মুম্বই থেকে ফেরার পরেই দেহে করোনার লক্ষণ উত্তরপ্রদেশের যুবকের, গোপন করায় মৃত্যু

গোটা দেশে COVID-19 পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ১,২০০ ছাড়িয়েছে, করোনার শিকার হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৩৫ জন

মুম্বই থেকে ফেরার পরেই দেহে করোনার লক্ষণ উত্তরপ্রদেশের যুবকের, গোপন করায় মৃত্যু

Uttar Pradesh: করোনা ভাইরাসের আক্রমণে ২৫ বছরের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে

হাইলাইটস

  • উত্তরপ্রদেশে করোনা আক্রান্ত প্রথম রোগীর মৃত্যু
  • গোটা দেশে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১,২০০ ছাড়িয়েছে, মৃত ৩৫
  • যোগীর রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ১০৩ জন রোগী, সর্বাধিক আক্রান্ত নয়ডা জেলায়
গোরখপুর:

করোনা সংক্রমণ যোগীর রাজ্যে (Coronavirus) ছড়ালেও এখনও পর্যন্ত সে রাজ্যে একজনেরও মৃত্যু না হয় আপাত স্বস্তিতে ছিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু তাঁর উদ্বেগ বাড়িয়ে উত্তরপ্রদেশেও এক করোনা আক্রান্তের মৃত্যু হল। জানা গেছে, বেশ কিছুদিন ধরেই শরীরে করোনা সংক্রমণের (COVID-19) লক্ষণ নিয়ে গোরখপুরের (Uttar Pradesh) বিআরডি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন বছর পঁচিশের এক যুবক। চিকিৎসকদের সব প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে এবার মৃত্যু হল তাঁর। তবে আরও উদ্বেগের কথা এই যে ওই যুবক তাঁর বিদেশ ভ্রমণের কথা লুকিয়ে গেছিলেন। ফলে মনে করা হচ্ছে, ইতিমধ্যেই ওই যুবকের শরীরে থেকে ওই মারণ ভাইরাস ছড়িয়েছে তাঁর আত্মীয় ও আশেপাশের মানুষজনের মধ্যেও। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, ওই নিহত যুবকের সংস্পর্শে আসা আত্মীয় পরিজন সহ অন্যান্যদের শনাক্ত করা হয়েছে এবং তাঁদের কোয়ারান্টাইন করে রাখা হয়েছে। এছাড়াও গোরখপুরের জেলা হাসপাতাল ও বিআরডি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ও কর্মী, যাঁরা ওই যুবকের চিকিৎসার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিলেন তাঁদেরও চিহ্নিত করে কোয়ারান্টাইনে রাখা হয়েছে। 

করোনা আক্রান্ত তাবলিগ-ই-জামাতের সদস্যের থেকে সতর্ক থাকুন, রাজ্যগুলোকে বার্তা কেন্দ্রের

জানা গেছে, করোনা আক্রান্ত হয়ে যে ষুবকের মৃত্যু হয়েছে তিনি প্রথমে শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে এলাকার বাস্তি জেলা হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানকার চিকিৎসকরা জানিয়েছেন যে ২৮ মার্চ ওই রোগী তাঁর পরিবারের লোকেদের নিয়ে হাসপাতালে আসেন এবং শ্বাসকষ্টের কথা জানান। বাস্তি জেলা হাসপাতালের ইনচার্জ ও.পি. সিং সাংবাদিকদের বলেন, "রোগী তাঁর বিদেশ ভ্রমণের ইতিহাস গোপন করে গেছিলেন, তাঁর আত্মীয়রাও সেই কথা জানাননি। তাঁকে যখন এই হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তখন তাঁর জ্বরও ছিল না। এই জন্যে আমরা তাঁকে স্বাভাবিক ওপিডিতেই চিকিৎসা করেছি। পরে, তাঁকে জেনারেল ওয়ার্ডেও ভর্তি করা হয়েছিল। রোগী বা তাঁর পরিবার যদি একবার বলতেন যে ওই যুবক সম্প্রতি মুম্বই থেকে বাড়ি ফিরেছেন, তবে আমরা তাঁকে তক্ষুণি করোনা ভাইরাসের চিকিৎসার জন্যে রাখা বিশেষ ওয়ার্ডে পাঠাতাম"।

দিল্লির চিকিৎসক আক্রান্ত করোনা ভাইরাসে, সংক্রমণের ভয়ে বন্ধ হাসপাতাল

পরে ওই যুবকের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে গত রবিবার গোরখপুরের মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেও তাঁকে প্রথমে করোনার ওয়ার্ডের পরিবর্তে জেনারেল ওয়ার্ডেই ভর্তি করা হয়েছিল। পরে ওই রোগী মারা যান। পরে কান্নায় ভেঙে পড়ে যুবকের পরিজনরা জানান যে কিছুদিন আগেই মুম্বই থেকে বাড়ি ফিরেছিলেন ওই যুবক। তারপরেই তাঁর শরীরে করোনার লক্ষণ দেখা যায়, কিন্তু চিকিৎসকদের কাছে গোটা বিষয়টি লুকিয়ে গেছিলেন রোগী ও তাঁর পরিবার। 

উত্তরপ্রদেশ সরকারের তথ্য অনুসারে, সে রাজ্যে এখনও পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ১০৩ জন। এর মধ্যে নয়ডা জেলায় সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মোট ৩৯ জন আক্রান্ত ওই মারণ ভাইরাসে।