ক্যামেরার সামনেই বেল্ট দিয়ে মারার হুমকি কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর

তাঁর কথা বলার মুহূর্তটি ক্যামেরাবন্দি হয়ে গিয়েছে। ছত্তিশগড়ের (Chhattisgarh) ওই কোয়ারান্টাইন কেন্দ্রে তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘‘দাদাগিরি চলবে না।’’

ছত্তিশগড়ে কেন্দ্রীয় উপজাতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী রেণুকা সিংহকে দেখা গেল রুদ্রমূর্তিতে।

রায়পুর:

‘‘আমি ভাল করে জানি অন্ধকার ঘরে নিয়ে গিয়ে বেল্ট খুলে কীভাবে মারতে হয়।'' এভাবেই প্রকাশ্যে হুমকি দিতে দেখা গেল কেন্দ্রীয় উপজাতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী রেণুকা সিংহকে (Renuka Singh)। রবিবার ছত্তিশগড়ের এক কোয়ারান্টাইন কেন্দ্রে (Quarantine Centre) এমন‌ই আক্রমণাত্মক মন্তব্য করলেন তিনি। তাঁর কথা বলার মুহূর্তটি ক্যামেরাবন্দি হয়ে গিয়েছে। ছত্তিশগড়ের (Chhattisgarh) বলরামপুরের ওই কোয়ারান্টাইন কেন্দ্রে তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘‘দাদাগিরি চলবে না।'' ভিডিও ক্লিপে রেণুকাকে বলতে শোনা যায়, ‘‘কেউ যেন না ভাবেন আমাদের সরকারের ক্ষমতা নেই। আমরা ১৫ বছর ধরে শাসন ক্ষমতায় রয়েছি। করোনা ভাইরাসের জন্য সরকারের কাছে যথেষ্ট অর্থ রয়েছে। আমি নিশ্চিত করব যাঁদের প্রয়োজন তাঁরা যেন সেই টাকা পান। গেরুয়া-পরিহিত বিজেপি কর্মীদের দুর্বল ভাববেন না।''

তিনি আরও বলেন, ‘‘আমি ভাল করে জানি অন্ধকার ঘরে নিয়ে গিয়ে বেল্ট খুলে কীভাবে মারতে হয়।''

বলরামপুর জেলার এক বাসিন্দা দিলীপ গুপ্তা কোয়ারান্টাইন কেন্দ্রের জীর্ণ অবস্থার ভিডিও করেছিলেন। পরে তিনি সেটি সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করে দেন। তাঁর অভিযোগ, চিফ এগজিকিউটিভ আধিকারিক ও জেলা পঞ্চায়েতের তহসিলদার তাঁকে এজন্য নিগ্রহ করেছেন। তাঁর চুল ধরে টানা হয়েছে ও ভিডিওটি উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

রেণুকা সিংহ ওই কেন্দ্রে এসে দিলীপ গুপ্তার সঙ্গে কথা বলেন। এরপরই তাঁকে আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে দেখা যায়।
দিলীপ গুপ্তা দিল্লি থেকে ফেরার পর ওই কেন্দ্রো কোয়ারান্টাইনে রয়েছেন। তাঁর তোলা ভিডিওয় তিনি অভিযোগ জানান, কোয়ারান্টাইন কেন্দ্রের খাবার ও অন্যান্য পরিষেবার মান উন্নত নয়।