ভারতে টিকটক নিষিদ্ধ হওয়ায় ৬ বিলিয়ন ডলার ক্ষতির মুখোমুখি সংস্থা

Chinese Apps Ban: টিকটকের পাশাপাশি আরও ৫৮ টি চাইনিজ অ্যাপ ভারতে নিষিদ্ধ ঘোষণা করায় বিশাল অঙ্কের এক অপূরণীয় ক্ষতির মুখে সেদেশের প্রযুক্তি সংস্থাগুলো

ভারতে টিকটক নিষিদ্ধ হওয়ায় ৬ বিলিয়ন ডলার ক্ষতির মুখোমুখি সংস্থা

TikTok App: টিকটকের পাশাপাশি আরও ৫৮ টি চাইনিজ অ্যাপ ভারতে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে (ফাইল চিত্র)

হাইলাইটস

  • মোট ৫৯ টি চাইনিজ অ্যাপকে নিষিদ্ধ করার ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার
  • এর ফলে টিকটকের ব্যবসায়িক বাজার বিশাল ক্ষতির মুখে পড়বে
  • ২০২০ সালের প্রথম ৩ মাসে ভারতে ৬১১ মিলিয়ন সংখ্যক ডাউনলোড করা হয়েছে
বেজিং:

ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় ভিডিও অ্যাপ টিকটক নিষিদ্ধ হয়ে যাওয়ায় মাথায় হাত চিনা প্রযুক্তি সংস্থা বাইটডান্স লিমিটেডের। নিষিদ্ধ হয়ে গেছে ওই সংস্থারই তৈরি আরও দুটি অ্যাপ ভিভা ভিডিও এবং হ্যালো। তাদের তৈরি এই ৩টি অ্যাপই নিষিদ্ধ হয়ে যাওয়ায় সব মিলিয়ে কমপক্ষে ৬ বিলিয়ন ডলার ক্ষতির আশঙ্কা করছে সংস্থাটি। গত সোমবারই ৫৯টি চিনা অ্যাপকে নিষিদ্ধ করার কথা ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় সরকার। এই অ্যাপগুলোর মধ্যে রয়েছে টিকটক (Tiktok), উইচ্যাট এবং ইউসি ব্রাউজারের মতো জনপ্রিয় অ্যাপও। ২৯ জুন তথ্য় প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফে জানানো হয় যে, ওই চিনা অ্য়াপগুলি দেশের সার্বভৌমত্ব, অখণ্ডতা, দেশের সুরক্ষার জন্য় ক্ষতিকারক। সেকারণেই ওই অ্য়াপগুলিকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তথ্য় প্রযুক্তি আইনের ৬৯এ ধারায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে অ্য়াপগুলোর উপর।

এখনই তো ভারতীয়দের নিজস্ব অ্যাপ তৈরির "দারুণ সুযোগ": রবিশঙ্কর প্রসাদ

তবে মনে করা হচ্ছে, গালওয়ান উপত্যকায় চিনা সেনার আক্রমণে ২০ জন ভারতীয় জওয়ান শহিদ হওয়ার পরেই ওই দেশের অর্থনৈতিক কাঠামোর উপর আঘাত হানতেই চিনা অ্যাপগুলো নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এছাড়াও ভারত জুড়ে চিনা দ্রব্য বর্জনেরও দাবি উঠেছে।

টিকটক সহ ৫৯ টি চিনা অ্য়াপ নিষিদ্ধ হওয়ায় এবার জনপ্রিয় হচ্ছে দেশি অ্যাপগুলো

যদিও বাইটডান্স সংস্থাটির পক্ষ থেকে বারবার করে এই কথা বলা হচ্ছে যে, টিকটক ব্যবহারকারীদের তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষায় বরাবর জোর দিয়েছে তারা। কোনওভাবেই ভারতীয়দের কোনও ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস হয়ে যায়নি। ভারতে যেভাবে রাতারাতি ৫৯ টি চাইনিজ অ্যাপ্লিকেশনকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে সেই সিদ্ধান্তকে নজিরবিহীন বলে উল্লেখ করে বাইটডান্সের সাম্প্রতিক রিপোর্টে বলা হয়েছে, বিদেশে সর্বাধিক জনপ্রিয় চিনা অ্যাপ হিসাবে নিজের জায়গা করে নেওয়া টিকটকের উপর এটা একটা বিশাল আঘাত। চিনের বাইরে যে যে দেশে টিকটকের ভালো ব্যবসা হচ্ছিল তার মধ্যে অন্যতম হল ভারত। চলতি বছরের প্রথম ৩ মাসে ভারতে টিকটক অ্যাপটি ৬১১ মিলিয়ন সংখ্যক ডাউনলোড হয়েছে, যা সারা বিশ্বের মোট ডাউনলোডের ৩০.৩% এর কাছাকাছি।

বাইটড্যান্স সংস্থার যে ৩টি অ্যাপ্লিকেশন নিষিদ্ধ হয়ে গেছে তারা হল, ছোট ছোট ভিডিও তৈরির প্ল্যাটফর্ম টিকটক এবং ভিভো ভিডিও এবং সোশ্যাল সাইটের অন্যতম জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশন হ্যালো।

এদিকে ভারতে টিকটক সহ বাইটডান্স সংস্থার ৩টি জনপ্রিয় অ্যাপ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বহু ভারতীয়ও কাজ হারানোর মুখে। কারণ এই সংস্থার অধীনে এদেশে ২ হাজারেরও বেশি কর্মী কাজ করতেন।