‘লাভ জিহাদ’-এর কোনও রিপোর্ট দেয়নি কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলি: সরকার

এক লিখিত প্রশ্নের উত্তরে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জি কিষান রেড্ডি জানান, ‘‘এই শব্দবন্ধ ‘লাভ জিহাদ’-কে বর্তমান আইনে সংজ্ঞায়িত করা নেই।’’

‘লাভ জিহাদ’-এর কোনও রিপোর্ট দেয়নি কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলি: সরকার

‘লাভ জিহাদ’-এর (Love Jihad) কোনও সংজ্ঞা বর্তমান আইনে নেই বলে জানালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

হাইলাইটস

  • ‘লাভ জিহাদ’-এর কোনও সংজ্ঞা বর্তমান আইনে নেই বলে জানাল সরকার
  • এই প্রথম কেন্দ্রীয় সরকার এভাবেই সরাসরি ‘লাভ জিহাদ’ থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখল
  • কেরলে বহু তদন্তকারী সংস্থা কেরলে ‘লাভ জিহাদ’ জাতীয় কেসের তদন্ত করছে
নয়াদিল্লি:

‘লাভ জিহাদ'-এর (Love Jihad) কোনও সংজ্ঞা বর্তমান আইনে নেই। এবং এমন কোনও কেস কোনও কেন্দ্রীয় সংস্থার তরফে দায়ের করা হয়নি। এই প্রথম কেন্দ্রীয় সরকার এভাবেই সরাসরি ‘লাভ জিহাদ' থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখল। প্রসঙ্গত, ‘লাভ জিহাদ' শব্দবন্ধটি দক্ষিণপন্থী দলগুলি ব্যবহার করে থাকে মুসলিম পুরুষ ও হিন্দু নারীর সম্পর্কের ক্ষেত্রে। তাদের দাবি থাকে, এক্ষেত্রে কোনও মহিলাকে ধর্মান্তরিত করার লক্ষ্যেই ছল করে তাঁর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ান মুসলিম পুরুষরা। এক লিখিত প্রশ্নের উত্তরে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জি কিষান রেড্ডি জানান, ‘‘এই শব্দবন্ধ ‘লাভ জিহাদ'-কে বর্তমান আইনে সংজ্ঞায়িত করা নেই। কোনও কেন্দ্রীয় সংস্থাই ‘লাভ জিহাদ'-এর কোনও কেস দায়ের করেনি।''

শাহিনবাগ ও জামিয়াতে গুলি চালনার ঘটনায় দায়ী বিজেপির "উস্কানি": Mamata Banerjee

কেরল হাইকোর্ট সহ বহু আদালতই এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত হয়েছে। জি কিষান রেড্ডি বলেন, তবে কেরলে দু'টি ‘আন্তর্বিশ্বাস বিয়ে'-র ঘটনা জানা গিয়েছে যার তদন্ত করছে এনআইএ।

কেরলের এক কংগ্রেস নেতা বেনি বেহানানের প্রশ্নের উত্তরে এই জবাব দেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। ওই নেতা প্রশ্ন করেছিলেন, কোনও কেন্দ্রীয় সংস্থা গত দু'বছরে কেরলে কোনও ‘লাভ জিহাদ'-এর ঘটনার রিপোর্ট দায়ের করেছে কিনা।

বিজেপিকে ‘দুঃশাসনের দল', ‘তুঘলকের বংশধর' বলে তোপ দাগলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

প্রসঙ্গত, কেরলে বহু তদন্তকারী সংস্থা কেরলে ‘লাভ জিহাদ' জাতীয় কেসের তদন্ত করছে। এদের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় ২০১৮ সালের হাদিয়া কেস।

হাইকোর্ট কেরলের এক ২৫ বছরের তরুণীর মুসলিম ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে নাকচ করে দিলেও সু্প্রিম কোর্ট জানিয়ে দেয়, ওই মহিলার তাঁর স্বামীর সঙ্গে সংসার করতে কোনও বাধা নেই।

গত মাসে কেরলের এক প্রভাবশালী ক্যাথলিক চার্চ প্রচার করেছিল ‘‘লাভ জিহাদ নিখাদ বাস্তব।'' চার্চের তরফে অভিযোগ জানানো হয় আইসিসের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা খ্রিস্টান মহিলাদের সঙ্গে এইভাবেই সম্পর্ক তৈরি করে তাঁদের সন্ত্রাসমূলক কার্যকলাপে যুক্ত করেন।