RBI Policy: বাজেটের পর এবার আরবিআইয়ের এই দশকের নয়া নীতির দিকে তাকিয়ে দেশ

Budget 2020: গত শনিবার কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করেছে সরকার, যেখানে কৃষিক্ষেত্র ও পরিকাঠামোগত ক্ষেত্রে বড় বরাদ্দ ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক

RBI Policy: বাজেটের পর এবার আরবিআইয়ের এই দশকের নয়া নীতির দিকে তাকিয়ে দেশ

RBI সম্ভবত তার "সুবিধাজনক" নীতিগত অবস্থান অব্যাহত রাখবে

হাইলাইটস

  • বৃহস্পতিবার ঋণনীতি ঘোষণা করবে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক
  • আরবিআইয়ের গভর্নর শক্তিকান্ত দাস সুদের হার অপরিবর্তিতই রাখবেন বলে আশা
  • গত ডিসেম্বর মাসেও রেপো রেট অপরিবর্তিত রেখেছিল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক
রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া (RBI) তাদের আগামী রূপরেখা নিয়ে আর্থিক নীতি কমিটির তিন দিনের বৈঠক সম্পন্ন করেছে। বৃহস্পতিবার চলতি অর্থবছরের ষষ্ঠ দ্বি-মাসিক নীতি (RBI Policy) ঘোষণা করার কথা তাদের। আরবিআইয়ের গভর্নর শাক্তিকান্ত দাসের (Shaktikanta Das) নেতৃত্বে ছয় সদস্যের এই কমিটি ঋণদানের ক্ষেত্রে সুদের হার অপরিবর্তিত রাখবেন বলেই আশা করা হচ্ছে। এমনিতেই দেশ জুড়ে অর্থনৈতিক মন্দা এবং মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে বর্তমানে খুব একটা স্বচ্ছন্দ বোধ করছে না আরবিআই, তার মধ্যে রেপো রেট নিয়ে খুব একটা পরীক্ষা-নিরিক্ষার মধ্যে তারা যাবে না বলেই মনে করছেন অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। সংসদে কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ হয়েছে গত শনিবার। দেখা গেছে বাজেটে (Budget 2020) দেশের কৃষিক্ষেত্র ও পরিকাঠামোগত ক্ষেত্রে বড় বরাদ্দ ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক। পাশাপাশি ব্যক্তিগত করেও কিছু ছাড় দেওয়া হয়েছে। যদিও অনেকেই মনে করছেন, দেশের অর্থনৈতিক মন্দা থেকে ঘুরে দাঁড়াতে সেভাবে কোনও নতুন দিশা দেখাতে ব্যর্থ হয়েছে এই কেন্দ্রীয় বাজেট। এবার তাই মানুষ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে আরবিআইয়ের ঘোষণার দিকে।

এখানে রইল ১০ টি তথ্য:

  1. এই মুহূর্তে রেপো রেট না কমিয়ে সম্ভবত তার "সুবিধাজনক" নীতিগত অবস্থান অব্যাহত রাখবে আরবিআই, এমনটাই মনে করা হচ্ছে। যে সুদের হারে বাণিজ্যিক ব্যাঙ্কগুলিকে ঋণ দেয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক তাকেই বলে রেপো রেট।
     

  2. বাজেট ঘোষণার আগেই অর্থনীতিবিদদের একটি সমীক্ষা জানিয়েছে, আরবিআই অন্তত আগামী অক্টোবরের আগে পর্যন্ত তাদের রেপোর হার অপরিবর্তিত রাখবে। পরে পরিস্থিতি কিছুটা সামলে উঠলে পরবর্তী ভাবনা ভাববে তারা।
     

  3. গ্রাহক মুদ্রাস্ফীতি বা মূল্যবৃদ্ধির হার, ডিসেম্বরে আরও খারাপ অবস্থায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে। এটি বর্তমানে ৭.৩৫ শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে, যা গত পাঁচ বছরেরও মধ্যে একটি রেকর্ড। মূলত খাদ্যদ্রব্যের দাম বেড়েছে হু হু করে।
     

  4. কেয়ার রেটিংয়ের প্রধান অর্থনীতিবিদ মদন সাবনাভিসের মতে, গ্রাহক মুদ্রাস্ফীতি আপাতত শীর্ষে উঠেছে বলেই মনে হচ্ছে এবং এই সময়েই ২৫ থেকে ৫০ বেসিস পয়েন্ট রেপো রেট বাড়ানোর সুযোগ থাকলেও সম্ভবত এখনই সেই পথে হাঁটার কথা ভাববে না রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া। 
     

  5. আরবিআই আগামী অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর ওই ত্রৈমাসিকে পরবর্তী ২৫% বেস পয়েন্ট কমিয়ে ৪.৪ শতাংশ করার পূর্বাভাস দিলেও, কিছু অর্থনৈতিক বিশ্লেষক মনে করেন কেন্দ্রীয় ব্যাংক এই হার আরও বেশি সময় অপরিবর্তিত রাখবে।
     

  6. মুদ্রা নীতি কমিটি মূল্যবৃদ্ধির উপর ক্রমবর্ধমান উদ্বেগের কারণে গত ডিসেম্বরে পলিসি রেপোকে ৫.১৫ শতাংশে স্থিতিশীল রেখেছিল। গত বছর টানা পাঁচটি দ্বি-মাসিক পর্যালোচনায় রেপো রেট ১৩৫ বেসিস পয়েন্ট কমিয়েছে শীর্ষ ব্যাংক।
     

  7. আরবিআইকে মুখ্য মুদ্রাস্ফীতি হার ২- ৬ শতাংশের মধ্যে রাখার বাধ্যবাধকতা দেওয়া হয়, সেই সময় এটি মধ্য মেয়াদী মূল্যস্ফীতিকে ৪ শতাংশে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে।
     

  8. মার্চ মাসে শেষ হওয়া গত আর্থিক বছরে ভারতের অর্থনীতি ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। এটি গত ১১ বছরের মধ্যে সবচেয়ে দুর্বল গতি। অর্থনীতি অবশ্য সম্প্রতি ঘুরে দাঁড়ানোর কিছুটা লক্ষণ দেখিয়েছে।
     

  9. একটি বেসরকারি সংস্থার সমীক্ষা অনুযায়ী, নতুন প্রবৃদ্ধির সঙ্গে জানুয়ারিতে উৎপাদনের হার গত প্রায় আট বছরের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে। শক্তিশালী অভ্যন্তরীণ চাহিদার ভিত্তিতে সাত বছরের সবচেয়ে দ্রুত গতিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে গত জানুয়ারিতে।

  10. শনিবার বাজেটে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন রাজকোষ ঘাটতি ও সেই ঘাটতি পূরণের যে হিসেব-নিকেশ পেশ করেছেন তা বাস্তবায়িত হওয়া নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহের অবকাশ রয়েছে। পাশাপাশি, মূল্যবৃদ্ধি এখনও রিজার্ভ ব্যাঙ্কের স্বস্তি সীমার অনেক উপরে থাকায় বৃহস্পতিবার সুদের হার অপরিবর্তিতই রাখা হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।



More News