This Article is From Jul 20, 2020

বাড়ছে সংক্রমণ! প্রতিরোধে রাজ্যের প্রতিটা হাসপাতাল ও নার্সিংহোমে কোভিড ইউনিট

জানা গিয়েছে, প্রথম ধাপে দুই ২৪ পরগনা এবং দুই মেদিনীপুরে স্টেট জেনারেল হাসপাতালে এই কোভিড-১৯ কেন্দ্র পরীক্ষামূলক ভাবে চালু করা হবে

বাড়ছে সংক্রমণ! প্রতিরোধে রাজ্যের প্রতিটা হাসপাতাল ও নার্সিংহোমে কোভিড ইউনিট

এই পরিস্থিতি থেকে বেরোতে হাসপাতাল ও নার্সিংহোমগুলোতে কোভিড-১৯ ইউনিট খোলার এই উদ্যোগ (ফাইল ছবি!)

কলকাতা:

প্রতিটি হাসপাতাল ও নার্সিংহোমে কোভিড-১৯ বানাতে উদ্যোগ নিল নবান্ন। সোমবার রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপণ বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছেন, "রাজ্যের কিছু এলাকায় গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়েছে। তাই এবার থেকে সপ্তাহে দু'দিন সম্পূর্ণ লকডাউন রাজ্যে।" পাশাপাশি প্রতিদিন বাড়ছে দৈনিক সংক্রমণের হার। এই পরিস্থিতি থেকে বেরোতে হাসপাতাল ও নার্সিংহোমগুলোতে কোভিড-১৯ ইউনিট খোলার এই উদ্যোগ। স্বাস্থ্য দফতরের এক কর্তা সোমবার এমনটাই জানিয়েছেন। পাশাপাশি ২৫ হাজার আরটি-পিসির কীট কিনতে উদ্যোগ নিয়েছে স্বাস্থ্য দফতর। প্রতিদিন ২৫০০০ নমুনা পরীক্ষা নিশ্চিত করতে এই উদ্যোগ। জানা গিয়েছে, প্রথম ধাপে দুই ২৪ পরগনা এবং দুই মেদিনীপুরে স্টেট জেনারেল হাসপাতালে এই কোভিড-১৯ কেন্দ্র পরীক্ষামূলক ভাবে চালু করা হবে। তারপর অন্য জেলায় বাড়ানো হবে বিস্তার। এই কেন্দ্রগুলোতেই দিনপ্রতি ২৫ হাজার নমুনা পরীক্ষার স্বার্থে ব্যবহার করা হবে আরটিপিসিআর মেশিন। এমনটাই স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর।

রাজ্যে শুরু গোষ্ঠী সংক্রমণ। এখন থেকে সপ্তাহে দু'দিন রাজ্যে সম্পূর্ণ লকডাউন, বলো ঘোষণা করলেন স্বরাষ্ট্র সচিব।  চলতি সপ্তাহে বৃহস্পতি-শনি লক ডাউন। পরের সপ্তাহে বুধবার লকডাউন। পরে দ্বিতীয় দিন ঘোষণা হবে, জানালেন স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।  এদিন নবান্নে স্বরাষ্ট্র সচিব বলেছেন, "রাজ্যের বিশেষজ্ঞ কমিটি, চিকিৎসক মহলের সঙ্গে কথা বলে জানা গিয়েছে রাজ্যের কিছু জায়গায় গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়েছে। এই প্রকোপ কমাতে সপ্তাহে দু'দিন করে লকডাউন চলবে। চলতি সপ্তাহে বৃহস্পতিবার আর শনিবার লকডাউন। পরের সপ্তাহে বুধবার লকডাউন। সেই সপ্তাহের দ্বিতীয় দিন পরে ঘোষণা করা হবে।" তিনি জানিয়েছেন, আগামি সপ্তাহে সোমবার পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবো। স্বরাষ্ট্র সচিবের দাবি,  "কোভিড হাসপাতাল ও সেফ হোমের সংখ্যা বেড়েছে। উপসর্গহীন হলে হোম আইসোলেশন ও সেফ হোমে রাখা হবে।"

ঘরে ঘরে নমুনা পরীক্ষায় ইউকে'র অ্যান্টিবডি টেস্ট! ২০ মিনিটে জানা যাবে রেজাল্ট

হঠাৎ করেই যেন, পশ্চিমবঙ্গে করোনা ভাইরাসের দৌরাত্ম্য বেড়ে গেছে। রবিবার সারাদিনে মোট ৩৬ জনের প্রাণ কেড়েছে ওই মারণ ভাইরাস। ফলে এখনও পর্যন্ত এরাজ্যে কোভিড- ১৯ এর ফলে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ১,১১২ জনে দাঁড়িয়েছে। ৫ জুলাই থেকে রাজ্য়ে এই রোগে মৃত্যুর সংখ্যা ২০ জন বা তার আশেপাশেই ঘোরাফেরা করছিল, কিন্তু গত ২৪ ঘণ্টায় যেন আরও বিধ্বংসী রূপ দেখালো করোনা। মৃত ৩৬ জনের মধ্যে কলকাতায় ১৫ জন মারা গেছে এবং উত্তর ২৪ পরগনাতে মৃত ৯ জন। হুগলীতে ৪ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। হাওড়া ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৩ জন করে এবং পূর্ব মেদিনীপুর ও পশ্চিম মেদিনীপুরে একজন করে করোনা রোগী মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।একদিনের মধ্যে বেড়েছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যাও, ২,২৭৮ জন নতুন করোনা রোগীর সন্ধান মিলেছে রাজ্যে। ফলে বাংলায় করোনার কবলে পড়া মানুষের সংখ্যা বেড়ে হল ৪২,৪৮৭ জন।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)