This Article is From Dec 05, 2019

বিপদে পড়া মহিলাদের অভিযোগ জানানোর জন্য কল সেন্টার স্থাপনের উদ্যোগ রাজ্য সরকারের

একবার ফোন পেলে কল সেন্টারের আধিকারিকরা জেলাগুলিতে সংশ্লিষ্ট থানাকে সতর্ক করবেন... জেলা পুলিশ প্রশাসন তখন কর্তব্যরত নিকটস্থ পুলিশ কর্মকর্তাদের অবহিত করবেন।

বিপদে পড়া মহিলাদের অভিযোগ জানানোর জন্য কল সেন্টার স্থাপনের উদ্যোগ রাজ্য সরকারের

একবার ফোন পেলে কল সেন্টারের আধিকারিকরা জেলাগুলিতে সংশ্লিষ্ট থানাকে সতর্ক করবেন

কলকাতা:

জেলাগুলিতে মহিলাদের বিরুদ্ধে অপরাধ সম্পর্কিত অভিযোগ জানানোর জন্য একটি কল সেন্টার (call centre) স্থাপনের পরিকল্পনা করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। বৃহস্পতিবার এক কর্মকর্তা জানান, “একটি বিশেষ টোল-ফ্রি নম্বর (toll-free number) থাকবে। একবার ফোন পেলে কল সেন্টারের আধিকারিকরা জেলাগুলিতে সংশ্লিষ্ট থানাকে সতর্ক করবেন... জেলা পুলিশ প্রশাসন তখন কর্তব্যরত নিকটস্থ পুলিশ কর্মকর্তাদের অবহিত করবেন।” তিনি আরও জানান যে কেন্দ্র থেকে যে নির্ভয়া তহবিল রাজ্য পেয়েছিল তার তার প্রায় ৪০ শতাংশই এই কাজে ব্যবহৃত হবে।

ধর্ষিতার গায়ে আগুন লাগিয়ে মারার চেষ্টা, গ্রেফতার ৩

কলকাতা পুলিশ এবং এর আশেপাশের পুলিশ প্রশাসন ইতিমধ্যে মহিলাদের সুরক্ষার জন্য নানান সুরক্ষাব্যবস্থার পরিকল্পনা করেছে। কলকাতা পুলিশ বিভিন্ন স্থানে সিসিটিভি ক্যামেরা বসিয়েছে এবং মহিলাদের জন্য মোবাইল টয়লেটেরও পরিকল্পনা করা হয়েছে।

কলকাতা পুলিশের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, শহরকে মহিলাদের জন্য নিরাপদ ও আরামদায়ক করার লক্ষ্যেই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। মহানগরীর পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মার সভাপতিত্বে পুলিশের সদর দফতরে সম্প্রতি এক বৈঠকে কলকাতার মহিলাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

"কন্ডোম সঙ্গে রাখুন, সাহায্য করুন ধর্ষণে": মুখ খুলেই ধিক্কৃত চিত্র পরিচালক

অনুজ শর্মা ওই সভায় বলেন, “শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং শহরের ব্যস্ত চৌরাস্তাগুলির কাছে বিভিন্ন পয়েন্টে আরও সিসিটিভি স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের। আমরা বাজারের জায়গাগুলিতে মহিলাদের জন্য মোবাইল টয়লেট চালু করার পরিকল্পনাও করছি।”

কলকাতা পুলিশ মহিলাদের বিরুদ্ধে অনলাইনে অপরাধের তাড়াতাড়ি এবং উন্নত তদন্তের জন্য একটি নতুন সাইবার ক্রাইম তদন্ত পরীক্ষাগারেরও পরিকল্পনা করছে বলে জানিয়েছেন একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা। মহিলাদের সম্মান জানাতে পুরুষদেরও যে প্রকৃত শিক্ষার প্রয়োজন এই বিষয়টির গুরুত্ব তুলে ধরতেও পদক্ষেপ করছে কলকাতা পুলিশ।

কলকাতা পুলিশ ১০০, ১০৯০ এবং ১০৯১-এর মতো জরুরি নম্বরগুলিকেও আরও বেশি করে সামনে আনছে। কলকাতা পুলিশ মানুষদের আরও সংবেদনশীল করতে এবং মহিলাদের স্বাবলম্বী করতে “তেজস্বিনী” এবং “রেসপেক্ট উওম্যান”-এর মতো কর্মসূচিও চালু করেছে।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সম্প্রতি এক বৈঠকে সমস্ত থানাকে অবিলম্বে মহিলাদের প্রতি হিংসার অভিযোগ নথিভুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন। যারা এই জাতীয় মামলাগুলিতে অভিযোগ দায়ের করতে অস্বীকার করেন সেই সমস্ত পুলিশ কর্মীদের শাস্তি দেওয়ারও নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।