"চুক্তি মেনে এলএসি'তে সমরাস্ত্র ব্যবহারের অনুমতি নেই", রাহুলকে পাল্টা জয়শংকরের

এই সংক্রান্ত তথ্য তুলে ধরে রাহুল গান্ধিকে সেই তথ্য দেখে নিতেও পরামর্শ দিয়েছেন বিদেশমন্ত্রী

চুক্তি মেনে ইন্দো-চিন সীমান্তে সমরাস্ত্র ব্যবহারের অনুমতি নেই: বিদেশমন্ত্রী

নয়াদিল্লি:

বৃহস্পতিবার রাহুল গান্ধি (Rahul's tweet on Ladakh Faceoff) লাদাখ সংঘাত প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারকে কটাক্ষ করেছে। অভিযোগ, "নিরস্ত্র ভাবে ভারতীয় সেনাদের সীমান্তে শহিদ হতে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল।" সেই অভিযোগের জবাব এদিন সন্ধ্যায় দিলেন বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর (S Jayshankar rebuked Rahul)। রীতিমতো তথ্য তুলে ধরে রাহুলের অভিযোগ খণ্ডন করেন বিদেশমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, "দুই দেশের বাহিনী সশস্ত্র অবস্থায় সীমান্ত পাহারা দেয়। কিন্তু দ্বিপাক্ষিক চুক্তি মেনে কোন দেশের সমরাস্ত্র ব্যবহারের অনুমতি নেই।" এই সংক্রান্ত তথ্য তুলে ধরে রাহুল গান্ধিকে সেই তথ্য দেখে নিতেও পরামর্শ দিয়েছেন বিদেশমন্ত্রী। লাদাখের কাছে গালওয়ান উপত্যকায় (Galowan clash) ভারত-চিন সীমান্তে যেভাবে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ফলে একজন কর্নেল সহ মোট ২০ জন ভারতীয় জওয়ানকে প্রাণ দিতে হলো তার জন্যে সরাসরি মোদি সরকারকেই দায়ী করেছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি। এবিষয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরেও একটি টুইট করেন সনিয়া পুত্র। সেই টুইটের শিরোনামই দেওয়া হয়েছে এমন ভাবে যাতে সকলের নজর কাড়ে।

ওই টুইটের উপরে লেখা হয়েছে "দায়ী কে?" তারপর একটি ভিডিও বার্তার মাধ্যমে রাহুল গান্ধি দেশের মানুষের প্রতি একটি প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন। তবে ভিডিওর একেবারে শুরুতে কংগ্রেস সাংসদ ওই হামলার জন্যে চিনের নিন্দা করেন। তবে পাশাপাশি নিরস্ত্র অবস্থায় ওই পরিস্থিতির দিকে দেশের বীর জওয়ানদের কে ঠেলে দিয়েছেন এবং ভারতীয় সেনাকর্মীদের মৃত্য়ুর জন্যে দায়ী কে এই নিয়েও সরাসরি প্রশ্ন তোলেন তিনি।

লাদাখ সীমান্তে ভারত-চিন সেনা সংঘর্ষের ঘটনায় মেজর জেনারেল স্তরে ফের আলোচনা

রাহুল গান্ধি ভিডিওতে বলেন, "ভাই ও বোনেরা, ভারতের নিরস্ত্র সেনাদের হত্যা করে চিন একটি বিরাট বড় অপরাধ করেছে। তবে আমি জিজ্ঞাসা করতে চাই যে, এই বীরেদের নিরস্ত্র অবস্থায় বিপদের দিকে কে এবং কেন পাঠিয়েছে? এই ঘটনার জন্যে কে দায়ী? ধন্যবাদ"।

कौन ज़िम्मेदार है? pic.twitter.com/UsRSWV6mKs

— Rahul Gandhi (@RahulGandhi) June 18, 2020

সোমবার ভারত ও চিনের সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষের জেরে ২০ জন ভারতীয় সেনা আত্মবলিদান দিয়েছেন। ওদিকে সংবাদসংস্থা এএনআই জানায় যে, ক্ষতি এড়াতে পারেনি চিনও। ওই সংঘর্ষে সেদেশে হতাহত কমপক্ষে ৪৩ জন জওয়ান। চিনা সেনারা "পূর্ব পরিকল্পিতভাবেই পদক্ষেপ" নিয়েই সোমবার গালওয়ান উপত্যকায় ওই সংঘর্ষের পরিস্থিতি তৈরি করে যার ফলে ২০ জন ভারতীয় সেনা মারা যায়, বুধবার কেন্দ্রীয় বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর চিনের বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ইয়িকে ফোন মারফত একথা বলেন।