“কোনও বিবেচনা না করেই” সংসদে আরটিআই বিল পাস করছে কেন্দ্র, বললেন ডেরেক ও”ব্রায়েন

তৃণমূলের জাতীয় স্তরের মুখপাত্র তথা সাংসদ ডেরেক ও”ব্রায়েন অভিযোগ করেন, লোকসভায় নিজেদের সংখ্যাগরিষ্ঠতার অপব্যবহার করছে কেন্দ্রীয় সরকার।

“কোনও বিবেচনা না করেই” সংসদে আরটিআই বিল পাস করছে কেন্দ্র, বললেন ডেরেক ও”ব্রায়েন

লোকসভায় নিজেদের সংখ্যাগরিষ্ঠতার অপব্যবহার করছে কেন্দ্রীয় সরকার, অভিযোগ করেন ডেরেক ও”ব্রায়েন

নয়া দিল্লি:

একেবারেই অবিবেচকের মতো কাজ করছে কেন্দ্রীয় সরকার, এমন বিস্ফোরক অভিযোগ করতে শোনা গেল তৃণমূল (TMC) সাংসদ ডেরেক ও”ব্রায়েনের (Derek O'Brien) মুখে। বুধবার ওই তৃণমূল সাংসদ বলেন, সংসদে (Parliament) একের পর এক বিল পাস করাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার, অথচ বিল পাসের আগে সেটির কোনও রকম স্ক্রুটিনি করছে না তাঁরা। বিরোধীরা এসব দেখে শুনে চুপ করে থাকবে না বলেও হুমকি দেন তিনি। তৃণমূলের (Trinamool Congress) জাতীয় স্তরের মুখপাত্র তথা সাংসদ ডেরেক অভিযোগ করেন, লোকসভায় নিজেদের সংখ্যাগরিষ্ঠতার অপব্যবহার করছে কেন্দ্রীয় সরকার। এভাবেই তথ্য জানার অধিকার আইন বা আরটিআইয়ের সংশোধনী বিলটিও (RTI Bill) পাস করিয়ে নিয়েছে তাঁরা। “রাজ্যসভায় আজ (বুধবার) ৩টি বিল পাস করানোর জন্যে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। অথচ তাঁর একটিরও কোনও স্ক্রুটিনি হয়নি। আমাদের কাছ থেকে কি প্রত্যাশা করছে সরকার? সংসদে বিরোধীরা নিরব দর্শক হয়ে থাকবেন!”, ট্যুইট করেন তিনি।

তথ্য জানার অধিকার আইন পাশ, স্বচ্ছতা আইন লঘু হয়ে যাবে, মত বিরোধীদের

এর আগে মঙ্গলবার তিনি অভিযোগ করেন যে কেন্দ্রীয় সরকার বিরোধীদের মুখ বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করছে।

“বুধবার রাজ্যসভাতে যদি আরটিআইয়ের সংশোধনী বিলটি (RTI Bill) পাস করানোর তালিকায় রেখে থাকে সরকার তাতে অবাক হবো না। আপনাদের নিশ্চিন্ত করছি এই বলে যে, সংসদীয় গণতন্ত্র রক্ষায় যা যা করা উচিত সব করব আমরা। সংসদীয় কমিটির কোনও স্ক্রুটিনি ছাড়াই ইতিমধ্যেই ১৪টি বিল পাস হয়ে গেছে। কিন্তু এভাবে বিরোধীদের আটকে রাখতে পারবে না সরকার”, বলেন তিনি।

তথ্য জানার অধিকার (সংশোধনী) বিল ২০১৯ (RTI Bill) এবং শিশুদের যৌন হেনস্থা রোধক (সংশোধনী) বিল ২০১৯ বুধবার রাজ্যসভায় পাশ করানোর তালিকায় রাখা হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে।

“তথ্য জানার অধিকার আইনকে গুরুত্বহীন করে দিল কেন্দ্র”, বললেন সনিয়া গান্ধি

সোমবারই লোকসভায় (Lok Sabha) তথ্য জানার অধিকার আইনের সংশোধনী বিলটি পাস হয়ে যায়। যদিও বিরোধীরা অভিযোগ করেন, এই সংশোধনীর ফলে নিজের গুরুত্ব হারিয়েছে তথ্য জানার অধিকার আইন। একে “নখ-দন্ত হীন বাঘ” হিসাবেও নামকরণ করেছেন তাঁরা। তথ্য জানার অধিকার সংক্রান্ত সংশোধনী বিলটির (RTI Bill) মাধ্যমে সরকার এখন তথ্য কমিশনারদের বেতন, বদলি, কর্মসংস্থান সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা অর্জন করবে।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com