This Article is From Oct 22, 2019

২০২১ থেকে দু’জনের বেশি সন্তান হলে আর মিলবে না সরকারি চাকরি! সিদ্ধান্ত মন্ত্রিপরিষদের

সোমবার অসম মন্ত্রিপরিষদ সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, একটি পরিবারে ২ জনের বেশি সন্তান থাকলে আর সরকারি চাকরি মিলবে না তাঁদের

২০২১ থেকে দু’জনের বেশি সন্তান হলে আর মিলবে না সরকারি চাকরি! সিদ্ধান্ত মন্ত্রিপরিষদের

সোমবার সন্ধ্যায় সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

গুয়াহাটি:

“হাম দো, হামারে দো”! পুরনো এই পরিবার পরিকল্পনা স্লোগানকেই সামনে রেখে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিল অসম সরকার। সোমবার অসম মন্ত্রিপরিষদ (Assam Cabinet) সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, একটি পরিবারে ২ জনের বেশি সন্তান থাকলে আর সরকারি চাকরি মিলবে না তাঁদের। ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে লাগু হতে চলেছে এই নিয়ম। যে সমস্ত সরকারি কর্মচারীদের ইতিমধ্যেই দু'জন সন্তান রয়েছে তাঁদেরও সরকারি চাকরি টিকিয়ে রাখতে হলে এই বিষয়ে যত্নবান হতে হবে।

সোমবার সন্ধ্যায় সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ওই বৈঠকেই একটি নতুন ভূমি নীতিও গৃহীত হয়েছে। নয়া ওই ভূমি নীতি অনুযায়ী ভূমিহীন আদিবাসীদের তিন বিঘা করে কৃষিজমি এবং বাড়ি নির্মাণের জন্য অর্ধেক বিঘা জমি দেবে রাজ্য সরকার।

অসম এনআরসির কো-অর্ডিনেটরকে মধ্যপ্রদেশে বদলির নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট

“নতুন ভূমি নীতি গৃহীত হয়েছে। ভূমিহীন আদিবাসীদের তিন বিঘা জমি দেওয়া হবে। ভূমিহীন মানুষদের বাড়ি তৈরির জন্য অর্ধেক বিঘা জমি দেওয়া হবে। এই জমিগুলি অন্তত ১৫ বছরের জন্য বিক্রি করা যাবে না,” সিএমও বিবৃতিতে বলা হয়েছে।

মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোওয়াল (Chief Minister Sarbananda Sonowal) একটি বক্তব্যে জানিয়েছেন যে, ছোট পরিবার নীতি অনুসারে ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে দুই জনের বেশি বাচ্চা রয়েছে এমন পরিবারগুলি আর সরকারি চাকরি পাবে না।

অসমের নাগরিকপঞ্জী অভ্যন্তরীণ বিষয়, চোখ খোলা রাখছি, বলল বাংলাদেশ

২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে অসম বিধানসভায় ‘অসমের জনসংখ্যা ও নারীদের ক্ষমতায়ন নীতি' পাস করানো হয়। ওই নীতিতেই স্পষ্ট উল্লেখ করা হয়েছে যে, দু'টি সন্তান রয়েছে এমন চাকরিপ্রার্থীরাই কেবলমাত্র সরকারি কর্মসংস্থানের যোগ্য হতে পারবেন। এবং যারা ইতিমধ্যেই সরকারি চাকরি করেন তাঁদের কড়াভাবে মাথায় রাখতে হবে যে দুই জনের বেশি সন্তান তাঁরা নিতে পারবেন না।

মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকেও রাজ্যে বাসের ভাড়াও ২৫ শতাংশ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।