This Article is From Jun 16, 2020

জ্বালানির লাগাতার দাম বৃদ্ধি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন সনিয়া গান্ধি

Fuel Price: কোভিড- ১৯ সঙ্কটের সময়েও যেভাবে দেশে পেট্রোল-ডিজেলের দাম বাড়ছে তার কোনও যৌক্তিকতাই খুঁজে পাচ্ছেন না কংগ্রেস সভানেত্রী, চিঠিতে জানান তিনি

জ্বালানির লাগাতার দাম বৃদ্ধি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন সনিয়া গান্ধি

Sonia Gandhi: এই ভয়ঙ্কর সময়ে মানুষের পকেটে টাকা নেই, লক্ষ লক্ষ মানুষ চাকরি হারিয়েছে, একথাও বলেন কংগ্রেস সভানেত্রী (ফাইল চিত্র)

হাইলাইটস

  • লাগাতার জ্বালানির দাম বাড়ানোর বিষয়ে কেন্দ্রের সমালোচনায় সনিয়া গান্ধি
  • প্রধানমন্ত্রী মোদিকে এবিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করে চিঠি লিখলেন কংগ্রেস নেত্রী
  • পেট্রোল-ডিজেলের দাম কমিয়ে মানুষকে সাহায্য করুন, আহ্বান কংগ্রেস সভানেত্রীর
নয়া দিল্লি:

এমনিতেই করোনা ভাইরাসের (COVID-19) আক্রমণে ধনে-প্রাণে নাজেহাল দেশের মানুষ। তার উপর আবার গত কয়েকদিন ধরে লাগাতার বাড়ছে জ্বালানির দাম (Fuel Price), ফলে সব মিলিয়ে নাভিশ্বাস উঠছে মধ্যবিত্তের। ঠিক এই বিষয়টি নিয়েই প্রধানমন্ত্রী মোদিকে (PM Modi) চিঠি দিলেন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধি। গত সপ্তাহে যেভাবে প্রায় প্রতিদিনই জ্বালানির দাম বেড়েছে তা নিয়ে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করে চিঠিতে লেখেন যে, কোভিড- ১৯ সঙ্কটের সময়েও যেভাবে দেশে পেট্রোল-ডিজেলের দাম বাড়ছে তার কোনও যৌক্তিকতাই খুঁজে পাচ্ছেন না তিনি (Sonia Gandhi)। দেশের মানুষের এই খারাপ সময়ে লাভের কথা ভাবা বন্ধ করুক সরকার, এমন অনুরোধও করেন সনিয়া।

"গুজরাট মডেলের আসল রূপ প্রকাশ্য়ে": করোনা পরিস্থিতি নিয়ে রাহুল গান্ধির কটাক্ষ

"কোভিড- ১৯ এর সঙ্কটের ফলে যে অর্থনৈতিক প্রভাব পড়েছে তাতে লক্ষ লক্ষ মানুষ তাঁদের চাকরি ও জীবিকা হারিয়েছেন, ক্ষুদ্র ও অতি ক্ষুদ্র ব্যবসাগুলোও মুখ থুবড়ে পড়েছে, মধ্যবিত্তের আয়ের পরিমাণ এক ধাক্কায় অনেকটা কমে গেছে, এমনকী কৃষকরাও খরিফ মরসুমের ফসল বপনের জন্যে লড়াই চালাচ্ছেন, ঠিক এমন একটা সময়ে সরকার কেন এত দাম বৃদ্ধির কথা ভাবছে তার আমি কোন যুক্তি দেখতে পারছি না", একথাই লেখেন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধি।

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩.৪৩ লক্ষ ছাড়াল, তবে সুস্থতার হার ৫২%

"গত সপ্তাহে অপরিশোধিত তেলের আন্তর্জাতিক দাম আনুমানিক নয় শতাংশ কমেছে (গত কয়েক মাস ধরে অপরিশোধিত তেলের দামে ধস নামার পরে), যখন দেশের মানুষের হাতে টাকা নেই, তখনও সরকার তার লাভ কমিয়ে জনগণের কষ্ট লাঘব করার জন্যে কিছুই করছে না"।

তিনি বলেন, সরকার এই সময়েও এভাবে দাম বাড়িয়ে প্রায় ২,৬০,০০০ কোটি টাকা অতিরিক্ত রাজস্ব আদায় করার চেষ্টা করছে, তা ঠিক নয়। এভাবে অতিরিক্ত বোঝা চাপিয়ে মানুষকে সমস্যায় ফেলা একেবারেই "ন্যায়সঙ্গত নয়", একথাও বলেন সনিয়া গান্ধি।

কংগ্রেস সভানেত্রী বলেন যে গত ৬ বছরে "ঐতিহাসিকভাবে তেলের দাম কম" থাকা সত্ত্বেও, ১২ বার বিভিন্ন ছুতোনাতায় পেট্রোল এবং ডিজেলের দামের উপর শুল্ক বৃদ্ধি করে সরকারের রাজস্ব বাড়িয়েছে। তিনি বলেন, পেট্রোলের দামের উপরে ২৫৮ শতাংশ এবং ডিজেলের দামের উপরে ৮২০ শতাংশ শুল্ক বৃদ্ধি করে পেট্রোল ও ডিজেলের আবগারি শুল্ক থেকে ১৮,০০,০০০ কোটি টাকা উপার্জন করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

প্রধানমন্ত্রী মোদির প্রতি জ্বালানির দাম কমানোর আহ্বান জানিয়ে সনিয়া গান্ধি বলেন: "আপনি যদি তাদের স্বাবলম্বী করতে চান, তবে তাদের এগিয়ে যাওয়ার ক্ষমতার উপর এভাবে আর্থিক জালিয়াতি করবেন না। । "