হোটেলের খরচ বাঁচাতে পাক রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে থাকার সিদ্ধান্ত ইমরান খানের

কোনো বিশেষ অতিথি বিদেশ থেকে মার্কিন মুলুকে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর নিরাপত্তার দায়িত্ব নেয় আমেরিকার সিক্রেট সার্ভিস

হোটেলের খরচ বাঁচাতে পাক রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে থাকার সিদ্ধান্ত ইমরান খানের

আসন্ন মার্কিন সফরে পাক রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে থাকার ইচ্ছাপ্রকাশ ইমরান খানের

ইসলামাবাদ:

৩ দিনের মার্কিন সফরে যাচ্ছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান (Imran Khan)। ওই সফরে আমেরিকার কোনো বিলাসবহুল হোটেলে না থেকে ওয়াশিংটনে (Washington) পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে থাকারই সিদ্ধান্ত নিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী। সরকারি খরচে রাশ টানতেই তাঁর ওই সিদ্ধান্ত।  ২১ জুলাই মার্কিন সফরে রওনা দিচ্ছেন ইমরান খান। পাকিস্তানের সংবাদপত্র ডন জানিয়েছে, পাক রাষ্ট্রদূত আসাদ মাজিদ খানের (Asad Majeed Khan0 বাসভবনে থাকলে মার্কিন সফরের খরচের তালিকাটা বেশ খানিকটা কম হবে বলে মনে করছেন পাক প্রধানমন্ত্রী। যদিও ইমরান খানের এই ভাবনায় সায় নেই আমেরিকার সিক্রেট সার্ভিস এবং ওয়াশিংটন প্রশাসনের। তাঁরা একে খুব একটা গ্রহণযোগ্য ভাবনা বলে মনে করছেন না।

ইমরানের ছবি দিতে গিয়ে সচিনের ছবি, ট্যুইটারে ভুল ছবি দিয়ে ট্রোলড পাক প্রধানমন্ত্রী ঘনিষ্ঠ

কোনো অতিথি বিদেশ থেকে মার্কিন মুলুকে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর নিরাপত্তার দায়িত্ব নেয় আমেরিকার সিক্রেট সার্ভিস, তবে নিরাপত্তার কারণে ওয়াশিংটনের ট্রাফিকে যেন প্রভাব না পড়ে সেদিকেও নজর রাখা হয়।

প্রতি বছর ওয়াশিংটনে শতাধিক দেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীরা আসেন, সেই সময় শহর প্রশাসনের সঙ্গে যৌথভাবে বিষয়গুলি সামলায় আমেরিকার ফেডেরাল সরকার,যাতে ওই ভিভিআইপি সফরগুলির প্রভাব শহরের স্বাভাবিক জীবনের উপর না পড়ে।

সব সমস্যার সমাধানে আলোচনা চেয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে চিঠি ইমরান খানের: রিপোর্ট

এমনিতেই ওয়াশিংটনের ওই এলাকায় ভারত, তুরস্ক, জাপান-সহ একাধিক দেশের দূতাবাস রয়েছে। সেখানে একাধিক মার্কিন আধিকারিক, সংবাদমাধ্যম এবং বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকও করার কথা ইমরানের। কিন্তু পাক রাষ্ট্রদূতের বাসভবন আকারে তেমন বড় না হওয়ায়, বৈঠক করতে পাক প্রধানমন্ত্রীকে বার বার পাক দূতাবাসে যেতে হতে পারে। তাতেই দুশ্চিন্তা বেড়েছে সিক্রেট সার্ভিস এবং মার্কিন প্রশাসনের। কনভয় সমেত বারবার পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান রাস্তায় বেরোলে, তাতে যানজট সৃষ্টি হতে পারে বলে আশঙ্কা তাঁদের।

জানা গেছে পাকিস্তানের দূতাবাস সহ অন্যান্য দেশের দূতাবাসগুলি যে এলাকায় রয়েছে,সেখানেই আমেরিকার ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের বাসভবনও রয়েছে।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
More News