This Article is From Nov 27, 2019

দেখে নিন মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক উত্থান-পতনের দশটি তথ্য:

অজিত পাওয়ারের চারদিনের বিশ্বাসঘাতকতায় ক্ষতি হয়নি দলের, তাঁর সমর্থকদের “অজিত দাদা আমরা আপনাকে ভালবাসি” প্ল্যাকার্ড হাতে হোটেলে স্বাগত জানাতে দেখা যায়

মঙ্গলবার মহারাষ্ট্রের উপমুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দেন অজিত পাওয়ার(ফাইল)

মুম্বই: মুখ্যমন্ত্রী পদে দ্বিতীয়বার ৮০ ঘন্টা নাটকীয় সময় কাটানোর পর, আস্থা ভোটে সংখ্যাগরিষ্ঠতার পরীক্ষার একদিন আগে, পদত্যাগ করলেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশ। উপমুখ্যমন্ত্রী পদে অজিত পাওয়ারের পদত্যাগের কিছুক্ষণ পরেই পদত্যাগ করেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশও। অজিত পাওয়ারের মেরু বদল হতবাক করে দিয়েছিল বিজেপি বিরোধী জোটকে, এদিন সন্ধ্যাতেই তাঁর দলে ফেরার কথা। এনসিপির উচ্চ মহলের সূত্রের খবর, তিনি “ঘরে ফিরেছেন” এবং সরকার গঠনের জন্য মুম্বইয়ের ট্রিডেন্ট হোটেলে এনসিপি, কংগ্রেস ও শিবসেনার বৈঠকে যোগ দেবেন।

Here are the top developments in Maharashtra politics today:

  1. অজিত পাওয়ারের চারদিনের বিশ্বাসঘাতকতায় ক্ষতি হয়নি দলের, তাঁর সমর্থকদের “অজিত দাদা আমরা আপনাকে ভালবাসি” প্ল্যাকার্ড হাতে হোটেলে স্বাগত জানাতে দেখা যায়
     

  2. সাংবাদিকদের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ বলেন, “অজিত পাওয়ার আমায় পদত্যাগপত্র দিয়েছেন।  তিনি আমায় জানিয়েছেন, ব্যক্তিগত কারণে পদত্যাগ করছেন। বিজেপি প্রথমদিন থেকেই ঠিক করেছে কোনও ঘোড়া কেনাবেচা হবে না। আমরা সরকার গডড়তে চেয়েছিলাম, কারণ এনসিপি আমাদের সঙ্গে ছিল। যেহেতু তিনি পদত্যাগ করেছেন, আমাদের সংখ্যা নেই। সেই জন্য আমি পদত্যাগ করছি”।
    .

  3. অতিসত্ত্বর আস্থা ভোটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণের নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট, যা লাইভ সম্প্রচারিত হবে, যাতে দেবেন্দ্র ফড়নবিশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করতে পারেন। তিন বিচারপতি বলেন, “যদি আস্থা ভোটে দেরী হয়, ঘোড়া কেনাবেচার সম্ভাবনা রয়েছে, গণতান্ত্রিক মূল্য রক্ষা করার ক্ষেত্রে হস্তক্ষেপ করা আদালতের কাজ”।
     

  4. সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পরেই বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। তারপরেই দেবেন্দ্র ফড়নবিশের কাছে মেসেজ যায়।
     

  5. শনিবার হঠাৎই করে সকাল ৭.৫০টায় শপথ গ্রহণ করেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশ এবং অজিত পাওয়ার, সেটিকে অগণতান্ত্রিক এবং অসাংবিধানিক বলে মন্তব্য করে সুপ্রিম কোর্টে মামলা হয়।
     

  6. বিজপির হঠাৎ করে উথ্থানের নেপথ্যে ছিল অজিত পাওয়ারের মেরুবদল। তবে গত কয়েকদিনে দলে ফিরে আসেন প্রায় সমস্ত এনসিপি বিধায়কই, এবং সোমবার সন্ধ্যায় দলের শক্তিপ্রদর্শনে মুম্বইয়ের হোটেলে উপস্থিত ছিলেন প্রায় ৫০জন বিধায়ক। এর অর্থ দাঁঢ়ায়, দলের মধ্যেই ক্রমাগত কোণঠাসা হয়ে পড়ছিলেন অজিত পাওয়ার এবং বিজেপির সংখ্যাগরিষ্ঠ বিধায়ক নেই।
     

  7. এনসিপির উচ্চ মহলের সূত্রের খবর, তিনি “ঘরে ফিরেছেন” এবং সরকার গঠনের জন্য মুম্বইয়ের ট্রিডেন্ট হোটেলে এনসিপি, কংগ্রেস ও শিবসেনার বৈঠকে যোগ দেবেন।
     

  8. অজিত পাওয়ারের চারদিনের বিশ্বাসঘাতকতায় ক্ষতি হয়নি দলের, তাঁর সমর্থকদের “অজিত দাদা আমরা আপনাকে ভালবাসি” প্ল্যাকার্ড হাতে হোটেলে স্বাগত জানাতে দেখা যায়।

  9. সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন দেবেন্দ্র ফডড়নবিশ, একটি ত্রাণ চেকে স্বাক্ষর করেন এবং প্রথমবার নয়া মন্ত্রিসভার সদস্যদের বৈঠক করেন। তবে অজিত পাওয়ার অনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব নেননি। সোমবার সন্ধ্যায় মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠকেও গড়হাজির ছিলেন তিনি এবং এদিন সকালে ২৬/১১ স্মরণেও উপস্থিত ছিলেন না।
     

  10. নয়া বিধায়কদের শপথগ্রহণের জন্য রাত ৮টায় বিধানসভা বিশেষ অধিবেশন ডেকেছেন রাজ্যপাল ভগৎ সিং কোশিয়ারি