কয়লা খনির নিলাম আত্মনির্ভর ভারত গঠনের প্রাথমিক ধাপ: প্রধানমন্ত্রী

আত্মনির্ভর ভারত মানে আমদানি-নির্ভরতা কমানো। বিদেশী অর্থ সাশ্রয় আর নিজস্ব সম্পদ তৈরি", এদিন বলেন প্রধানমন্ত্রী

হাইলাইটস

  • কয়লা খনির নিলাম পদ্ধতিতে গতি আনতে উদ্যোগী প্রধানমন্ত্রী
  • ৪১টি খনি নিলামের জন্য খুলবে কয়লা মন্ত্রক, বাড়বে বিনিয়োগের পরিবেশ: মন্ত্রক
  • রফতানি নির্ভরতা কমিয়ে বিদেশী মুদ্রার অপচয় রুখতে, এই উদ্যোগ কার্যকরী: মোদি

কয়লা খনির (Coal block auction) নিলাম পদ্ধতি চালু করতে বৃহস্পতিবার উদ্যোগ নিলেন প্রধানমন্ত্রী। শক্তিক্ষেত্রে আত্মনির্ভর (Self-reliant India) ভারত নিলামে এই নিলাম কার্যকরী। এমনটাও এদিন জানিয়েছেন তিনি। তিনি (PM Modi) বলেন, "কয়লা সবার জন্য। তাই কয়লার বাজার খোলা হল। সব ক্ষেত্রকে সাহায্য করবে এই কয়লাক্ষেত্র।" কয়লা খনি বরাতের স্বার্থে দু'ধাপের ই-অনশন চালু করেছে কয়লা মন্ত্রক। এই পদ্ধতির জেরে কয়লা ও খনি ক্ষেত্রে অর্থ ও প্রযুক্তির বিনিয়োগ ঘটবে। বৃহস্পতিবার এমন আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। জানা গিয়েছে, বেসরকারি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ৪১টি খনিকে নিলামে তুলবে সরকার। প্রধানমন্ত্রী বলেন, "কয়লার খনি হলেও, হীরে খুঁজে পাওয়ার স্বপ্ন দেখতে হবে।" বাণিজ্যিক সংস্থাগুলো নতুন মূলধন আর নতুন বাজার পাবে। ব্যবসা ও বিনিয়োগের পরিবেশ বাড়বে। এমন দাবি এদিন করেন প্রধানমন্ত্রী।

"আত্মনির্ভর ভারত মানে আমদানি-নির্ভরতা কমানো। বিদেশী অর্থ সাশ্রয় আর নিজস্ব সম্পদ তৈরি", এদিন বলেন প্রধানমন্ত্রী।  জানা গিয়েছে, এই নিলাম পদ্ধতি সম্পন্ন হলে আগামী ৪-৫ বছরের মধ্যে ধাপে ধাপে ৩৩ হাজার কোটি টাকা ঘরে তুলবে মন্ত্রক। যেই রাজস্ব থেকে রাজ্যের কোষাগারে ২০ হাজার কোটি টাকা যাবে।

প্রধানমন্ত্রীর যুক্তি, "কেন্দ্রের তরফে গৃহীত এই সিদ্ধান্তের জেরে কর্মসংস্থান বাড়বে, রাজ্যের রাজস্ব লাভবান হবে।" তিনি বলেছেন, "আমরা শুধু কয়লাখনিকে নিলামে তুলছি না বরং কয়লা শিল্পকে লকডাউন থেকে বের করছি।"

গত মাসে বাজারের রুগ্নদশা ফেরাতে ২০ হাজার কোটি টাকা আর্থিক প্যাকেজের ঘোষণা করেছিলেন অর্থমন্ত্রী। আত্মনির্ভর ভারত গঠনের স্বার্থে এই প্যাকেজ ভূমিকা নেবে, জানিয়েছিলেন নির্মলা সীতারমণ। সেই ঘোষণার সময় কোল ব্লক নিলামের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন তিনি। কয়লা খনিগুলোয় বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়াতে ব্লক নিলামের সুপারিশ দিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী। সেই সুপারিশ মেনে এদিন ব্লক নিলাম পদ্ধতিতে গতি আনতে উদ্যোগ নিলেন প্রধানমন্ত্রী।  

বিরোধীদের অভিযোগ, "বিশ্বের চতুর্থ প্রাকৃতিক সম্পদের ভাঁড়ার ভারত। সেই ভাঁড়ার এভাবে বেসরকারি সংস্থা কাছে খুলে দেওয়ায় বিপদ বাড়বে।"