This Article is From Nov 23, 2019

মহারাষ্ট্রে ভোর ৫:৪৭ মিনিটে বাতিল হল রাষ্ট্রপতি শাসন

Maharashtra: গত মাসে মহারাষ্ট্র নির্বাচনের একক বৃহত্তম দল বিজেপি তার জোটসঙ্গী শিবসেনার "৫০:৫০" দাবিতে একমত না হওয়ায় সরকার গঠনের দাবি জানায়নি

মহারাষ্ট্রে ভোর ৫:৪৭ মিনিটে বাতিল হল রাষ্ট্রপতি শাসন

President's Rule in Maharashtra: ১২ নভেম্বর মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ (ফাইল চিত্র)

নয়া দিল্লি:

বিজেপি নেতা দেবেন্দ্র ফড়নবিশ (Devendra Fadnavis) দ্বিতীয় মেয়াদে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেওয়ার মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগেই ভোর ৫.৪৭ নাগাদ মহারাষ্ট্রে বাতিল করা হয় রাষ্ট্রপতি শাসন। গত মাসের নির্বাচনের ফলাফল বের হওয়ার পর কোনও দলই সে রাজ্যে সরকার গঠনের দাবি না জানাতে পারায় ১২ নভেম্বর থেকে সে রাজ্যে জারি করা হয় রাষ্ট্রপতি শাসন (President's Rule in Maharashtra)। কিন্তু শনিবার সকালেই নাটকীয় ভোলবদল, সব হিসাব পাল্টে দিয়ে এনসিপি নেতা অজিত পাওয়ারকে সঙ্গে নিয়ে মহারাষ্ট্রে সরকার (Maharashtra Government Formation) গড়ল বিজেপি। শনিবার সকালে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব অজয় কুমার ভাল্লার জারি করা একটি সংক্ষিপ্ত তিন লাইনের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় যে, রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ "২৩ নভেম্বর, ২০১৯ থেকে মহারাষ্ট্র রাজ্যের উপর থেকে রাষ্ট্রপতি শাসন বাতিল করা হল"।

দ্বিতীয়বার মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশই, উপমুখ্যমন্ত্রী অজিত পাওয়ার

কিছুদিন ধরেই সরকার গড়া নিয়ে টালবাহানায় খবরের শিরোনামে ছিল এই রাজ্য । গতকাল (শুক্রবার) পর্যন্ত পরিস্থিতি যা ছিল তাতে সবাই একরকম নিশ্চিত ছিলেন যে, সে রাজ্যে সরকার গড়ছে শিবসেনা-এনসিপি-কংগ্রেস জোট। শুক্রবার ওই তিনদলের বৈঠক থেকে বেরিয়ে আসার পরে এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ার বলেন, "মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে উদ্ধব ঠাকরের নাম নিয়ে আমরা সবাই একমত হয়েছি"। তার কিছু সময় পরেই উদ্ধব ঠাকরে এবং তাঁর পুত্র আদিত্য ঠাকরেও বলেন: "আলোচনা ইতিবাচক এবং ফলপ্রসূ হয়েছে"।

কিন্তু রাজনীতির পাশা পাল্টে দিয়ে মহারাষ্ট্রে শেষপর্যন্ত এনসিপি নেতা অজিত পাওয়ারকে উপ-মুখ্যমন্ত্রী করে দেবেন্দ্র ফড়নবিশের নেতৃত্বে সেখানে সরকার গড়ল বিজেপি।

r7vkfp3s

ভোর ৫:৪৭ মিনিটে মহারাষ্ট্র থেকে তুলে নেওয়া হয় রাষ্ট্রপতি শাসন

"বিজেপি মহারাষ্ট্রের জনগণকে একটি স্থিতিশীল সরকার দিতে চেয়েছিল", মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে ফের শপথ নেওয়ার পরে দেবেন্দ্র ফড়নবিশ বলেন, কিন্তু তাঁর দলের জোটসঙ্গী শিবসেনা "জনগণের আদেশ মানেনি"। "আমি এনসিপিকে এই সরকার গঠনের জন্যে সমর্থন করায় ধন্যবাদ জানাই। আমরা সকলেই জানি যে গত কয়েকদিন ধরে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি ছিল মহারাষ্ট্রে ... শিবসেনা জনাদেশ অনুসরণ করেনি", বলেন তিনি। "মহারাষ্ট্রের খিচুড়ি সরকার নয়, একটি স্থিতিশীল সরকার দরকার ছিল", বলেন মহারাষ্ট্রের নয়া মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ।

অজিত পাওয়ারের বিজেপিকে সমর্থন ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত, বললেন শরদ পাওয়ার

পাশাপাশি উপ-মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেওয়ার পরে অজিত পাওয়ার সাংবাদিকদের বলেন: "ফলাফলের দিন থেকে আজ পর্যন্ত .... কোনও দলই সরকার গঠন করতে পারেনি। মহারাষ্ট্র কৃষক সমস্যা সহ অনেক সমস্যার মুখোমুখি হয়েছে। তাই আমরা এখানে একটি স্থিতিশীল সরকার গঠন করতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম।"

গত মাসে মহারাষ্ট্র নির্বাচনের একক বৃহত্তম দল বিজেপি তার জোটসঙ্গী শিবসেনার "৫০:৫০" দাবিতে একমত না হওয়ায় সরকার গঠনের দাবি জানায়নি।

২৮৮ সদস্যের মহারাষ্ট্র বিধানসভাতে বিজেপি ১০৫ টি আসন পেয়েছে এবং শিবসেনা ৫৬ টি আসন পেয়েছে। ওদিকে এনসিপি জেতে ৫৪ টি আসনে এবং কংগ্রেস ৪৪ টি আসনে জয়লাভ করে সে রাজ্যে।