“আমার থেকে ভারতের ভাল বন্ধু কখনও ছিল না”, বললেন ট্রাম্প

Howdy Modi: শুল্ক নিয়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে, এটি আলোচনার অন্যতম কেন্দ্র বলে মনে করা হচ্ছে

“আমার থেকে ভারতের ভাল বন্ধু কখনও ছিল না”, বললেন ট্রাম্প

রবিবার হাউস্টনে ইন্দো-আমেরিকানদের মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে একমঞ্চে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি

নয়াদিল্লি:

রবিবার হাউস্টনে ইন্দো-আমেরিকানদের মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের (Donald Trump) সঙ্গে একমঞ্চে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi), বাণিজ্য শুল্ক নিয়ে দুই দেশের মধ্যে তৈরি হওয়া উত্তেজনা ঢেকে দিল এদিনের মঞ্চ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, “আজকের মতো আমেরিকায় কখনও বিনিয়োগ করেনি ভারত এবে উল্টোদিকেও, আমরাও ভারতে সেটাই করছি। তাঁর কথায়, “প্রধানমন্ত্রী মোদি, আমি আপনার সঙ্গে কাজ করতে মুখিয়ে রয়েছি.. আগের থেকেও দেশকে আরও সমৃদ্ধ করতে চাই...ডোনাল্ড ট্রাম্পের থেকে হোয়াইট হাউসে আপনার ভাল বন্ধু আগে কখনও ছিল না”। শুল্ক নিয়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে, এটি আলোচনার অন্যতম কেন্দ্র বলে মনে করা হচ্ছে।

চলতি বছরের জুনে, বিশেষ বাণিজ্যিক সুবিধা যুক্ত দেশের তকমা ভারতের থেকে কেড়ে নেয় আমেরিকা, এর ফলে ৫.৬ বিলিয়ন ডলার আমেরিকান আমদানি করতে পারত ভারত। পাল্টা ২২টি আমেরিকান পণ্যের ওপরে শুল্ক চাপায় ভারত, রিপোর্ট অনুযায়ী, আমেরিকার মূল্য প্রায় ২২০ মিলিয়ন ডলার।

আমেরিকার তরল প্রাকৃতিক গ্যাস কেনার মধ্যে ষষ্ঠস্থানে রয়েছে ভারত...কয়েকবছরের মধ্যে বিশেষ সুবিধাযু্ক্ত দেশের তকমা ফিরে পেতে চায় ভারত, আন্তর্জাতিক বাজারে মন্দার বিরুদ্ধে লড়াই করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

বৈঠকের ফাঁকেই, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে মঞ্চ ভাগ করাকে “বিশ্বের বৃহত্তম এবং পুরানো গণতন্ত্রের সঙ্গে সম্পর্ক এবং শক্তি ও বাণিজ্য ক্ষেত্রে তাদের সম্পর্ক মজবুত করার আলোচনা বলে বর্ণনা করেছে”।

প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বৈঠকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানানো হয়, সম্প্রতি কিছু বিষয়ে মতান্তর থাকলেও, দুজনের মধ্যে ভাল সম্পর্ক রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, “আমরা বেশ কয়েকবার সাক্ষাৎ করেছি এবং প্রত্যেকবারই তিনি ছিলেন উষ্ণ, বন্ধুত্ত্বপূর্ণ, গ্রহণযোগ্য, উৎসাহী এবং বু্দ্ধিমান...তাঁর নেতৃত্বের ক্ষমতা, আমেরিকার জন্য তাঁর স্বপ্ন, প্রত্যেক আমেরিকান নাগরিকের জন্য উদ্বেগ, আমেরিকার ভবিষ্যত সম্পর্কে বিশ্বাস, এবং আমেরিকাকে আবারও মহান করে তোলার প্রচেষ্টা লক্ষ্য করেছি। তিনি ইতিমধ্যেই আমেরিকার অর্থনীতিকে শক্তিশালী করে তুলেছেন। বিশ্ব এবং আমেরিকার জন্য তিনি অনেক কিছু করেছেন”।