আর এসপিজি সুরক্ষা নয়, এখন থেকে জেড প্লাস নিরাপত্তা পাবে গান্ধি পরিবার

Z+ Security: জেড প্লাস সুরক্ষা মানে গান্ধি পরিবারের সুরক্ষার দায়িত্বে থাকবেন কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) কর্মীরা

যদিও সূত্র মারফৎ খবর যে গান্ধি পরিবারকে এখনও SPG Security প্রত্যাহারের কথা জানানো হয়নি

নয়া দিল্লি:

বিশেষ নিরাপত্তার আওতায় (SPG Security) আর থাকছে না গান্ধি পরিবার, তাঁদের জন্যে বরাদ্দ এসপিজি সুরক্ষা তুলে নেওয়া হচ্ছে এবার। মোদি সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে এখন থেকে শুধুমাত্র জেড প্লাস নিরাপত্তা পাবেন কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গান্ধি (Sonia Gandhi) এবং রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধি। যদিও গান্ধি পরিবার সূত্রে দাবি, কেন্দ্রীয় সরকারের নেওয়া এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে তাঁদের এখনো কিছু জানানো হয়নি।  সম্প্রতি একটি নিরাপত্তা পর্যালোচনা শেষে গান্ধি পরিবারের উপর থেকে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা অর্থাৎ এসপিজি সুরক্ষা তুলে নেওয়ার এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে। এখন থেকে এসপিজি সুরক্ষা পাবেন শুধুমাত্র দেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। এসপিজি সুরক্ষায় ৩০০০ জন নিরাপত্তা রক্ষী সুরক্ষা দেওয়ার দায়িত্বে থাকেন।

তবে জেড প্লাস সুরক্ষা (Z+ Security) ব্যবস্থাতেও যথেষ্ট নিরাপত্তার কড়াকড়ি থাকে। জেড প্লাস সুরক্ষা মানে সনিয়া গান্ধি এবং রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধিকে সবসময় বহাল থাকবেন কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) প্রায় ১০০ জন কর্মী।

“গান্ধিজির আত্মা কষ্ট পেত”, সরকারকে কটাক্ষ করে বললেন সনিয়া গান্ধি

১৯৯১ সালে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধির হত্যার পর থেকেই এসপিজি-র আওতায় ছিল গান্ধি পরিবার। তবে মোদি সরকারের সাম্প্রতিক এই সিদ্ধান্তে তাঁদের নিরাপত্তা স্তর কিছুটা হলেও লঘু করা হল বলে মনে করছেন কংগ্রেস নেতা কর্মীরা। মনে করা হচ্ছে গান্ধি পরিবারের এসপিজি সুরক্ষা ব্যবস্থা তুলে নিয়ে জেড প্লাস নিরাপত্তা দেওয়াকে ঘিরে রাজনীতি রং চড়তে পারে।  

তথ্য জানার অধিকার আইনের পরিবর্তন করায় সরকারকে আক্রমণ সনিয়া গান্ধির

ইন্দিরা গান্ধিকে তাঁর দেহরক্ষীরা হত্যা করার এক বছর পরে ১৯৮৫ সাল থেকে দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর পরিবারকে বিশেষ সুরক্ষা দিতেই এসপিজি সুরক্ষা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। রাজীব গান্ধি হত্যার পরে, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এবং তারঁ পরিবারকেও ১ বছর থেকে ১০ বছর পর্যন্ত এসপিজি সুরক্ষা দেওয়ার জন্য এসপিজি আইনটি সংশোধন করা হয়েছিল। প্রয়োজনে ওই সুরক্ষার মেয়াদ বাড়ানোর কথাও বলা রয়েছে ওই আইনে।

তবে সরকারি সূত্র মতে, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর পরিবারে এই এসপিজি সুরক্ষা ব্যবস্থাটি নিয়ে প্রতি পাঁচ বছর অন্তর পর্যালোচনা করার বিধান রয়েছে। 

গত অগাস্টেই, সরকার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের এসপিজির নিরাপত্তা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচডি দেবেগৌড়া এবং ভিপি সিংয়ের কাছ থেকেও ওই  সুরক্ষা ব্যবস্থা প্রত্যাহার করা হয়েছিল। তবে ২০১৮ সালে প্রয়াত হওয়ার আগে পর্যন্ত এসপিজি সুরক্ষা পেয়েছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী।

More News