"এটা ভারতীয় সংস্কৃতি নয়": কেরলের হাতি মৃত্যুর ঘটনায় তদন্তের আশ্বাস দিয়ে বললেন মন্ত্রী

Kerala Elephant: পালাক্কড় জেলার সাইলেন্ট ভ্যালি জাতীয় উদ্যান থেকে গ্রামের খাবারের খোঁজে ঢুকে বাজিভর্তি আনারস খেয়ে ফেলে বুনো হস্তিনীটি, মৃত্যু হয় তার

Kerala Elephant: বুধবারই পালাক্কড়ের সাইলেন্ট ভ্যালি ন্যাশনাল পার্ক থেকে গ্রামে চলে আসে হাতিটি

হাইলাইটস

  • কেরলে বাজি ভর্তি আনারস খেয়ে মৃত্যু গর্ভবতী হস্তিনীর
  • মুখের মধ্যে বিস্ফোরণ হওয়ায় ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় যন্ত্রণায় কাতরাতে থাকে সে
  • ঘটনার তদন্ত হবে ও দোষীরা শাস্তি পাবেই, আশ্বাস মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকরের
নয়া দিল্লি:

কেরলে যেভাবে বাজি ভর্তি (Fire Cracker) আনারস খেয়ে একটি গর্ভবতী হস্তিনীর মৃত্যু (Kerala Elephant) হয়েছে তাতে শিউরে উঠেছে গোটা দেশ। অমানবিক এই ঘটনায় লজ্জায় মুখ ঢেকেছেন অনেকেই। কে বা কারা ওই আনারসের মধ্যে বিস্ফোরক ভরে রেখেছিল এবং তাঁদের উদ্দেশ্যই বা কী ছিল তা নিয়ে বিস্তারিত তদন্ত হবে বলে আশ্বাস দিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর। হাতি-মৃত্যুর বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার তদন্ত করবে, বৃহস্পতিবার একথাও জানালেন তিনি (Prakash Javadekar)। জানা গেছে, জঙ্গল থেকে বেরিয়ে খাবারের সন্ধানেই কাছের গ্রামে গিয়েছিল হস্তিনীটি। সেখানেই তাকে বাজি ভর্তি আনারস খেতে দেওয়া হয়। ওই ফলটিই তার মুখের মধ্যে ফেটে যায় এবং তীব্র যন্ত্রণায় বেশ কয়েকদিন ধরে গ্রামেই ঘুরে বেড়াতে থাকে সে। ক্ষতবিক্ষত মুখে কিছু খেতেও পারেনি বেচারি। অবশেষে একটি নদীতে শরীর ডুবিয়ে প্রবল যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে চেয়েছিল সে, কিন্তু পারেনি। সেখানেই মারা যায় গর্ভবতী হস্তিনীটি। গোটা ঘটনাটিই ভারতীয় সংস্কৃতির সঙ্গে মেলে না, ক্ষুব্ধ হয়ে একথাই বলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী।

বাজিভরা আনারস খেয়ে মৃত গর্ভবতী হাতির মৃত্যুতে উত্তাল দেশ; মানুষ হিসেবে লজ্জিত নেটিজেনরা

প্রকাশ জাভড়েকর বলেছেন, সরকার হাতির হত্যার ওই ঘটনাটিকে "গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে"। মন্ত্রী টুইটে লেখেন, "আমরা ঘটনার যথাযথ তদন্ত করতে এবং অপরাধীকে গ্রেফতার করতে কোনও প্রচেষ্টাই বাকি রাখবো না"।

নিজের টুইটে জাভড়েকর জানান যে, বিস্ফোরক ভর্তি আনারস খাওয়ার ঘটনাটি মল্লাপুরমে ঘটেছিল, কিন্তু কেরলের পালক্কড় জেলায় গিয়ে শেষপর্যন্ত হাতিটি মারা যায়। ঘটনাটি ঘটে ২৭ মে, তবে সম্প্রতি সেটি প্রকাশ্যে আসে।

দ্বিতীয় হাতির মৃত্যু কেরলে! একইভাবে বাজিভর্তি ফল খাওয়ানোর সন্দেহ এক্ষেত্রেও

এই ভয়ঙ্কর ঘটনাটি সোশ্যাল মিডিয়ায় বিক্ষোভের জন্ম দিয়েছে। অসংখ্য মানুষ দোষীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। টুইটারে এক অবলা পশুর বিরুদ্ধে এমন নিষ্ঠুর জঘন্য কাজের প্রতিবাদে একের পর এক স্কেচ এবং ছবি শেয়ার করেছেন মানুষ। নিন্দায় সরব হয়েছেন সেলিব্রেটিরাও।

কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বুধবার বলেন যে হাতিটির মৃত্যুর জন্য যাঁরা দায়ী, তাঁদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন, "বন বিভাগ মামলাটির তদন্ত করছে এবং অপরাধীদের গ্রেফতার করা হবে।"

আপাতত অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত ওই অমানবিক ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি।