গণপিটুনির কারণ নোটবন্দি এবং জিএসটি থেকে তৈরি হওয়া হতাশা

জার্মানির একটি অনুষ্ঠান থেকে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে একহাত নিলেন রাহুল।

গণপিটুনির কারণ নোটবন্দি এবং জিএসটি থেকে তৈরি হওয়া হতাশা

সরাসরি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে আক্রমণ করেন কংগ্রেস সভাপতি

নিউ দিল্লি:

 আবারও তোপ দাগলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গন্ধি। তবে এবার ভারত নয়, জার্মানির একটি অনুষ্ঠান থেকে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে একহাত নিলেন রাহুল। তাঁর মতে নোটবন্দি এবং জিএসটির মতো সিদ্ধান্ত কার্যকর করায় বহু মানুষ কাজ  হারিয়েছেন। সেই রাগ এবং হাতাশা  থেকেই  ঘটছে গণপিটুনির মতো ঘটনা।

শুধু এটা নয় হামবুর্গের অনুষ্ঠান থেকে একাধিক বিষয়কে সামনে রেখে তোপ দাগতে থাকেন কংগ্রেস সভাপতি। রাজনৈতিক আক্রমণের পাশাপাশি বাবা রাজীবের মৃত্যু সম্পর্কেও নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে  করেন তিনি। স্পষ্ট করেন এলটিটিই-র প্রধান এবং রাজীব গান্ধিকে হত্যার মাস্টার মাইন্ড প্রভাকরণের মৃত্যু তাঁকে আনন্দ  দেয় না। তাঁর সন্তানদের কথা ভেবে রাহুলের কষ্ট হয়।       

গোটা বিশ্বে একের পর এক সন্ত্রাসবাদী হামলা চালিয়ে চলেছে জঙ্গি সংগঠন আইএস। ইউরোপেও বহুবার থাবা বসিয়েছে আইএস। কিন্তু কেন এমন পরিস্থিতি তৈরি  হয় তা বোঝাতে গিয়ে তিনি বলেন, সমাজের কোনও  অংশের মানুষ যদি  উন্নয়ন প্রক্রিয়া থেকে বাদ পড়ে তাহলেই এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়। এ প্রসঙ্গে বিজেপিকে আক্রমণ করে তিনি বলেন, ওরা  মনে করে দলিত, পিছিয়ে পড়া শ্রেণি এবং সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষকে  উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় না আনলেও চলবে। এটা বিপদজনক প্রবণতা। মানুষকে উন্নয়নে অন্তর্ভুক্ত না  করলে চরমপন্থী মানসিকতার জন্ম হয়।

সরাসরি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে আক্রমণ করে  তিনি বলেন প্রথম প্রধানমন্ত্রী নোটবন্দির  সিদ্ধান্ত নিলেন। এরপর পরিকল্পনা ছাড়া  জিএসটি  চালু করে দিলেন। সামান্য কাজ কর্ম করে যারা সংসার চালান তাঁদের সমস্যায় পড়তে হল। কাজ হারালেন অনেকে। আর সেই রাগ এবং হতাশা থেকেই গণপিটুনির একাধিক ঘটনা ঘটছে বলে তিনি মনে করেন।           

পাশাপাশি উঠে আসে প্রধানমন্ত্রী  মোদীকে আলিঙ্গনের প্রশ্নও। অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে আলোচনার পর রাহুল লোকসভার মধ্যেই  মোদীকে আলিঙ্গন করেছিলেন। তাতে যে তাঁর নিজের দলেই অনেকে অখুশি হয়েছিলে সেকথাও জানালেন কংগ্রেসের নতুন সভাপতি।             

             



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদিত করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে.)