This Article is From Jan 29, 2020

European Union: সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে আজ বিতর্ক, বৃহস্পতিবার ভোটের সম্ভাবনা

CAA: সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনকে "বৈষম্যমূলক ও বিপজ্জনকভাবে বিভেদমূলক" বলে প্রস্তাব পেশ হয় ইউরোপীয় ইউনিয়নের সংসদে, যদিও বিষয়টি "অভ্য়ন্তরীণ". জানিয়েছে ভারত

European Union: সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে আজ বিতর্ক, বৃহস্পতিবার ভোটের সম্ভাবনা

Citizenship Amendment Act: ভারতের নাগরিকত্ব আইন নিয়ে ইউরোপীয় সংসদে জোর বিতর্ক

হাইলাইটস

  • সিএএ নিয়ে সরগরম ইউরোপীয় ইউনিয়ন
  • ইউরোপীয় সংসদে বুধবার দিনভর নাগরিকত্ব আইন নিয়ে তর্ক-বিতর্ক চলবে
  • বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে ভোটাভুটির সম্ভাবনা রয়েছে
নয়া দিল্লি:

ভারতের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (CAA) নিয়ে তর্ক-বিতর্কে বুধবার সরগরম হতে পারে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সংসদ। এর আগে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ৭৫১ জন সদস্যের মধ্যে ৫৬০ জন সাংসদ সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (Citizenship Amendment Act) এবং জম্মু ও কাশ্মীর প্রসঙ্গে ৬টি বিরোধী প্রস্তাব পেশ করেন। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনকে "বৈষম্যমূলক ও বিপজ্জনকভাবে বিভেদমূলক" বলে প্রস্তাব পেশ হয় ইউরোপীয় ইউনিয়নের সংসদে, সেই বিষয়েই বুধবার দিনভর তর্ক-বিতর্কের পর বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে ভোটাভুটির সম্ভাবনা। সিএএ প্রসঙ্গে ইইউ-পার্লামেন্টের বহু সাংসদ উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, "যে পন্থা অবলম্বন করে ভারত সরকার সিএএ লাগু করেছে, তা গোটা বিশ্বে বৃহত্তরভাবে রাষ্ট্রহীনতার আশঙ্কা তৈরি করবে। যার কারণে বাড়বে মানুষের দুর্ভোগ।"

ইইউ ভারত সরকারের উদ্দেশে বলেছে, জাতি-বর্ণ-ধর্ম নির্বিশেষে সব নাগরিকের অধিকার রক্ষায় আন্তর্জাতিক আইন রয়েছে। সেই আইনের কথা যেন ভারত মাথায় রাখে। ইইউ ‘সিএএ'-এর বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে আলোচনায় বসা এবং এ ব্যাপারে তাঁদের দাবি শোনার জন্যেও ভারত সরকারকে আবেদন জানাতে চলেছে বলে খবর।  

ইউরোপীয় ইউনিয়নের সংসদে যে প্রস্তাব পেশ হয়েছে তাতে বলা হয়েছে, সিএএ'র মাধ্যমে ভারতীয় সংবিধানের ১৪ অনুচ্ছেদ লঙ্ঘন করা হয়েছে। এছাড়া সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ভারতের আন্তর্জাতিক বাধ্যবাধকতা ও চুক্তি লঙ্ঘন করে যার অধীনে জাতি, বর্ণ, বংশোদ্ভূত বা জাতীয় বা জাতিগত উৎসের ভিত্তিতে বৈষম্য করা যায় না বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

"পুরোপুরি অভ্যন্তরীণ", ইউরোপীয় ইউনিয়নের CAA বিরোধী প্রস্তাবে বলল ভারত

ওই প্রস্তাবে আরও বলা হয়, "সিএএ-র বিরোধিতায় ভারত জুড়ে, বিশেষত বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসগুলিতে যে প্রতিবাদ আন্দোলন শুরু হয়েছে তা দমাতে নৃশংসভাবে পদক্ষেপ করছে দেশের পুলিশ তথা নিরাপত্তা বাহিনী"।

পাশাপাশি কাশ্মীরের উপর জারি রাজনৈতিক অবরুদ্ধকরণ এবং ইন্টারনেট নিয়ে বিধিনিষেধ জারির পাশাপাশি যেভাবে ৫ অগাস্ট রাতারাতি কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদাকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে তারও নিন্দা করা হয়।

যদিও ভারতের তরফ থেকে ইউরোপীয় সংসদের এই উদ্বেগ খারিজ করে দিয়ে বলা হয়েছে সব রকম নিয়ম মেনেই সিএএ লাগু হয়েছে দেশে। তাছাড়াও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন লাগুর বিষয়টিকে "সম্পূর্ণরূপে ভারতের অভ্যন্তরীণ" বিষয় বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। ভারতীয় সংসদের উভয় কক্ষে "যথাযথ প্রক্রিয়া অবলম্বন করে এবং পুরোপুরি গণতান্ত্রিক উপায়ে" সিএএ গৃহীত হয়েছে বলে স্পষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এমনকি সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের পক্ষে সওয়াল করেএবার ইউরোপীয় ইউনিয়নকে চিঠি লেখেন লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লাও। ইইউ সংসদের সভাপতিকে সম্বোধন করে ওই চিঠিতে লেখা হয়েছে, "এই আইনটিতে আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলিতে যারা ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হয়েছে তাদের সহজ উপায়ে নাগরিকত্ব দানের বিধান রয়েছে। এটি কারও কাছ থেকে নাগরিকত্ব ছিনিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে আনা হয়নি।"

CAA-বিরোধী প্রস্তাবকে "অনুপযুক্ত" বলে ইউরোপীয় ইউনিয়নকে লিখলেন লোকসভার স্পিকার

আগামী মার্চ মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মার্চ ভারত-ইইউ শীর্ষ সম্মেলনের জন্য ব্রাসেলস সফরে যাবেন। তার আগেই সিএএ নিয়ে তোলপাড় শুরু হল ইউরোপীয় সংসদে। বৃহস্পতিবার এ নিয়ে ভোটাভুটিও হবে বলে খবর মিলেছে। ফলে সব মিলিয়ে পরিস্থিতি বেশ ঘোরালো।