সম্পর্কের ক্ষেত্রে পদবী কোনও প্রভাব ফেলে না, বললেন Mamata Banerjee

West Bengal: নিজের গাড়ির চালকের পদবী জানেন না, এমনকি তাঁর প্রশাসনে যাঁরা কাজ করেন তাঁদের পদবী নিয়েও মাথা ঘামান না তিনি, সাফ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী

সম্পর্কের ক্ষেত্রে পদবী কোনও প্রভাব ফেলে না, বললেন Mamata Banerjee

আমি জানি যে অভিষেকের স্ত্রী পাঞ্জাবি, কিন্তু ওঁর পদবী নিয়ে কোনও দিন মাথা ঘামাইনি, বললেন Mamata Banerjee

হাইলাইটস

  • পদবী সম্পর্কের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলে না, সাফ জানালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
  • দেশের মানুষের মধ্যে ভেদাভেদ সৃষ্টির চেষ্টা করছে বিজেপি, বলেন তিনি
  • সিএএ, এনআরসি, এনপিআরের বিরুদ্ধে জোর সওয়াল তৃণমূল নেত্রীর
কলকাতা:

মানুষের সঙ্গে মানুষের সম্পর্কে পদবী কোনও ভূমিকা রাখে না, এমনটাই মনে করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনকি নিজের ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Abhishek Banerjee) স্ত্রীর পদবীও জানেন না বলে দাবি করলেন তিনি। আরও উদাহরণ দিতে গিয়ে মমতা বলেন, নিজের গাড়ির চালকের পদবীও জানেন না তিনি, এমনকি তাঁর প্রশাসনে যাঁরা কাজ করেন তাঁদের কার কি পদবী তাও কোনওদিন জানতে চাননি মুখ্যমন্ত্রী (Mamata Banerjee)। "আমি জানি যে অভিষেকের স্ত্রী একজন পাঞ্জাবী মেয়ে, তবে আমি ওঁর পদবী নিয়ে মাথা ঘামাইনি। মানুষের সঙ্গে মানুষের সম্পর্কের ক্ষেত্রে পদবী কোনও ভূমিকা রাখে না", সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (CAA), এনআরসি এবং এনপিআরের বিরুদ্ধে একটি বিক্ষোভ অনুষ্ঠানের মঞ্চ থেকে এই কথাই বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

মুখ্যমন্ত্রীর কাছের মানুষ তাঁর ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় হলেন ডায়মন্ড হারবারের তৃণমূল সাংসদ। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন সহ এনআরসি ও এনপিআরের বিরুদ্ধে কথা বলতে গিয়ে জাত-ধর্ম-পদবী ইত্যাদি বিষয় উঠে আসে তৃণমূল নেত্রীর কথায়। তখনই নিজের পরিবারের উদাহরণ তুলে ধরেন মমতা।

"ওরা চাইলে আমার সরকার ফেলে দিয়ে দেখাক",NPR নিয়ে বৈঠকে থাকছেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

ঠিক যে রকম অ্যাকোরিয়ামে বা সমুদ্রে একসঙ্গে বিভিন্ন ধরণের মাছ বাস করে, ঠিক তেমনি একটি সমাজে জাতি,বর্ণ ও ধর্ম নির্বিশেষে বিভিন্ন ধরণের মানুষ একত্রিত হন।

"আমি খুবই কষ্ট পাই যখন দেখি যে আমরা একসঙ্গে একসূত্রে বেঁধে থাকার বদলে ভেদাভেদের পথে চলেছি, মানুষের মধ্যে এই ধরণের ভেদাভেদ তৈরির চেষ্টা করা হচ্ছে", বলেন তৃণমূল নেত্রী।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির বিরুদ্ধে দেশ জুড়ে বিক্ষোভ চলছে। কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গে সেই বিক্ষোভের নেতৃত্বে দেখা গেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তিনি বেঁচে থাকতে এ রাজ্যে নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি কোনওটাই প্রয়োগ করতে দেবেন না বলেও ঘোষণা করেছেন তৃণমূল নেত্রী।

রাজভবনে প্রধানমন্ত্রী- মুখ্যমন্ত্রী বৈঠক, সিএএ-এনআরসি ভেবে দেখার পরামর্শ মমতার

দেশের মানুষের মধ্যে ভেদাভেদ সৃষ্টি করতেই সিএএ, এনআরসি প্রয়োগের পথে হাঁটছে কেন্দ্রীয় সরকার, এমনটাও অভিযোগ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ভারতে এই প্রথমবার নাগরিকত্ব আইনে ধর্মকে নাগরিক হওয়ার মাপকাঠি করা হয়েছে। সরকারের দাবি, এই আইনের ফলে, ২০১৫ এর আগে, ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হয়ে ভারতে চলে আসা তিন মুসলিম অধ্যুষিত দেশের সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব দেওয়ার পথ সহজ হবে । কিন্তু সমালোচকদের দাবি, এই আইনটি মুসলিমদের বিরুদ্ধে বিভাজনমূলক এবং তা সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষতাকে লঙ্ঘন করে।

Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com