদমাধ্যমের নজরে আসে।

বৃহস্পতিবার সকালে, উত্তরপ্রদেশের উপ-মুখ্যমন্ত্রী দীনেশ শর্মা দাবি করেছিলেন যে এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে দল ও সরকারের যা করণীয় ছিল তা সম্পন্ন করা হয়ে গেছে।

"আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি, সরকার এই মামলাটিকে যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করছে। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে একটি এফআইআর করা হয়েছিল এবং সিবিআইও তদন্ত করছে," বলেন দীনেশ শর্মা ।