আনন্দ শর্মা জানালেন, কংগ্রেসের প্রণব মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে কোনও সন্দেহ ছিল না

প্রণব মুখোপাধ্যায় তাঁর বক্তব্যে বলেন, “ভারতের আত্মা প্লুরালিসম এবং টলারেন্সেই বিরাজ করে।“

আরএসএস এর আমন্ত্রণে প্রণব মুখোপাধ্যায় সাড়া দেওয়ায় অনেক কংগ্রেস সমর্থকের মনে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়

হাইলাইটস

  • নাগপুরে আরএসএস এর অধিবেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়
  • তাঁর মেয়ে সমেত অনেক কংগ্রেস সমর্থক তাঁর সিদ্ধেন্তের সমালোচনা করেন
  • আরএসএস-কে প্রণব মুখোপাধ্যায় বক্তৃতায় প্লুরালিজম ও টলারেন্সের কথা বলেন
নাগপুর: প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের নাগপুরে আরএসএস হেডকোয়ার্টার অভিযানের ছবি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো লাইভ সম্প্রচার করার পর, সিনিয়র কংগ্রেস নেতা আনন্দ শর্মা টুইট করেন, “প্রণব দা আরএসএস হেডকোয়ার্টারে যাওয়ার ছবি কয়েক মিলিয়ন কংগ্রেস কর্মী এবং যারা প্লুরালিসম, ডাইভারসিটি এবং ইন্ডিয়ান রিপাবলিকের ফাউন্ডেশনাল ভ্যালুতে বিশ্বাসী তাদের আঘাত করেছে এবং তাদের মনে বিরক্তি সৃষ্টি করেছে।“

সেই সভায় আরএসএস-কে উদ্দেশ্য করে প্রণব মুখোপাধ্যায় তাঁর বক্তব্যে বলেন, “ভারতের আত্মা প্লুরালিসম এবং টলারেন্সেই বিরাজ করে।“

প্রণব মুখোপাধ্যায়ের বক্তব্যের পর মিস্টার শর্মা এনডিটিভিকে বলেন, কংগ্রেসের কোনও সদস্যেরই প্রণব মুখোপাধ্যায়ের “ক্ল্যারিটি, সাহস, কনভিক্সন এবং দেশের প্রতি তাঁর প্রতিশ্রুতি” নিয়ে কোনওরকম সন্দেহ ছিল না।  

আরএসএস-এর আমন্ত্রণে প্রণব মুখোপাধ্যায় সাড়া দেওয়ায় যে কংগ্রেস দলে তিনি 2012 সালে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ার আগেও প্রায় পাঁচ দশক ছিলেন, সেই দলের কর্মীদের মনে অসন্তোষ সৃষ্টি করেছে।

রাজ্যসভার সদস্য মিস্টার শর্মা বলেন কংগ্রেস ওভাররিয়্যাক্ট করেনি কারণ দলের কেউই কোনদিন মিস্টার মুখোপাধ্যায়ের কোনওরকম সমালোচনা করেননি।   

তিনি জোর দিয়ে বলেন, তাঁর দলের অনেক সদস্যই ওই অনুষ্ঠানে, যেখানে একজন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি উপস্থিত ছিলেন, সেখানে কেন জাতীয় পতাকা উত্তলন করে রাখা হয়নি কিম্বা জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া হয়নি সে বিষয়ে এখনও হতবাক।

“অনেক মানুষই সম্ভবত এই প্রসঙ্গটা এড়িয়ে যাচ্ছেন। সুতরাং যখন আপনি বলছেন কিছু কিছু জিনিস বিরক্তিকর, তখন সেখানে ভুল কিছুই নেই”, জানান মিস্টার শর্মা।