"গালওয়ানে সেনার বীরত্ব ও আত্মবলিদানকে কখনোই ভুলবে না দেশ", বললেন রাজনাথ সিং

Rajnath Singh: "নিহত সেনাদের পরিবারের প্রতি আমার গভীর সমবেদনা রয়েছে", টুইটে একথাও লেখেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী

India-China: দেশ এই সেনাদের আত্মবলিদানের কথা মনে রাখবে, বলেন রাজনাথ

হাইলাইটস

  • ভারতীয় সেনার আত্মবলিদানকে কুর্ণিশ জানালেন রাজনাথ সিং
  • কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী নিহত জওয়ানদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান
  • গালওয়ানে ভারত-চিন সেনা সংঘর্ষে নিহত ২০ জন ভারতীয় জওয়ান
নয়া দিল্লি:

"যেভাবে গালওয়ানে ভারতীয় সেনার মৃত্যু হয়েছে তা অত্যন্ত দুঃখের, এই সেনা জওয়ানদের বীরত্ব ও আত্মবলিদানকে কখনোই ভুলবে না দেশ", ভারত-চিন সীমান্তে দুই দেশের সেনার (India-China Border Dispute) মধ্যে যে সংঘর্ষ হয়েছে তার পরিপ্রেক্ষিতে বললেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং (Rajnath Singh)। সোমবার গালওয়ান উপত্যকায় (Galwan Valley) ভারতীয় সেনার সঙ্গে চিনা (China) সেনার রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে সীমান্ত এলাকায়। ওই সংঘর্ষে এখনও পর্যন্ত ভারতীয় সেনা জওয়ানদের মধ্যে ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং আরও ৪ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। সব মিলিয়ে ভারত-চিন সীমান্তের উত্তেজনা এখন চরমে পৌঁছেছে।

যুদ্ধের প্রস্তুতি? গভীর রাতে লাদাখ পরিস্থিতি নিয়ে সেনাপ্রধান ও ৪ মন্ত্রীর সঙ্গে মোদির বৈঠক

এই পরিপ্রেক্ষিতেই রাজনাথ সিং টুইট করেন, "গালওয়ানে সেনার যে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা অত্যন্ত বেদনাদায়ক, এই ঘটনা বিচলিত করেছে। আমাদের সেনা জওয়ানরা নিজেদের দায়িত্ব পালনে অনুকরণীয় সাহস ও বীরত্ব প্রদর্শন করেছে এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর সর্বোচ্চ ঐতিহ্যকে বজায় রেখে নিজেদের জীবন উৎসর্গ করেছে।"

"জাতি তাঁদের বীরত্ব ও আত্মবলিদানকে কখনই ভুলতে পারবে না। নিহত সেনাদের পরিবারের প্রতি আমার গভীর সমবেদনা রয়েছে। এই কঠিন সময়ে জাতি তাঁদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দাঁড়িয়েছে। আমরা ভারতের এই অসম সাহসী জওয়ানদের জন্যে গর্বিত", একথাও লেখেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

বুধবার সকালে সেনাবাহিনীর একটি বিবৃতিতে প্রথমে একজন কর্নেল ও দুই ভারতীয় জওয়ানের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয় এবং "উভয় পক্ষেই বেশ কিছু সেনা হতাহত" হয়েছে একথা বলা হয়। পরে আবার নতুন এক বিবৃতিতে জানানো হয় যে, আশঙ্কাজনক আরও ১৭ জনেরও মৃত্যু হয়েছে।

"উনি কেন লুকোতে চাইছেন?": ভারত-চিন সমস্যায় প্রধানমন্ত্রীকে তোপ দাগলেন রাহুল গান্ধি

একটি ভারতীয় সেনা সূত্র এএফপিকে জানিয়েছে, এই ঘটনায় কোনও গুলি চালাচালি হয়নি। বরং সেনাদের মধ্যে হাতাহাতি ও মারামারিতেই ওই প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। দুই দেশের সেনাই একে অপরকে লক্ষ্য করে ঘুষি মারে ও পাথর ছোঁড়ে। সোমবার মধ্যরাত পর্যন্ত চলা ওই লড়াইয়ে চিনা সেনারা রড দিয়েও মারপিট করে বলে জানা গেছে।

এদিকে সংবাদসংস্থা এএনআই জানিয়েছে যে, ক্ষতি এড়াতে পারেনি চিনও। ওই সংঘর্ষে সেদেশে হতাহত কমপক্ষে ৪৩ জন জওয়ান। যদিও চিনের সেনা সূত্র থেকে এব্যাপারে কোনও নিশ্চিত বিবৃতি মেলেনি।

ভারতের তরফ থেকে এই সংঘর্ষের জন্যে চিনকেই দায়ী করা হয়েছে। ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের তরফে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়, "সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে যথেষ্ট দায়িত্বশীল আচরণই করে এসেছে ভারত ৷ ওই এলাকায় যে কার্যকলাপ করা হয়েছে, তার সবটাই ভারতীয় এলাকার মধ্যে করা হয়েছে ৷ চিনের থেকেও আমরা একইরকম ব্যবহারের আশা রাখি আমরা ৷ ভারত সীমান্তে শান্তি বজায় রাখা এবং যে কোনও সমস্যা আলোচনার মাধ্যমে সমাধানে বিশ্বাসী ৷ তবে একই সঙ্গে ভারতের সার্বভৌমত্ব এবং অখণ্ডতা বজায় রাখার বিষয়টিও নিশ্চিত করতে হবে"।

ওদিকে চিন আবার ভারতের এই দাবি খণ্ডন করে পাল্টা দাবি করেছে যে ভারতীয় সেনারাই নাকি সীমান্ত অতিক্রম করে ওই দেশের ভূখণ্ডে প্রবেশ করে।