মাল্টি কমোডিটি এক্সচেঞ্জে এই প্রথম সোনার দাম ৫০,০০০ পেরিয়ে গেল

Gold, Silver Rates Today: বুধবার সকাল ১১ টা ৩৫ মিনিটে এমসিএক্স সোনার ফিউচার শেয়ারের দাম ০.৯৯ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০,০১৭ টাকায়

মাল্টি কমোডিটি এক্সচেঞ্জে এই প্রথম সোনার দাম ৫০,০০০ পেরিয়ে গেল

Gold, Silver Rates: করোনা পরিস্থিতির মধ্যে সোনা-রুপোর দাম রেকর্ড হারে বাড়ছে

হাইলাইটস

  • হু-হু করে বাড়ছে সোনা-রুপোর দাম
  • বুধবার ওই দুই ধাতুরই দাম রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছলো
  • বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সোনা, রুপোয় লগ্নি বাড়ছে বলেই দাম চড়ছে

দেশে সোনা-রুপোর দাম (Gold, Silver Rates) সব রেকর্ড ভেঙে ফেলল, হলুদ ধাতুর দাম তো ৫০,০০০ কেও ছাড়িয়ে গেল। বুধবার, দেশীয় শেয়ার বাজারে এই দুই ধাতুর দাম রেকর্ড পরিমাণ উচ্চতায় পৌঁছেছে। মাল্টি কমোডিটি এক্সচেঞ্জের (এমসিএক্স) সোনার দাম (Gold Rate) সকালে আরও ৪৯৩ টাকা বা ১ শতাংশ বেড়ে রেকর্ড ৫০,০২০ টাকায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে। এদিকে রুপোর দাম (Silver Rate) বেড়ে হয়েছে ৬০,৭৮২ টাকা, এটিও এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ মূল্য। রুপোর দাম বাজার বন্ধের আগে ছিল ৫৭,৩৪২ টাকা। বুধবার সকাল ১১ টা ৩৫ মিনিটে (Gold, Silver Rates Today) এমসিএক্স সোনার ফিউচার শেয়ারের দাম ০.৯৯ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০,০১৭ টাকায়, আর রুপো আগের দামের তুলনায় ৫.৭১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬০,৬১৯ টাকায়।

দেখা গেছে, একদিকে যেমন দেশে করোনা সংক্রমণ দ্রুত হারে বাড়ছে ঠিক তেমনই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সোনা-রুপোর মতো মূল্যবান ধাতুর দামও। আর তাছাড়া সবসময়ই শেয়ার বাজার টালমাটাল হলে বিনিয়োগকারীরা সোনা-রুপোর উপরেই বিনিয়োগ করতে চান, কারণ তাতে সবসময়ই অপেক্ষাকৃত কম ঝুঁকি থাকে।

মুম্বইয়ে অবস্থিত ভারতের স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের বৃহত্তম সংগঠন ইন্ডিয়া বুলিয়ান অ্যান্ড জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (আইবিজেএ) জানিয়েছে, গুডস ও সার্ভিস ট্যাক্স বাদে মঙ্গলবার বাজার বন্ধের আগে গহনা সোনার দাম ছিল প্রতি ১০ গ্রামে ৪৯,৪৪০ টাকা এবং প্রতি কেজি রুপোর দাম ছিল ৫৪,৮৫০ টাকা। বুধবার যা বেড়ে ৫০,০০০ পেরিয়ে গেছে।

বিশেষজ্ঞরা কী বলছেন? 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, "মার্কিন ডলারের দাম কমে যাওয়া এবং বিশ্বের অর্থনৈতিক পরিস্থিতিকে ঘুরে দাঁড় করানোর জন্য উদ্দীপনামূলক পদক্ষেপ হিসাবে মধ্যে সোনার দাম বেড়েছে।" তাঁরা বলছেন, এখন সঞ্চয়ের মাধ্যমেই সুরক্ষা খুঁজছেন মানুষ। তাই সোনা, রুপোয় লগ্নি বাড়ছে। ফলে চড়ছে দাম। তবে একাংশের মতে, সোনায় লগ্নি আর মধ্যবিত্তের নাগালে নেই। বরং তা হয়ে উঠেছে মূলত বিত্তবানের সম্পত্তি। যাঁরা টুকটাক সোনাদানা কিনে রাখায় বিশ্বাসী, ইতিমধ্যেই চূড়ান্ত হতাশ তাঁরা। অবস্থা সামাল দিতে গয়না কেনার বাজেট ছাঁটছেন অনেকে।