This Article is From Oct 31, 2019

সোনার গয়না নিয়ে কোনও স্কিমের ভাবনা নেই কেন্দ্রীয় সরকারের: সূত্র

সূত্রানুসারে জানা যাচ্ছে, আয়কর দফতরের অধীনে এমন কোনও স্কিমের পরিকল্পনা নেই। বলা হচ্ছে, যেহেতু বাজেট প্রক্রিয়া চলছে, তাই এই ধরনের গুজব শোনা যেতে পারে।

সোনার গয়না নিয়ে কোনও স্কিমের ভাবনা নেই কেন্দ্রীয় সরকারের: সূত্র

সূত্রানুসারে জানা যাচ্ছে, আয়কর দফতরের অধীনে এমন কোনও স্কিমের পরিকল্পনা নেই।

শোনা যাচ্ছিল, সোনার (Gold) গয়নার উপরে এক অ্যামনেস্টি স্কিম (Gold Amnesty Scheme) আনতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার, যার ফলে প্রত্যেককে নিজের সোনার পরিমাণ জানাতে হবে সরকারকে। কিন্তু বৃহস্পতিবার সরকারি সূত্র জানাচ্ছে, এমন কোনও প্রকল্পের ভাবনা নেই সরকারের। সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছিল, সরকারের ওই অ্যামনেস্টি স্কিমের কারণে বিল ছাড়া কোনও সোনা রাখলেই তার সম্পর্কে সরকারকে জানাতে হবে। সূত্রানুসারে জানা যাচ্ছে, আয়কর দফতরের অধীনে এমন কোনও স্কিমের পরিকল্পনা নেই। বলা হচ্ছে, যেহেতু বাজেট প্রক্রিয়া চলছে, তাই এই ধরনের গুজব শোনা যেতে পারে। এর আগে ২০১৭ সালে ‌নোটবন্দির পরে প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনা আংশিক সাফল্য পেয়েছিল‌। সেই প্রকল্পকেও ছাড়িয়ে যেতে পারে সরকারের নতুন অ্যামনেস্টি স্কিম, দাবি ছিল এমনটাই।

আরও শোনা গিয়েছিল, নতুন প্রকল্প সোনা মজুতদারদের একটা সুযোগ দেবে কালো টাকায় বিনিয়োগের কথা জানাতে ও তার জন্য কর দিতে।

কুলগামে জঙ্গি হানায় শ্রমিকদের হত্যা ‘‘পূর্ব পরিকল্পিত'', তদন্তের দাবি মুখ্যমন্ত্রীর

এই করত দিতে হত রসিদ ছাড়া যতটা সোনা কেনা হয়েছিল, তার উপরে।

মনে করা হচ্ছিল ভারতীয়দের মজুদ করা মোট সোনার পরিমাণ ২০,০০০ টন। কিন্তু রসিদ ছাড়া থাকা সোনার গয়না, পারিবারিক সূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তি ইত্যাদি যোগ করলে তার পরিমাণ হতে পারে ২৫,০০০-৩০,০০০ টন সোনা।

কালো টাকার আধিপত্য খর্ব করতে সরকার ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর নোটবন্দির ঘোষণা করে। এর ফলে ৫০০ ও ১,০০০ টাকার নোট বাতিল হয়ে যায়।

জানেন কি ভারতের একমাত্র কোন সম্প্রদায়ের লোকেরা লাইসেন্স ছাড়া অস্ত্র রাখতে পারেন?

যদিও ৯৯.৩ শতাংশ ৫০০ ও ১,০০০ টাকার নোট আবারও ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থায় ফিরে এসেছিল।

মোট ১৫.৪১ লক্ষ কোটি টাকা মূল্যের ৫০০ ও ১,০০০ টাকার মোট বাতিল করার পর ১৫.৩১ কোটি টাকার মূল্যের নোট ফেরত এসেছিল।

.