This Article is From Aug 30, 2019

GDP Data: বৃদ্ধির হার নেমে এল ৫ শতাংশে, ৬ বছরে সর্বনিম্ন, করুণ দশা ভারতীয় অর্থনীতির

শুক্রবারই, "একটি শক্তিশালী আর্থিক ব্যবস্থা চায়" বলে রাষ্ট্রীয় ব্যাংকের চারটি মেগা সংযুক্তির পরিকল্পনার ঘোষণা করেন অর্থমন্ত্রী Nirmala Sitharaman ।

GDP Data: গত ৬ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন, বৃদ্ধির হার নেমে এল ৫ শতাংশে, চিন্তার ভাঁজ অর্থনীতিবিদদের কপালে।

গত ৬ বছরের মধ্যে দেশের অর্থনৈতিক বৃদ্ধি (Economic growth) তলানিতে এসে ঠেকেছে, অন্তত সরকারের দেওয়া পরিসংখ্যান (GDP data)সেই সঙ্কটের কথাই তুলে ধরেছে। দেশের মোট দেশজ উৎপাদনের বৃদ্ধি চলতি অর্থবছরের (২০১৯ - ২০) প্রথম ত্রৈমাসিকে ৫ শতাংশে নেমে দাঁড়িয়েছে। জানুয়ারি থেকে মার্চ, তার আগের ত্রৈমাসিকে আর্থিক বৃদ্ধির (GDP) হার ছিল যেখানে ৫.৮ শতাংশ, সেখানে সেই হার আরও কমল এবারে। অথচ এক বছর আগে ২০১৮ সালের ৩০ জুন আর্থিক বৃদ্ধির হার ছিল ৮ শতাংশ। এর আগে, ২০১৩ সালের মার্চ মাসে আর্থিক বৃদ্ধির হার ৪.৩ শতাংশে গিয়ে ঠেকেছিল। তারপর এই প্রথম আর্থিক বৃদ্ধির হার এতখানি নেমে গেল। দেশের গাড়ি শিল্প ও বিস্কুট শিল্পতে মন্দা এবং সেক্টর জুড়ে লক্ষ লক্ষ মানুষের কাজ হারানোর ঘটনাই দেশের অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হারকে প্রভাবিত করেছে, মনে করছেন বিশ্লেষকরা ।

দেখে নিন এ বিষয়ে ১০ টি তথ্য:

  1. সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের এক সমীক্ষায় অর্থনীতিবিদরা জুনের প্রান্তিকের বার্ষিক বৃদ্ধির হার ৫.৭ শতাংশের পূর্বাভাস দিয়েছিলেন। 
     

  2. বিশেষজ্ঞরা বলেন, উপভোক্তাদের দুর্বল চাহিদা এবং লাগাতার বেসরকারি বিনিয়োগই দেশের অর্থনীতির মন্দার পিছনে বড় কারণ।
     

  3. "অর্থনৈতিক মন্দা মোকাবিলায় সরকারের কাঠামোগত ও অন্যান্য সমস্যাগুলি সমাধান করা দরকার," ফিচ রেটিংয়ের শাখা সংগঠন ইন্ডিয়া রেটিংয়ের প্রধান অর্থনীতিবিদ দেবীন্দ্র পান্ত এ কথা বলেন। পাশাপাশি গাড়ি ক্রয়ের ক্ষেত্রে গ্রাহকের চাহিদা হ্রাসের কারণে যে ভাবে গাড়ি উৎপাদনে প্রভাব পড়ছে তাকেও কারণ হিসাবে উল্লেখ করেছেন তিনি।
     

  4. উৎপাদন খাতেও তীব্র মন্দা দেখা দিয়েছে কারণ প্রথম ত্রৈমাসিকে উৎপাদন খাতের মোট গ্রাহ্য সংযোজন বা জিভিএ নেমে ০.৬ শতাংশে দাঁড়িয়েছে যা গত বছরে একই প্রান্তিকে ১২.১ শতাংশ ছিল।
     

  5.  চলতি মাসের শুরুতে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ৩৫ বেসিস পয়েন্ট কমানোয় রেপো রেট ৫.৪০ শতাংশে এসে দাঁড়ায়। তার ফলে রেপোরেট ৫.৪০ শতাংশে এসে দাঁড়ায়, যার পর চলতি আর্থিক বছরের জিডিপি বৃদ্ধির হারের লক্ষ্যমাত্রাও ৭ থেকে কমিয়ে ৬.৯ শতাংশে আনা হয়।
     

  6. আরবিআই আশা করে যে ২০১৯-২০ অর্থবর্ষের প্রথমার্ধে জিডিপি বৃদ্ধি ৫.৮-৬.৬ শতাংশ এবং দ্বিতীয়ার্ধে ৭.৩-৭.৫ শতাংশ হবে। 
     

  7. কৃষি খাতে অর্থনৈতিক বৃদ্ধি হ্রাস পেয়ে ২ শতাংশে দাঁড়িয়েছে, যা আগের বছর ৫.১ শতাংশ ছিল।
     

  8. শুক্রবারই, "একটি শক্তিশালী আর্থিক ব্যবস্থা চায়" বলে রাষ্ট্রীয় ব্যাংকের চারটি মেগা সংযুক্তির পরিকল্পনার ঘোষণা করেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। ৫ ট্রিলিয়ান অর্থনীতির দেশ হওয়ার লক্ষ্যেই এই পরিকল্পনা বলে সাংবাদিক সম্মেলনে জানান তিনি।
     

  9. ধীর গতির অর্থনৈতিক বৃদ্ধি মোকাবিলায় সরকার এক সপ্তাহের মধ্যেই বিদেশি বিনিয়োগকারীদের উপর উচ্চ হারে আয়কর ছাড় থেকে শুরু করে রাষ্ট্রীয় ব্যাংকের পুনঃব্যবস্থাপনার মতো বেশ কয়েকটি পদক্ষেপের ঘোষণা করে।
     

  10. অনেক ক্রেডিট রেটিং এজেন্সি গত কয়েক সপ্তাহ ধরে তাদের বৃদ্ধির পরিমান কমিয়েছে। ইন্ডিয়া রেটিংগুলি চলতি অর্থবছরে ৭.৩  থেকে ৬.৭  এ নামিয়ে আনে ।

(With inputs from agencies)