This Article is From May 16, 2020

৮৬,০০০ ছুঁতে চলেছে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, লাগাতার বাড়ছে সংক্রমণ

Coronavirus Cases in India: ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত ১০৩, আক্রান্ত ৩,৯৭০ জন, মোট ৮৫,৯৪০ জন ভুগছেন ওই রোগে

৮৬,০০০ ছুঁতে চলেছে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, লাগাতার বাড়ছে সংক্রমণ

COVID-19 Pandemic: গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১০০ জনেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন ওই রোগে ভুগে

হাইলাইটস

  • দেশে লাগাতার বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা
  • তবে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরেও বহু মানুষ সুস্থ হয়েছেন
  • সব মিলিয়ে গোটা দেশে করোনায় আক্রান্ত ৮৫,৯৪০ জন
নয়া দিল্লি:

না, কিছুতেই রোধ করা যাচ্ছে না করোনা ভাইরাসের (Coronavirus) গতি। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ১০৩ জন করোনা রোগী মারা (Coronavirus Deaths) গেছেন বলে জানাল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। পাশাপাশি আরও ৩,৯৭০ জনের শরীরে নতুন করে বাসা বাঁধল ওই মারণ রোগ। ভারত জুড়ে মোট ৮৫,৯৪০ জন আক্রান্ত (Coronavirus Cases in India) হয়েছেন কোভিড ১৯ এ । শনিবার পর্যন্ত ভারতের করোনা আক্রান্তের যা পরিসংখ্যান তাতে ইতিমধ্যেই চিনকে ছাড়িয়ে গেছে দেশ। গত বছরের ডিসেম্বরে চিনের উহান থেকেই এই ভয়ঙ্কর সংক্রামক অসুখটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ে। ভারতে রীতিমতো মহামারীর (COVID- 19 Pandemic) আকার নিয়েছে কোভিড- ১৯ ।

মোদির ভারতের পাশেই আমেরিকা, করোনা মোকাবিলায় ভেন্টিলেটর দিয়ে সাহায্য

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের শনিবার সকাল পর্যন্ত দেওয়া পরিসংখ্যান অনুসারে, ভারতে এখনও পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েও সুস্থতার পথে ফিরে গেছেন বহু মানুষ। ৩০,০০০ এরও বেশি মানুষ ভয়ঙ্কর সংক্রামক করোনার কবলে পড়েও চিকিৎসা সহায়তায় এখন ভালো আছেন ও পুরোপুরি সুস্থ হয়ে গেছেন। দেশের করোনা রোগীদের পুনরুদ্ধারের হার বেড়ে শনিবার সকালে ৩৫.০৮ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। তবে আক্রান্তের সংখ্যার বিচারে ভারত চিনকে ছাড়িয়ে গেলেও মৃত্যুর হারের হিসাবে এদেশের অবস্থান অনেকটাই ভালো। চিনে যেখানে আক্রান্তদের মধ্যে ৫.৫ শতাংশ মানুষ মারা গেছেন, সেখানে ভারতে সেই হার এখনও ৩.২ শতাংশ।

এদিকে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভারতের পাশে দাঁড়াল আমেরিকা। শনিবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প টুইট করে জানান যে, ভারতকে ভেন্টিলেটর দিয়ে সাহায্য করবেন তাঁরা। তিনি টুইটার লেখেন যে, “আমি গর্বের সঙ্গে ঘোষণা করছি যে আমরা ভারতকে ভেন্টিলেটর দেব। এই মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমরা ভারত ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পাশে রয়েছি। করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করতেও আমরা একে অন্যকে সাহায্য করব। একসঙ্গে আমরা করোনাকে হারাব”।

উত্তরপ্রদেশের সড়ক দুর্ঘটনায় ২৪ পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ প্রধানমন্ত্রীর

১৪ এপ্রিলের পরে ভারতে রেকর্ড হারে বেড়েছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। গত ৩০ জানুয়ারি থেকে ১৪ এপ্রিলের মধ্যে ৭৫ দিনের ব্যবধানে যেখানে প্রথম ১০,০০০ করোনা রোগীর সন্ধান মিলেছে, সেখানে তার  পরের আট দিনে সেই সংখ্যাই দ্বিগুণ হয়ে ২০ হাজারে গিয়ে পৌঁছয়। আবার ২৩ এপ্রিল থেকে ১২ মে পর্যন্ত এই ক'দিনের মধ্যেই ভারতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২০,০০০ থেকে বেড়ে ৭০,০০০ এ পৌঁছে যায়।

দেশের ১৮ টি শহরেই শুধু থেকে মোট COVID-19 আক্রান্তের প্রায় ৬৮ শতাংশ রয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা, ভারতে যতজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন তার মধ্যে ৫০ শতাংশই মুম্বই, দিল্লি, আমেদাবাদ, পুনে এবং চেন্নাইতে।

এই মহামারীর কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ রাজ্য হল মহারাষ্ট্র। সেখানে করোনা আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন এক হাজারেরও বেশি পুলিশ কর্মীই, তার মধ্যে আবার ১০ জন মারাও গেছেন। ওই রাজ্যের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ শহর মুম্বই। ওই শহরের পুলিশের তরফ থেকে টুইট করা হয়েছে, "মুম্বই পুলিশ ৫৭ বছর বয়সী এএসআইডি মধুকর মানের দুর্ভাগ্যজনক মৃত্যুতে শোকার্ত। তাঁর বয়সী মানুষের করোনা আক্রান্ত হওয়ার ক্ষেত্রে প্রবল ঝুঁকি থাকায় গত ১৫ দিন ধরে ছুটিতেই ছিলেন মানে। মহারাষ্ট্র পুলিশ বাহিনীতে এই নিয়ে দশম কর্মীর মৃত্যু হল" ।

এদিকে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন শুক্রবারই করোনা ভাইরাসের সংকটে ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন ক্ষেত্রকে সহায়তার জন্য অর্থনৈতিক উদ্দীপনা প্যাকেজের বিষয়ে তৃতীয় ঘোষণায় কৃষি প্রকল্পগুলিতে সাহায্যের জন্যে এক লাখ কোটি টাকার ঘোষণা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি চলতি সপ্তাহে যে ২০ লক্ষ কোটি টাকার উদ্দীপনা প্যাকেজের ঘোষণা করেছিলেন এটি তারই একটি অংশ।

করোনা মহামারীর ফলে ভারতে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ দরিদ্র ও দুর্বল পরিবারগুলি। তাঁদের সামাজিক সহায়তা দেওয়ার জন্য ভারতের প্রচেষ্টাকে সমর্থন জানিয়ে শুক্রবার বিশ্বব্যাংকের তরফে এক বিলিয়ন ডলার ঋণ অনুমোদন করা হয়েছে।