This Article is From Oct 14, 2018

#MeToo যৌন হেনস্থার অভিযোগকে মিথ্যা বললেন আকবর, সম্পূর্ণ বক্তব্য পড়ুন

তাঁর বিরুদ্ধে  ওঠা  যৌন নির্যাতনের জবাব দিয়েছেন কেদ্রীয় মন্ত্রী এম জে  আকবর।

#MeToo  যৌন হেনস্থার অভিযোগকে মিথ্যা  বললেন আকবর,  সম্পূর্ণ বক্তব্য পড়ুন

কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সম্পূর্ণ বক্তব্য তুলে ধরা হল।

হাইলাইটস

  • তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা যৌন নির্যাতনের জবাব দিয়েছেন এম জে আকবর
  • নাইজেরিয়ার সরকারি সফর থেকে দেশে ফিরে নিজের বক্তব্য জানিয়েছেন আকবর
  • আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ভাবছেন এই প্রাক্তন সম্পাদক
নিউ দিল্লি:

 

 

তাঁর বিরুদ্ধে  ওঠা  যৌন নির্যাতনের জবাব দিয়েছেন কেদ্রীয় মন্ত্রী এম জে  আকবর। নাইজেরিয়ার সরকারি সফর থেকে দেশে ফিরে নিজের বক্তব্য জানিয়েছেন আকবর। মিটু (#MeToo) আন্দোলোনের অঙ্গ  হিসেবেই উঠেছে অভিযোগ।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সম্পূর্ণ বক্তব্য পড়ূনঃ           

 আমার  বিরুদ্ধে  তোলা অশালীন আচরণের অভিযোগ  মিথ্যা। বিদেশে  থাকায় আমি  আগে  জবাব দিতে  পারিনি। কোনও প্রমাণ ছাড়া  মিথ্যা  অভিযোগ করা এখন কিছু মানুষের মধ্যে  সংক্রমণের মতো ছড়িয়েছে। কিন্তু এখন আমি দেশে ফিরে এসেছি। এবার আমার আইনজীবীরা যা করার  করবেন। আর কয়েক মাস বাদে লোকসভা নির্বাচন। তার আগে এমন অভিযোগ উঠল কেন? এর নেপথ্যে  কোনও কারণ আছে কি? উত্তর আপনারাই দেবেন। এই সমস্ত  অভিযোগ আমার  ভাবমূর্তিকে নষ্ট করেছে। মিথ্যার হাত পা  হয় না  কিন্তু তাঁর  মধ্যে বিষ থাকে। এই অভিযোগ  হতাশা  ব্যঞ্জক। আমি আইনানুগ ব্যবস্থা নেব। প্রিয়া  রামানি এক বছর আগে এই ব্যাপারটা  শুরুর  করেছেন। আগে আমার নাম  করেননি। এখন করছেন। একটি টুইটের জবাবে তিনি  নিজেই বলেছেন আমার নাম আগে বলেননি কারণ আমি কিছু করিনি।  

আমি যদি কিছু না করে থাকি তাহলে এগুলো চারপাশে  কী ঘটছে এবং কেন ঘটছে? এরকম পরিস্থিতি আগে কখনও তৈরি হয়নি।  আমি তাঁকে কখনও স্পর্শ করিনি। সুষমা রাহা বলেছেন তাঁর আগেই বলে দেওয়া উচিত আমি  কিছু করিনি। অঞ্জু ভারতী বলেছেন আমি সুইমিং পুলে  পার্টি করছিলাম। আদতে  আমি সাঁতার  কাটতেই জানি না!

 ঘাজালা অয়াহাবও আমার বিরুদ্ধে  অভিযোগ করেছেন। আমি তাঁর  সঙ্গে একটিমাত্র জায়গায় কাজ করেছি। সেটি হল এশিয়ান এজ। সে সময় স্মপাদকীয় টিম  একটা ছোট হলে  বসে কাজ করত। আমার জন্য চারদিক প্লাইউড দিয়ে ঘেরা  ছোট একটা কিউবিকল ছিল। বাকিরা বসতেন মাত্র  দুফুট  দূরে। তাই ওই টুকু জায়গায় কিছু হবে এটা ধরে নেওয়া যায় না । তাছাড়া এমন কিছু  হলে কেউ জানবে না, সেটাও হতে  পারে না! এই অভিযোগ মিথ্যা, বানানো এবং উদ্দেশ প্রণোদিত।