This Article is From Aug 23, 2020

ডিসেম্বরের মধ্যে আসতে চলেছে ভারতের কোভিড টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শনিবার দৈনিক বিচারে সর্বাধিক ৬৩ হাজার সুস্থতার খবর মিলেছিল। সক্রিয় সংক্রমণের নিরিখে সুস্থতার সংখ্যা ছাপিয়ে গিয়েছে। দেশে এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৭৪.৬৯% মানুষ

ডিসেম্বরের মধ্যে আসতে চলেছে ভারতের কোভিড টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ফাইল ছবি।

Ghaziabad:

চলতি বছরের শেষে ভারতে আসতে পারে কোভিড টিকা। এই ইঙ্গিত দিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী হর্ষবর্ধন। গাজিয়াবাদে এনডিআরএফ-এর একটা দশ শয্যার হাসপাতালের উদ্বোধনে এসে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, "দেশে তৈরি তিনটি ভ্যাকসিনের মধ্যে একটার ক্লিনিকাল ট্রায়াল তৃতীয় পর্যায়ে রয়েছে। আশা করি চলতি বছরের শেষে উৎপাদন শুরু করতে পারবো।" তাঁর দাবি, "আট মাসের দীর্ঘ লড়াইয়ে দেশে সুস্থতার হার ৭৫%। মোট ২২ লক্ষ মানুষ এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন। আরও সাত লক্ষ মানুষ খুব দ্রুত আরোগ্য লাভ করবেন।"কোভিড পরিকাঠামো প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রী জানান, আমরা পুণের মাত্র একটা ল্যাবরেটরি দিয়ে কাজ শুরু করেছিলাম। এখন দেশে দেড় হাজার ল্যাবরেটরি। শুক্রবার আমরা দশ লক্ষ মানুষের নমুনা পরীক্ষা করেছি।

এদিকে, শনিবার দৈনিক বিচারে সর্বাধিক ৬৩ হাজার সুস্থতার খবর মিলেছিল। সক্রিয় সংক্রমণের নিরিখে সুস্থতার সংখ্যা ছাপিয়ে গিয়েছে। দেশে এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৭৪.৬৯% মানুষ।

এদিকে, মাত্র ১৫ দিনে এক মিলিয়ন সংক্রমণ ভারতে। ৭ অগাস্ট দেশে সংক্রমিত হয়েছিলেন ২০ লক্ষ মানুষ। দু'সপ্তাহ পর সেই সংখ্যা ছুঁল ৩০ লক্ষ। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানে এমনটাই উল্লেখ। দেশে শনিবার বিকেল পর্যন্ত মোট সংক্রমিত ৩০,০৫,২৮১। সংক্রমণের বিচারে বিশ্বে তিন নম্বরে ভারত। প্রথম দুয়ে ইউএস ও ব্রাজিল। গত ১৮ দিন ধরে দৈনিক সংক্রমণের বিচারে বিশ্বের অন্য দেশগুলোকে ছাপিয়ে গিয়েছে ভারত। বাজারভিত্তিক হিসেবে মহারাষ্ট্রে সংক্রমিত ৬,৫৭,৪৫০ জন। তারপরেই তামিলনাড়ু ও অন্ধ্রপ্রদেশ। এদিকে, আনলক-৩ চলাকালীন আন্তঃরাজ্য যোগাযোগ বন্ধ না করতে রাজ্যগুলোর কাছে আবেদন জানাল কেন্দ্র। কিছু রাজ্য কিংবা সংশ্লিষ্ট রাজ্যে মুষ্টিমেয়ে জেলাশাসক এই যোগাযোগ লাগাম টানছেন। ফলে প্রভাবিত হচ্ছে পণ্য পরিষেবা, বাণ্যিজিক যোগাযোগ এবং কর্মসংস্থান। তাই আন্তঃরাজ্য যোগাযোগ সচল রাখতে শনিবার চিঠি লিখলেন স্বরাষ্ট্র সচিব অজয়কুমার ভাল্লা। সেই চিঠির পঞ্চম অনুচ্ছেদে লেখা আন্তঃরাজ্য কিংবা আন্তঃজেলা যোগাযোগে কোনও পণ্য কিংবা মানুষের পৃথক ই-পারমিট লাগবে না। এমনকী, এই আবেদন লঙ্ঘিত হলে বিপর্যয় মোকাবিলা আইন, ২০০৫-এর লঙ্ঘন করা হবে। এমন বার্তাও দেওয়া সেই চিঠিতে। এদিকে, যেন সংক্রমণের রেকর্ড ভাঙাগড়ার খেলায় মেতেছে করোনা ভাইরাস। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক শনিবার সকালে যে পরিসংখ্যান তুলে ধরেছে তাতে দেখা যাচ্ছে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে রেকর্ড সংক্রমণ ঘটেছে। একদিনের মধ্যে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হলো ৬৯,৮৭৮ জন। ফলে ভারতে এপর্যন্ত মোট করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২৯,৭৫,৭০১ জন।

তবে প্রায় ২২.২২ লক্ষ মানুষ এই রোগের সঙ্গে লড়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। গত একদিনে ৯৪৫ জনের কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মৃত্য়ু হয়েছে। ফলে এখনও পর্যন্ত দেশে ৫৫,৭৯৪ জনের প্রাণ কেড়েছে এই মারণ ভাইরাস।