হঠাৎ ছন্দপতন! সকলকে কাঁদিয়ে চলে গেলেন কিংবদন্তী নৃত্যশিল্পী অমলা শঙ্কর

শুক্রবার নিজের বাড়িতে ঘুমের মধ্যেই পরলোকে পাড়ি দেন বঙ্গবিভূষণ এই শিল্পী, মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ১০১ বছর

হঠাৎ ছন্দপতন! সকলকে কাঁদিয়ে চলে গেলেন কিংবদন্তী নৃত্যশিল্পী অমলা শঙ্কর

Amala Shankar Dies: গত মাসেই তাঁর জন্মদিন পালন করেন পরিবারের সদস্যরা (ফাইল চিত্র)

হাইলাইটস

  • ১০১ বছর বয়সে পরলোকে পাড়ি দিলেন অমলা শঙ্কর
  • কিংবদন্তী এই নৃত্যশিল্পীর প্রয়াণের খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় জানান তাঁর নাতনি
  • উদয় শঙ্করের ঘরণী ছিলেন অমলা শঙ্কর
কলকাতা:

চলে গেলেন দেশের কিংবদন্তী নৃত্যশিল্পী অমলা শঙ্কর (Amala Shankar)। শুক্রবার নিজের বাড়িতে ঘুমের মধ্যেই পরলোকে পাড়ি (Amala Shankar Dies) দেন বঙ্গবিভূষণ এই শিল্পী, মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ১০১ বছর। বার্ধক্যজনিত কারণেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। জুন মাসের ২৭ তারিখই তাঁর পরিবারের তরফে বিখ্যাত ওই নৃত্যশিল্পীর জন্মদিন পালন করা হয়। তারপর একমাসও কাটল না, পরিবার ও অগুণতি অনুরাগীদের মায়া কাটিয়ে চলে গেলেন তিনি। অমলা শঙ্করের প্রয়াণের খবর (Amala Shankar Death News) ফেসবুকে জানান তাঁর নাতনি শ্রীনন্দা শঙ্কর। পাশাপাশি টুইটারেও প্রিয় ঠাকুমার ছবি দিয়ে একই কথা জানান তিনি। টুইটারে শ্রীনন্দা লেখেন, ‘‘১০১ বছর বয়সে আজ আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন ঠাম্মা। গত মাসেই ওঁর জন্মদিন পালন করেছিলাম আমরা। খুব অস্থির বোধ করছি কারণ মুম্বই থেকে কলকাতা যাওয়ার বিমান চলছে না। ওঁর আত্মার শান্তি কামনা করি। একটা যুগের অবসান হল। ঠাম্মা, তোমাকে খুব ভালবাসি। সবকিছুর জন্যবাদ।'' 

দেখে নিন অমলা শঙ্করের নাতনির দেওয়া সেই পোস্ট:

১৯১৯ সালের ২৭ জুন অবিভক্ত ভারতের যশোর জেলায় জন্ম হয় অমলা শঙ্করের। ১৯৩১ সালে মাত্র ১১ বছর বয়সে তিনি প্য়ারিসের ইন্টারন্য়াশনাল কলোনিয়াল এগজিবিশনে অংশ নেন। ওই সময়েই শঙ্কর পরিবারের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ হয়। কিছুদিন পর থেকেই তিনি উদয় শঙ্করের কাছে তালিম নিতে শুরু করেন। এর পরে ১৯৪২ সালে তাঁদের বিয়ে হয়। গত শতাব্দীতে চারের দশক থেকেই উদয় শঙ্কর ও অমলা শঙ্কর জুটি সারা বিশ্বে বিশেষ খ্যাতি অর্জন করে। 

২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফে অমলা শঙ্করকে বঙ্গবিভূষণ পুরষ্কারে সম্মানিত করা হয় ৷ শেষবার অমলা শঙ্করকে মঞ্চে দেখা গিয়েছিল ওই ২০১১ সালেই। ৯২ বছর বয়সে ‘সীতা স্বয়ম্ভর' নামের একটি নৃত্যনাট্যে অভিনয় করেছিলেন তিনি। রাজা জনকের চরিত্রে তাঁর অভিনয় এখনও অনেকের মনে জীবন্ত হয়ে আছে। ওই একই বছরে আরও একটি নৃত্যনাট্য ‘মিসিং ইউ'তেও মঞ্চে দেখা যায় তাঁকে। 

অমলা শঙ্করের প্রয়াণে যেন একটি যুগের অবসান হলো। প্রিয় শিল্পীর জন্যে মন খারাপ শুধু কলকাতাই নয়, গোটা ভারতের সংস্কৃতিপ্রেমী মানুষজনের। ভালো থাকুন, অমলা শঙ্কর।