Rti


'Rti' - 13 News Result(s)

  • ঋণখেলাপিদের তালিকা নিয়ে রাহুল গান্ধির কটাক্ষের জবাবে ১৩ টি টুইট নির্মলা সীতারামনের

    ঋণখেলাপিদের তালিকা নিয়ে রাহুল গান্ধির কটাক্ষের জবাবে ১৩ টি টুইট নির্মলা সীতারামনের

    দেশের ইচ্ছাকৃতভাবে ঋণখেলাপিদের (Wilful Defaulters) নাম নিয়ে যে তালিকা প্রকাশ করেছে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (RBI), মঙ্গলবার সেটিকে হাতিয়ার করেই বিজেপি তথা নরেন্দ্র মোদি সরকারকে তীব্র আক্রমণ করেন রাহুল গান্ধি। এবার কংগ্রেস সাংসদের (Rahul Gandhi) আক্রমণের জবাব দিতে মোট ১৩টি টুইট বাণ ছুঁড়লেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। "নির্লজ্জভাবে মানুষকে বিভ্রান্ত করার" চেষ্টা করছেন রাহুল গান্ধি, জবাবে এমনটাই বললেন তিনি (Nirmala Sitharaman)।

  • আরবিআইয়ের খেলাপিদের তালিকার শীর্ষে মেহুল চোক্সি, বকেয়া ৭০,০০০ কোটি

    আরবিআইয়ের খেলাপিদের তালিকার শীর্ষে মেহুল চোক্সি, বকেয়া ৭০,০০০ কোটি

    দেশের ব্যাঙ্কগুলিতে সবচেয়ে বেশি অঙ্কের ঋণ খেলাপি রয়েছে যে সংস্থাগুলির, সেই রকম ৫০ জনের নামের তালিকা প্রকাশ করেছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া (Reserve Bank of India), তালিকায় রয়েছেন ব্যবসায়ী মেহুল চোক্সি (Mehul Choksi), ঝুনঝুনওয়ালা ব্রাদার্স, এবং বিজয় মালিয়া।

  • Tukde-Tukde Gang: "এই সংক্রান্ত কোনও তথ্য নেই": আরটিআইয়ের জবাবে বলল কেন্দ্রীয় সরকার

    Tukde-Tukde Gang: "এই সংক্রান্ত কোনও তথ্য নেই": আরটিআইয়ের জবাবে বলল কেন্দ্রীয় সরকার

    তথ্য জানার অধিকার আইনে "টুকরে-টুকরে গ্যাং" নিয়ে কোনও তথ্যই দিতে পারল না কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। তাঁরা (Home Ministry) সম্প্রতি এক সমাজকর্মীর আরটিআইয়ের মাধ্যমে করা এক প্রশ্নের উত্তরে জানিয়েছে যে ওই ধরণের (Tukde-Tukde Gang) কিছু সম্পর্কে কোনও খবর তাঁদের কাছে নেই। অথচ সবচেয়ে আশ্চর্যের কথা, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah) গত কয়েক বছরে একাধিকবার এই শব্দটি ব্যবহার করেছেন। গত মাসে "টুকরে-টুকরে গ্যাং" সম্পর্কিত তথ্য জানতে চেয়ে আরটিআই করেন সংকেত গোখলে নামে এক ব্যক্তি, তারই জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক কী জানিয়েছে তাও টুইটে দিয়ে দেন তিনি (RTI Activist Sanket Gokhale)।

  • অসমে NRC-র পরে বিদেশি সাংবাদিকদের উপর জারি সরকারের নিষেধাজ্ঞা: RTI

    অসমে NRC-র পরে বিদেশি সাংবাদিকদের উপর জারি সরকারের নিষেধাজ্ঞা: RTI

    Restriction On Journalists: গত সেপ্টেম্বরে, বিদেশ মন্ত্রকের একটি বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল যে জম্মু ও কাশ্মীর বা উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলি সহ সীমাবদ্ধ বা সুরক্ষিত অঞ্চলগুলিতে যেতে চাইছেন এমন বিদেশি সাংবাদিকদের একটি বিশেষ অনুমতির জন্য আবেদন করতে হবে। পরে, মন্ত্রক স্পষ্ট করে জানিয়েছে যে এটি সকল বিদেশি সাংবাদিকদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য, সে তারা ভারতেই থাকুন বা বাইরে।

  • তথ্য জানার অধিকার আইনে প্রধানবিচারপতির দফতর: ১০টি তথ্য

    তথ্য জানার অধিকার আইনে প্রধানবিচারপতির দফতর: ১০টি তথ্য

    ভারতের প্রধানবিচারপতি সরকারি প্রতিনিধি, এবং তথ্য জানার অধিকার আইনের আওতায় পড়ে, বুধবার ঐতিহাসিক রায়ে জানাল সু্প্রিম কোর্ট, পাশাপাশিজোর দিয়ে জানাল, “একটি সাংবিধানিক গণতন্ত্রে, বিচারপতিরা আইনের ঊর্দ্ধে থাকতে পারেন না”।২০১০ দিল্লি হাইকোর্টের রায়কে পুনর্বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ, সেই বেঞ্চের সদস্য ছিলেন প্রধানবিচারতিও। সুপ্রিম কোর্টের কেন্দ্রীয় তথ্য কমিশন অধিকারিক এবং সেক্রেটারি জেনারেলের আবেদন খারিজ করে দেন তিনি।

  • তথ্য জানার অধিকার আইনের পরিবর্তন করায় সরকারকে আক্রমণ সনিয়া গান্ধির

    তথ্য জানার অধিকার আইনের পরিবর্তন করায় সরকারকে আক্রমণ সনিয়া গান্ধির

    তথ্য জানার অধিকার আইনকে ক্রমেই দুর্বল করে দিতে চাইছে বিজেপি সরকার। এইভাবেই সরকারকে আক্রমণ করলেন কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গান্ধি। তাঁর দাবি, নরেন্দ্র মোদি সরকার আইনকে তাদের প্রধান অ্যাজেন্ডাগুলিকে চাপিয়ে দেওয়ার পথে এক অন্তরায় হিসেবে দেখছে। নতুন তথ্য জানার আইনে তথ্য কমিশনারদের মেয়াদ পাঁচ বছর থেকে তিন বছর করে দেওয়া হয়েছে। এর সপ্তাহখানেক পরেই মোদি সরকারকে আক্রমণ করলেন কংগ্রেস নেত্রী। অধিকার কর্মীরা জানিয়েছেন, এই পদক্ষেপ তথ্য কমিশনারদের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে অবমাননা।

  • বিরোধীদের প্রতিবাদের মধ্যেই রাজ্যসভায় পাশ আরটিআই আইন সংশোধনী বিল

    বিরোধীদের প্রতিবাদের মধ্যেই রাজ্যসভায় পাশ আরটিআই আইন সংশোধনী বিল

    বিরোধীদের আপত্তি সত্ত্বেও রাজ্যসভায় পাশ হয়ে গেল তথ্য জানার অধিকার আইন সংশোধনী বিল। বিজু জনতা দলের সমর্থন চেয়ে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েকের সঙ্গে কথা বলেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভোটের আগেই ওয়াকআউট করে কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার আরটিআই আইন নিয়ে সংসদে ব্যাপক হট্টগোল হয়। বিলটিকে সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোর দাবি জানায় বিরোধীরা। সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় সোমবার বিলটি লোকসভায় পাশ করিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন বলেন, “সংসদকে খতিয়ে দেখতে হবে। এটি স্ক্রুটিনির প্রয়োজন। এটা কোনও টি-২০ ম্যাচ নয়”। “বিলটি দোসা তৈরি করা নয়” বলে কটাক্ষ করেন রাজ্যসভার আরেকজন সাংসদ।

  • তথ্য জানার অধিকার আইন নিয়ে রাজ্যসভায় চাপে সরকার

    তথ্য জানার অধিকার আইন নিয়ে রাজ্যসভায় চাপে সরকার

    কথা থাকলেও বুধবার রাজ্যসভায় পেশ করা হলনা তথ্য জানার অধিকার আইন (RTI Act)। বিলটির পাশ হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে আরও খতিয়ে দেখতে চায় সরকার। সরকারকে ইস্যু ভিত্তিক সমর্থন জানিয়েছে তেলেঙ্গানা রাষ্ট্রসমিতি এবং বিজু জনতা দল, তবে তথ্য জানার অধিকার আইনের ক্ষেত্রে তারা বিরোধীদের সঙ্গ দেবে বলে জানিয়ে দিয়েছে। সোমবার বিলটি (RTI Act) পাশ হয়ে গিয়েছে লোকসভায়, বিরোধীদের অভিযোগ, নতুন সংশোধনী কার্যকরা করা হলে, তথ্য জানার অধিকার আইন লঘু হয়ে পড়বে।

  • “কোনও বিবেচনা না করেই” সংসদে আরটিআই বিল পাস করছে কেন্দ্র, বললেন ডেরেক ও”ব্রায়েন

    “কোনও বিবেচনা না করেই” সংসদে আরটিআই বিল পাস করছে কেন্দ্র, বললেন ডেরেক ও”ব্রায়েন

    বুধবার তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও”ব্রায়েন বলেন, সংসদে একের পর এক বিল পাস করাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার, অথচ বিল পাসের আগে সেটির কোনও রকম স্ক্রুটিনি করছে না তাঁরা। বিরোধীরা এসব দেখে শুনে চুপ করে থাকবে না বলেও হুমকি দেন তিনি।

  • “তথ্য জানার অধিকার আইনকে গুরুত্বহীন করে দিল কেন্দ্র”, বললেন সনিয়া গান্ধি

    “তথ্য জানার অধিকার আইনকে গুরুত্বহীন করে দিল কেন্দ্র”, বললেন সনিয়া গান্ধি

    বিরোধীদের আপত্তিতে আমল না দিয়েই সোমবার লোকসভায় পাশ হয় “তথ্য জানার অধিকার আইনের সংশোধনী বিল”। তার একদিন পর কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধি ওই আইন সংশোধন প্রসঙ্গে মুখ খুললেন। তিনি অভিযোগ করেন যে লোকসভায় ওই বিতর্কিত সংশোধনী বিল পাশের মাধ্যমে কেন্দ্র আসলে  “ঐতিহাসিক তথ্য জানার অধিকার আইন বিলোপ” করার চেষ্টা করছে। ওই “তথ্য জানার অধিকার আইনকে একেবারে গুরুত্বহীন করে দিল কেন্দ্র”, বলেন সনিয়া গান্ধি।

  • তথ্য জানার অধিকার আইন পাশ, স্বচ্ছতা আইন লঘু হয়ে যাবে, মত বিরোধীদের

    তথ্য জানার অধিকার আইন পাশ, স্বচ্ছতা আইন লঘু হয়ে যাবে, মত বিরোধীদের

    বিরোধীদের আপত্তি সত্ত্বেও লোকসভায় পাশ হয়ে গেল তথ্য জানার অধিকার আইন সংশোধনী বিল। এই আইনকে লঘু করে দেওয়া হবে বলে অভিযোগ তুলে আপত্তি জানায় বিরোধীরা। বিলটিকে “আরটিআই ধংসাত্মক বিল” বলে মন্তব্য করেছে তারা। এই বিলটিকে নিয়ে আরও চিন্তাভাবনার জন্য সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোরও দাবি তুলেছে বিরোধীবেঞ্চ। তবে রাজ্যসভায় বিলটি সমর্থন পাবে বলে আশা করা হচ্ছে। সেখানে সরকার সংখ্যালঘু। প্রস্তাবিত সংশোধনীর মধ্যে রয়েছে রাজ্য ও কেন্দ্রের তথ্য কমিশনারের বেতন ও মেয়াদ। বর্তমানে তথ্য কমিশনারের কাজের মেয়াদ পাঁচ বছর....তবে “কেন্দ্রীয় সরকারের মতানুযায়ী মেয়াদকাল” হতে পারে। তাঁদের বেতনও নির্ধারণ করবে কেন্দ্রীয় সরকার। তথ্য কমিশনারের বেতন নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকদের সমান।

  • দেবেন্দ্র ফড়নবিশের বাংলো, ১৮ জন মন্ত্রীর লক্ষাধিক টাকার জলের বিল বাকি

    দেবেন্দ্র ফড়নবিশের বাংলো, ১৮ জন মন্ত্রীর লক্ষাধিক টাকার জলের বিল বাকি

    সম্প্রতি এ বিষয়টি তথ্য জানার অধিকার(RTI) আইনের মাধ্যমে এ বিষয়ে জানতে চান সমাজকর্মী শাকিল আহমেদ। ওই আরটিআইয়েই জানা যায় বিল না মেটানোর তালিকায় রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ফড়নবিশের মন্ত্রিসভার দুই সদস্য অর্থমন্ত্রী সুধীর মুনগানতিওয়ার এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী একনাথ শিণ্ডেও। ওই দুই মন্ত্রীর বাড়িতেই ৩টি করে জলের লাইন রয়েছে এবং সেই জলের লাইনের(Water Bills) গত বছরের সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবর মাসের বকেয়া বিলের পরিমাণ ৩ লক্ষ ৭৩ হাজার ৮২৯ টাকা।শুধু ওই দুজনই নন, বকেয়া বিল না মেটানোর তালিকায় মহারাষ্ট্র মন্ত্রিসভার মোট ১৮ জন মন্ত্রীর নাম রয়েছে, তবে মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশের(Devendra Fadnavis)  নাম ওই তালিকায় নেই বলে জানা গেছে।

  • বিরোধিতার মধ্য দিয়েই সংসদে পাস হতে চলেছে তথ্যের অধিকার আইনের নতুন বিল

    বিরোধিতার মধ্য দিয়েই সংসদে পাস হতে চলেছে তথ্যের অধিকার আইনের নতুন বিল

    এই নতুন প্রস্তাবিত বিলের বিরোধিতা করে দিল্লি সহ গোটা দেশেই প্রবল প্রতিবাদী জমায়েত হয়েছে

'Rti' - 13 News Result(s)

  • ঋণখেলাপিদের তালিকা নিয়ে রাহুল গান্ধির কটাক্ষের জবাবে ১৩ টি টুইট নির্মলা সীতারামনের

    ঋণখেলাপিদের তালিকা নিয়ে রাহুল গান্ধির কটাক্ষের জবাবে ১৩ টি টুইট নির্মলা সীতারামনের

    দেশের ইচ্ছাকৃতভাবে ঋণখেলাপিদের (Wilful Defaulters) নাম নিয়ে যে তালিকা প্রকাশ করেছে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (RBI), মঙ্গলবার সেটিকে হাতিয়ার করেই বিজেপি তথা নরেন্দ্র মোদি সরকারকে তীব্র আক্রমণ করেন রাহুল গান্ধি। এবার কংগ্রেস সাংসদের (Rahul Gandhi) আক্রমণের জবাব দিতে মোট ১৩টি টুইট বাণ ছুঁড়লেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। "নির্লজ্জভাবে মানুষকে বিভ্রান্ত করার" চেষ্টা করছেন রাহুল গান্ধি, জবাবে এমনটাই বললেন তিনি (Nirmala Sitharaman)।

  • আরবিআইয়ের খেলাপিদের তালিকার শীর্ষে মেহুল চোক্সি, বকেয়া ৭০,০০০ কোটি

    আরবিআইয়ের খেলাপিদের তালিকার শীর্ষে মেহুল চোক্সি, বকেয়া ৭০,০০০ কোটি

    দেশের ব্যাঙ্কগুলিতে সবচেয়ে বেশি অঙ্কের ঋণ খেলাপি রয়েছে যে সংস্থাগুলির, সেই রকম ৫০ জনের নামের তালিকা প্রকাশ করেছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া (Reserve Bank of India), তালিকায় রয়েছেন ব্যবসায়ী মেহুল চোক্সি (Mehul Choksi), ঝুনঝুনওয়ালা ব্রাদার্স, এবং বিজয় মালিয়া।

  • Tukde-Tukde Gang: "এই সংক্রান্ত কোনও তথ্য নেই": আরটিআইয়ের জবাবে বলল কেন্দ্রীয় সরকার

    Tukde-Tukde Gang: "এই সংক্রান্ত কোনও তথ্য নেই": আরটিআইয়ের জবাবে বলল কেন্দ্রীয় সরকার

    তথ্য জানার অধিকার আইনে "টুকরে-টুকরে গ্যাং" নিয়ে কোনও তথ্যই দিতে পারল না কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। তাঁরা (Home Ministry) সম্প্রতি এক সমাজকর্মীর আরটিআইয়ের মাধ্যমে করা এক প্রশ্নের উত্তরে জানিয়েছে যে ওই ধরণের (Tukde-Tukde Gang) কিছু সম্পর্কে কোনও খবর তাঁদের কাছে নেই। অথচ সবচেয়ে আশ্চর্যের কথা, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah) গত কয়েক বছরে একাধিকবার এই শব্দটি ব্যবহার করেছেন। গত মাসে "টুকরে-টুকরে গ্যাং" সম্পর্কিত তথ্য জানতে চেয়ে আরটিআই করেন সংকেত গোখলে নামে এক ব্যক্তি, তারই জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক কী জানিয়েছে তাও টুইটে দিয়ে দেন তিনি (RTI Activist Sanket Gokhale)।

  • অসমে NRC-র পরে বিদেশি সাংবাদিকদের উপর জারি সরকারের নিষেধাজ্ঞা: RTI

    অসমে NRC-র পরে বিদেশি সাংবাদিকদের উপর জারি সরকারের নিষেধাজ্ঞা: RTI

    Restriction On Journalists: গত সেপ্টেম্বরে, বিদেশ মন্ত্রকের একটি বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল যে জম্মু ও কাশ্মীর বা উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলি সহ সীমাবদ্ধ বা সুরক্ষিত অঞ্চলগুলিতে যেতে চাইছেন এমন বিদেশি সাংবাদিকদের একটি বিশেষ অনুমতির জন্য আবেদন করতে হবে। পরে, মন্ত্রক স্পষ্ট করে জানিয়েছে যে এটি সকল বিদেশি সাংবাদিকদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য, সে তারা ভারতেই থাকুন বা বাইরে।

  • তথ্য জানার অধিকার আইনে প্রধানবিচারপতির দফতর: ১০টি তথ্য

    তথ্য জানার অধিকার আইনে প্রধানবিচারপতির দফতর: ১০টি তথ্য

    ভারতের প্রধানবিচারপতি সরকারি প্রতিনিধি, এবং তথ্য জানার অধিকার আইনের আওতায় পড়ে, বুধবার ঐতিহাসিক রায়ে জানাল সু্প্রিম কোর্ট, পাশাপাশিজোর দিয়ে জানাল, “একটি সাংবিধানিক গণতন্ত্রে, বিচারপতিরা আইনের ঊর্দ্ধে থাকতে পারেন না”।২০১০ দিল্লি হাইকোর্টের রায়কে পুনর্বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ, সেই বেঞ্চের সদস্য ছিলেন প্রধানবিচারতিও। সুপ্রিম কোর্টের কেন্দ্রীয় তথ্য কমিশন অধিকারিক এবং সেক্রেটারি জেনারেলের আবেদন খারিজ করে দেন তিনি।

  • তথ্য জানার অধিকার আইনের পরিবর্তন করায় সরকারকে আক্রমণ সনিয়া গান্ধির

    তথ্য জানার অধিকার আইনের পরিবর্তন করায় সরকারকে আক্রমণ সনিয়া গান্ধির

    তথ্য জানার অধিকার আইনকে ক্রমেই দুর্বল করে দিতে চাইছে বিজেপি সরকার। এইভাবেই সরকারকে আক্রমণ করলেন কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গান্ধি। তাঁর দাবি, নরেন্দ্র মোদি সরকার আইনকে তাদের প্রধান অ্যাজেন্ডাগুলিকে চাপিয়ে দেওয়ার পথে এক অন্তরায় হিসেবে দেখছে। নতুন তথ্য জানার আইনে তথ্য কমিশনারদের মেয়াদ পাঁচ বছর থেকে তিন বছর করে দেওয়া হয়েছে। এর সপ্তাহখানেক পরেই মোদি সরকারকে আক্রমণ করলেন কংগ্রেস নেত্রী। অধিকার কর্মীরা জানিয়েছেন, এই পদক্ষেপ তথ্য কমিশনারদের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে অবমাননা।

  • বিরোধীদের প্রতিবাদের মধ্যেই রাজ্যসভায় পাশ আরটিআই আইন সংশোধনী বিল

    বিরোধীদের প্রতিবাদের মধ্যেই রাজ্যসভায় পাশ আরটিআই আইন সংশোধনী বিল

    বিরোধীদের আপত্তি সত্ত্বেও রাজ্যসভায় পাশ হয়ে গেল তথ্য জানার অধিকার আইন সংশোধনী বিল। বিজু জনতা দলের সমর্থন চেয়ে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েকের সঙ্গে কথা বলেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভোটের আগেই ওয়াকআউট করে কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার আরটিআই আইন নিয়ে সংসদে ব্যাপক হট্টগোল হয়। বিলটিকে সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোর দাবি জানায় বিরোধীরা। সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় সোমবার বিলটি লোকসভায় পাশ করিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন বলেন, “সংসদকে খতিয়ে দেখতে হবে। এটি স্ক্রুটিনির প্রয়োজন। এটা কোনও টি-২০ ম্যাচ নয়”। “বিলটি দোসা তৈরি করা নয়” বলে কটাক্ষ করেন রাজ্যসভার আরেকজন সাংসদ।

  • তথ্য জানার অধিকার আইন নিয়ে রাজ্যসভায় চাপে সরকার

    তথ্য জানার অধিকার আইন নিয়ে রাজ্যসভায় চাপে সরকার

    কথা থাকলেও বুধবার রাজ্যসভায় পেশ করা হলনা তথ্য জানার অধিকার আইন (RTI Act)। বিলটির পাশ হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে আরও খতিয়ে দেখতে চায় সরকার। সরকারকে ইস্যু ভিত্তিক সমর্থন জানিয়েছে তেলেঙ্গানা রাষ্ট্রসমিতি এবং বিজু জনতা দল, তবে তথ্য জানার অধিকার আইনের ক্ষেত্রে তারা বিরোধীদের সঙ্গ দেবে বলে জানিয়ে দিয়েছে। সোমবার বিলটি (RTI Act) পাশ হয়ে গিয়েছে লোকসভায়, বিরোধীদের অভিযোগ, নতুন সংশোধনী কার্যকরা করা হলে, তথ্য জানার অধিকার আইন লঘু হয়ে পড়বে।

  • “কোনও বিবেচনা না করেই” সংসদে আরটিআই বিল পাস করছে কেন্দ্র, বললেন ডেরেক ও”ব্রায়েন

    “কোনও বিবেচনা না করেই” সংসদে আরটিআই বিল পাস করছে কেন্দ্র, বললেন ডেরেক ও”ব্রায়েন

    বুধবার তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও”ব্রায়েন বলেন, সংসদে একের পর এক বিল পাস করাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার, অথচ বিল পাসের আগে সেটির কোনও রকম স্ক্রুটিনি করছে না তাঁরা। বিরোধীরা এসব দেখে শুনে চুপ করে থাকবে না বলেও হুমকি দেন তিনি।

  • “তথ্য জানার অধিকার আইনকে গুরুত্বহীন করে দিল কেন্দ্র”, বললেন সনিয়া গান্ধি

    “তথ্য জানার অধিকার আইনকে গুরুত্বহীন করে দিল কেন্দ্র”, বললেন সনিয়া গান্ধি

    বিরোধীদের আপত্তিতে আমল না দিয়েই সোমবার লোকসভায় পাশ হয় “তথ্য জানার অধিকার আইনের সংশোধনী বিল”। তার একদিন পর কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধি ওই আইন সংশোধন প্রসঙ্গে মুখ খুললেন। তিনি অভিযোগ করেন যে লোকসভায় ওই বিতর্কিত সংশোধনী বিল পাশের মাধ্যমে কেন্দ্র আসলে  “ঐতিহাসিক তথ্য জানার অধিকার আইন বিলোপ” করার চেষ্টা করছে। ওই “তথ্য জানার অধিকার আইনকে একেবারে গুরুত্বহীন করে দিল কেন্দ্র”, বলেন সনিয়া গান্ধি।

  • তথ্য জানার অধিকার আইন পাশ, স্বচ্ছতা আইন লঘু হয়ে যাবে, মত বিরোধীদের

    তথ্য জানার অধিকার আইন পাশ, স্বচ্ছতা আইন লঘু হয়ে যাবে, মত বিরোধীদের

    বিরোধীদের আপত্তি সত্ত্বেও লোকসভায় পাশ হয়ে গেল তথ্য জানার অধিকার আইন সংশোধনী বিল। এই আইনকে লঘু করে দেওয়া হবে বলে অভিযোগ তুলে আপত্তি জানায় বিরোধীরা। বিলটিকে “আরটিআই ধংসাত্মক বিল” বলে মন্তব্য করেছে তারা। এই বিলটিকে নিয়ে আরও চিন্তাভাবনার জন্য সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানোরও দাবি তুলেছে বিরোধীবেঞ্চ। তবে রাজ্যসভায় বিলটি সমর্থন পাবে বলে আশা করা হচ্ছে। সেখানে সরকার সংখ্যালঘু। প্রস্তাবিত সংশোধনীর মধ্যে রয়েছে রাজ্য ও কেন্দ্রের তথ্য কমিশনারের বেতন ও মেয়াদ। বর্তমানে তথ্য কমিশনারের কাজের মেয়াদ পাঁচ বছর....তবে “কেন্দ্রীয় সরকারের মতানুযায়ী মেয়াদকাল” হতে পারে। তাঁদের বেতনও নির্ধারণ করবে কেন্দ্রীয় সরকার। তথ্য কমিশনারের বেতন নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকদের সমান।

  • দেবেন্দ্র ফড়নবিশের বাংলো, ১৮ জন মন্ত্রীর লক্ষাধিক টাকার জলের বিল বাকি

    দেবেন্দ্র ফড়নবিশের বাংলো, ১৮ জন মন্ত্রীর লক্ষাধিক টাকার জলের বিল বাকি

    সম্প্রতি এ বিষয়টি তথ্য জানার অধিকার(RTI) আইনের মাধ্যমে এ বিষয়ে জানতে চান সমাজকর্মী শাকিল আহমেদ। ওই আরটিআইয়েই জানা যায় বিল না মেটানোর তালিকায় রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ফড়নবিশের মন্ত্রিসভার দুই সদস্য অর্থমন্ত্রী সুধীর মুনগানতিওয়ার এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী একনাথ শিণ্ডেও। ওই দুই মন্ত্রীর বাড়িতেই ৩টি করে জলের লাইন রয়েছে এবং সেই জলের লাইনের(Water Bills) গত বছরের সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবর মাসের বকেয়া বিলের পরিমাণ ৩ লক্ষ ৭৩ হাজার ৮২৯ টাকা।শুধু ওই দুজনই নন, বকেয়া বিল না মেটানোর তালিকায় মহারাষ্ট্র মন্ত্রিসভার মোট ১৮ জন মন্ত্রীর নাম রয়েছে, তবে মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশের(Devendra Fadnavis)  নাম ওই তালিকায় নেই বলে জানা গেছে।

  • বিরোধিতার মধ্য দিয়েই সংসদে পাস হতে চলেছে তথ্যের অধিকার আইনের নতুন বিল

    বিরোধিতার মধ্য দিয়েই সংসদে পাস হতে চলেছে তথ্যের অধিকার আইনের নতুন বিল

    এই নতুন প্রস্তাবিত বিলের বিরোধিতা করে দিল্লি সহ গোটা দেশেই প্রবল প্রতিবাদী জমায়েত হয়েছে

Your search did not match any documents
A few suggestions
  • Make sure all words are spelled correctly
  • Try different keywords
  • Try more general keywords
Check the NDTV Archives:https://archives.ndtv.com

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................

Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com