জয় শ্রী রাম বিতর্কে মোদিকে চিঠি লিখলেন অপর্ণা সেন, রামচন্দ্র গুহরা

"জয় শ্রী রাম নিয়ে উত্তেজক পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে", প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখে অভিযোগ জানালেন বাংলার ৪৯ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি

জয় শ্রী রাম বিতর্কে মোদিকে চিঠি লিখলেন অপর্ণা সেন, রামচন্দ্র গুহরা

প্রধানমন্ত্রী মোদিকে চিঠি লিখলেন অপর্ণা সেন সহ ৪৯ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি।

নয়া দিল্লি/কলকাতা:

“জয় শ্রীরাম” স্লোগান নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে পারদ চড়েছে। বিভিন্ন জায়গায় স্লোগান দেওয়াকে কেন্দ্র করে অশান্তিও হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে “জয় শ্রীরাম” স্লোগানকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা, বিভিন্ন জায়গায় গণপিটুনির মতো “দুঃখজনক ঘটনা” নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখলেন চিত্রতারকা অপর্ণা সেন, ঐতিহাসিক রামচন্দ্র গুহসহ বিশিষ্টরা। অভিনেত্রী অপর্ণা সেন, ঐতিহাসিক রামচন্দ্র গুহর স্বাক্ষর করা ওই চিঠিতে লেখা হয়েছে, “প্রিয় প্রধানমন্ত্রী...মুসলিম, দলিতসহ অন্যান্য সংখ্যালঘুদের পিটিয়ে মারার ঘটনা শীঘ্রই বন্ধ হওয়া দরকার। আমরা ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর তথ্য দেখে অবাক হয়েছি, সেখানে বলা হয়েছে, ২০১৬-এ নৃশংস এই ধরণের ঘটনার সংখ্যা ৮৪০-এর কম নয়। দোষীদের শাস্তি দেওয়ার হারও নির্দিষ্টহারে কম”।

সাংবাদিক সম্মেলন করেও গণপিটুনির মতো ঘটনার তীব্র নিন্দা করে অপর্ণা সেন বলেন, এই ধরণের ঘটনার মধ্যে রাজনীতি করার কিছুই নেই। তিনি বলেন, “সংখ্যালঘুদের পিটিয়ে মারার ঘটনা ভুল। এটা কোনও রাজনীতি বা দলের সম্পর্কে নয়। আমাদের চিঠির কোনও রাজনৈতিক রং নেই। আমরা শুধু তাঁর (প্রধানমন্ত্রী)হস্তক্ষেপ চাই”

অপর্ণা সেন বলেন, নির্দিষ্ট কোনও ধর্মের মানুষকে পিটিয়ে মারার ঘটনা নয়, ধর্মের ঊর্দ্ধে উঠে যে কোনও মানুষকেই পিটিয়ে মারার ঘটনা নিয়েই তিনি উদ্বগ্ন। তাঁর কথায়, “মানুষকে পিটিয়ে মারার ঘটনা আমাদের কাছে উদ্বেগের। আমাদের আপত্তি পিটিয়ে মারার ঘটনায়, তিনি মুসলিম হোক বা হিন্দু”।

ঝাড়খণ্ডে বছর ২৪ –এর এক যুবককে পিটিয়ে মারার ঘটনা নিয়ে জুনে সংসদে নিন্দা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন, ঝাড়খণ্ড, কেরালা বা পশ্চিমবঙ্গ, যেখানেই হোক না কেন, হিংসার ঘটনা সমান চোখেই দেখা হবে এবং উপযুক্ত শিক্ষা দেওয়া হবে হিংসার ষড়যন্ত্রকারীদের।

ঝাড়খণ্ডে গণপিটুনিতে যুবকের মৃত্যু, পাঁচ জন গ্রেফতার, সাসপেন্ড ২ পুলিশ আধিকারিক

প্রধানমন্ত্রীকে লেখা বিশিষ্টদের চিঠিতে বলা হয়েছে, “দুঃখজনকভাবে জয় শ্রীরাম এখন উত্তেজনামূলক যুদ্ধের হুঙ্কারে পরিণত হয়েছে, তারফলে আইনশৃঙ্খলার সমস্যা হচ্ছে এবং রাম নাম নিয়ে অনেক জায়গায় গণপিটুনির ঘটনাও ঘটছে। এটা দুঃখজনক যে, ধর্মের নাম নিয়ে হিংসার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে! এটা মধ্যযুগ নয়! রামচন্দ্রের নাম ভারতের বেশীরভাগ মানুষের কাছে পবিত্র। দেশের সর্বোচ্চ শাসক হিসেবে আপনার উচিত, রামনাম ব্যবহার করে এই ধরণের ঘটনা বন্ধ করা”।

1 6b22ffc6ed

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, “শাসকদলের সমালোচনা করা মানেই রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে নয়। যেখানেই ক্ষমতায় থাকুক না কেন, শাসকদল কখনই দেশের সমার্থক হতে পারে না। এটা শুধুমাত্র আমাদের দেশের একটা রাজনৈতিক দল সম্পর্কে। ফলে সরকার বিরোধিতাকে কখনও রাষ্ট্রবিরোধিতার সঙ্গে সমান করা যায় না। যে পরিবেশে সমালোচকদের মুখ বন্ধ করা হয় না, সেখানেই একটি শক্তিশালী রাষ্ট্র গড়ে উঠতে পারে...”।

প্রধানমন্ত্রীকে বিদ্দ্বজনদের লেখা চিঠিতে বলা হয়েছে, “আমাদের আশা, আমাদের এই প্রস্তাব –আমাদের দেশের ভবিষ্যত সম্পর্কে, ভারতীয়রা উদ্বিগ্ন, আশঙ্কিত---এই ভাবেই নেওয়া হবে”।

 চিঠিতে সাক্ষরকারীদের মধ্যে রয়েছেন, চিত্র নির্মাতা অনুরাগ কাশ্যপ এবং মনি রত্নম, সমাজকর্মী অনুরাধা কাপুর, সমাজকর্মী অদিতি বসু এবং লেখক অমিত চৌধুরী।

More News