"তথ্য-প্রমাণ যাতে লোপাট না হয়", সুশান্ত-কাণ্ডে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাইলেন দিদি

এই মৃত্যু তদন্তে মুম্বই বনাম পাটনা পুলিশ দ্বন্দ্ব তুঙ্গে

১৪ জুন বান্দ্রার আবাসনে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়েছে সুশান্ত সিং রাজপুতের।

নয়াদিল্লি:

সুশান্ত সিং-কাণ্ডে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাইলেন প্রয়াত অভিনেতার দিদি (Sushant's sister to PM)। শনিবার সুশান্ত সিং রাজপুতের দিদি শ্বেতা সিং কৃতী একটি বার্তা লেখেন টুইটারে। সেই বার্তায় তিনি দাবি করেছেন,  "প্রধানমন্ত্রীজি আমার মনে হয়েছে আপনি সর্বদা সত্যের জন্য লড়েছেন। আমরা খুব সাধারণ পরিবারের। আমার ভাইয়ের (Sushant Singh Rajput) বলিউডে কোনও গডফাদার ছিল না। যা করেছে নিজের উদ্যোগে। আমার অনুরোধ আপনি এই তদন্তে হস্তক্ষেপ করুন। দয়া করে নিশ্চিত করুন তথ্য-প্রমাণ যাতে লোপাট না করা হয়। আশা করবো সত্যি প্রকাশিত হবে।" এদিকে, এই মৃত্যু তদন্তে মুম্বই বনাম পাটনা পুলিশ দ্বন্দ্ব তুঙ্গে। এই দ্বন্দ্বে রাশ টানতে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে বলেছেন, "আপনারা মুম্বই পুলিশের ওপর ভরসা রাখুন। যা তথ্য-প্রমাণ আছে ওদের কাছে হস্তান্তর করুন। যুক্তিপূর্ণ তদন্ত রিপোর্ট না হলে, তখন সমালোচনা করবেন।"

দেখুন সেই টুইট: 

সত্যমেব জয়তে! সত্যি সামনে আসবেই। প্রায় একসপ্তাহ চুপ থাকার পর ফের সুশান্ত-কাণ্ডে এদিকে এভাবেই সরব হয়েছেন রিয়া চক্রবর্তী। শুক্রবার এক ভিডিও বার্তার মাধ্যমে রিয়া বিবৃতি দিয়েছেন। তাঁর আইনজীবী সতীশ মানেশিণ্ডে সেই বিবৃতি প্রকাশ্যে এনেছেন। তাতে বলা, "ভগবান এবং আদালতের প্রতি আমার অত্যন্ত বিশ্বাস আছে। আমি বিশ্বাস করি ন্যায় পাবো। বৈদ্যুতিন মাধ্যমে এতকিছু আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচারের পরেও আমার সেই বিশ্বাস আছে। যেহেতু বিষয়টি বিচারাধীন, তাই আইনজীবীর পরামর্শে আমি বেশি মন্তব্য করবো না। সত্যমেব জয়তে। সত্যি সামনে আসবেই।"

এদিকে, সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু যেন হঠাৎ করেই তাঁর ভক্তদের মাথায় বিনা মেঘে বজ্রপাত ঘটিয়েছে। মাত্র ৩৪ বছর বয়সেই জীবনের পথচলা থেমে যায় বলিউডের এই সৌম্যদর্শন অভিনেতার। ১৪ জুন, সুশান্ত সিং রাজপুতকে তাঁর বাড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়, যা দেখে প্রাথমিকভাবে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলেই মনে করছে পুলিশ। কিন্তু হঠাৎ কেন এই চরম সিদ্ধান্ত নিতে গেলেন বলিউডের এই উঠতি অভিনেতা? অনেকেই তাঁর আত্মহত্যার বিষয়টি বিশ্বাস করছেন না। এর পিছনে অন্য কোনও রহস্য আছে বলে মনে করছে সুশান্তের পরিবারও। এবার সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে নীরবতা ভাঙলেন তাঁর একসময়ের সবচেয়ে কাছের মানুষ অঙ্কিতা লোখাণ্ডে। রিপাবলিক টিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি স্পষ্টভাবে বলেন, সুশান্ত এমন মানুষই নন যিনি আত্মহত্যা করতে পারেন। পাশাপাশি সুশান্তের মানসিক অবসাদে ভোগার বিষয়টিও মানতে নারাজ অঙ্কিতা।

অঙ্কিতা লোখাণ্ডে এবং সুশান্ত সিং রাজপুত প্রায় ৬ বছর ধরে লিভ ইন করতেন। পরে যদিও অঙ্কিতার সঙ্গে আর সম্পর্ক রাখতেন না অভিনেতা। তবু এখনও সুশান্তের কথা বলতে গিয়ে অঙ্কিতার চোখে জল আসে। তিনি বলেন, "সুশান্ত আত্মহত্যা করার মতো মানুষই নয়। আমরা যখন একসঙ্গে ছিলাম তখন আমরা অনেক কঠিন পরিস্থিতি দেখেছি। কিন্তু ও সবসময় খোশমেজাজেই থাকতো। যতটুকু আমি ওকে জানি, ও কখনোই অবসাদে ভুগতে পারে না। আমি সুশান্তের মতো মানুষ জীবনে আর কখনও দেখিনি, ও নিজেই  নিজের স্বপ্নগুলোকে সত্যি করতে পারতো।