করোনা আবহেই বিধানসভা নির্বাচনের প্রস্তুতিতে ঘর গোছানো শুরু রাজ্য বিজেপির

West Bengal Assembly Polls: রাজ্য বিজেপি কমিটিতে এল বেশ কিছু নতুন মুখ, তৃণমূল থেকে গেরুয়া ঘরে আসা নেতাদেরও কমিটিতে স্থান, বাদ পড়লেন চন্দ্র বসু

করোনা আবহেই বিধানসভা নির্বাচনের প্রস্তুতিতে ঘর গোছানো শুরু রাজ্য বিজেপির

West Bengal BJP: রাজ্য বিজেপিতে ব্যাপক রদবদল করা হল

হাইলাইটস

  • রাজ্য বিজেপি কমিটিতে ব্যাপক রদবদল করলেন দিলীপ ঘোষ
  • তৃণমূল থেকে বিজেপিতে আসা বেশ কিছু নেতা জায়গা পেলেন কমিটিতে
  • তবে রাজ্য বিজেপি কমিটিতে স্থান হলো না শোভন চট্টোপাধ্যায়ের
কলকাতা:

২০২১ সালে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনকে (West Bengal Assembly Polls) পাখির চোখ করেই করোনা পরিস্থিতির মধ্য়েই রাজ্যের গেরুয়া শিবিরে (BJP) দেখা গেল তৎপরতা। বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের (Dilip Ghosh) নেতৃত্বে ঢেলে সাজানো হল রাজ্য (West Bengal) বিজেপি কমিটিকে। পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি ইউনিটে এক ডজনেরও বেশি নতুন মুখ যেমন জায়গা পেল, আবার তেমনই সিএএ আর এনআরসি নিয়ে দলের বিরুদ্ধে মুখ খুলে রাজ্য কমিটি থেকে বাইরে চলে যেতে হল নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর প্রপৌঢ় চন্দ্র বসুকে। বিজেপির যুব এবং মহিলা, এসসি এবং এসটি মোর্চা কমিটিতেও দেখা গেল বেশ কয়েকটি নতুন মুখ। দায়িত্ব পেলেন দলে অপেক্ষাকৃত অনেকটাই নতুন সৌমিত্র খাঁ, অগ্নিমিত্রা পল, দুলাল বর, খগেন মুর্মুরা। বিজেপির মহিলা মোর্চা দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন হুগলি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়, এবার তাঁকে সরিয়ে ওই পদে বসানো হলো বিখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার অগ্নিমিত্রা পলকে। পরিবর্তে লকেট চট্টোপাধ্যায়কে সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে একজন করা হয়েছে।

করোনা পরিস্থিতি পেরিয়ে ফের ঘুরে দাঁড়াবে ভারত, বৃদ্ধি হবেই, বললেন প্রধানমন্ত্রী

এদিকে বিজেপির রাজ্য কমিটির সহ-সভাপতি হলেন ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ তথা প্রাক্তন তৃণমূল নেতা অর্জুন সিং ও প্রাক্তন আইপিএস আধিকারিক ভারতী ঘোষ। রাজ্য সম্পাদকের পদে দায়িত্ব এলেন তৃণমূল থেকে বিজেপিতে আসা সব্যসাচী দত্ত।

করোনা সতর্কতা বজায় রেখে খুলে দেওয়া হল রাজ্যের মন্দির-মসজিদ-গির্জা

বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁকে যুব মোর্চার ইনচার্জ করা হয়েছে এবং মালদহের (উত্তর) সাংসদ খাগেন মুর্মুকে তফসিলি উপজাতি মোর্চার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

গত বছর কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে যোগ দেওয়া দুলাল বরকে দলের তফসিলি মোর্চার ইনচার্জ করা হয়েছে।

রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ, যিনি চলতি বছরের জানুয়ারিতে দ্বিতীয় মেয়াদে ওই পদে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন, তিনি বলেন যে নেতাদের "পারফরম্যান্স" এর উপর ভিত্তি করেই কমিটিতে রদবদল করা হয়েছে। "নেতা ও কর্মীদের পারফরম্যান্সকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। আগামী বছরের বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখেই এই নতুন কমিটি তৈরি করা হয়েছে", বলেন তিনি।

তবে গত বছর তৃণমূল কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে যোগ দেওয়া কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কেও কোনও দায়িত্বপূর্ণ পদ দেওয়া না হওয়ায় শুরু হয়েছে নতুন জল্পনা।

এর আগের লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের ৪২ টি আসনের মধ্যে ১৮ টিতে জিতে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে প্রাথমিক চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে বিজেপি। কেননা পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির উত্থানের ফলে তৃণমূলের আসন সংখ্যা ৩৪ থেকে কমে ২২ এ নেমে এসেছে। 

আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে এবার করোনা ভাইরাসের ফলে রাজ্যে তৈরি হওয়া পরিস্থিতি এবং ঘূর্ণিঝড় আমফানের মোকাবিলায় রাজ্য সরকারের ভূমিকা, মূলত এই জোড়া ফলার উপর নির্ভর করেই আক্রমণ শানাতে চায় পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি।