সুপ্রিম কোর্টের বেঁধে দেওয়া সময়ের আগেই এরিকসনের টাকা ফেরত দিল রিলায়েন্স

২০১৪ সালে এই চুক্তিটি হয়। চুক্তি সাক্ষর হওয়ার পর ঠিক হয়েছিল রিলায়েন্স কমিউনিকেশনসের নেটওয়ার্ককে পরিচালনা করবে এরিকসন।

সুপ্রিম কোর্টের বেঁধে দেওয়া সময়ের আগেই এরিকসনের টাকা ফেরত দিল রিলায়েন্স

রিলায়েন্স কমিউনিকেশনসের থেকে ৫৭১ কোটি টাকা পাওনা ছিল এরিকসনের।

হাইলাইটস

  • ৪৫০ কোটি টাকা ফেরত না দিলে সময়মতো, জেল হতো তিনমাসের
  • এরিকসনের ৫৭১ কোটি টাকা পাওনা ছিল অনিল আম্বানির সংস্থার থেকে
  • এর মধ্যে প্রথমবার চুক্তির সময়ের ৫৫০ কোটি টাকাও রয়েছে

টেলিকম সংস্থা রিলায়েন্স কমিউনিকেশনসের থেকে ৪৬২ কোটি টাকা পেল সুইডিশ সংস্থা এরিকসন। সোমবার এই সুইডিশ সংস্থার পক্ষ থেকে এই কথা জানানো হয়। যার ফলে ভারতীয় ধনকুবের অনিল আম্বানি সহ রিলায়েন্স কমিউনিকেশনসের আরও দুই অধিকর্তা বেঁচে গেলেন কারাদণ্ডের শাস্তির থেকে। গত মাসের শেষেরদিকেই সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিয়েছিল ঋণে জর্জরিত অনিল আম্বানির নেতৃত্বাধীন সংস্থাটি সুইডিশ সংস্থাকে টাকা ফেরত না দেওয়ায় আদালত অবমাননার দায়ে অভিযুক্ত। তারপরই শীর্ষ আদালতের পক্ষ থেকে আদেশ দেওয়া হয়, যেভাবেই হোক আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে অনিল আম্বানির সংস্থাকে ৪৫০ কোটি টাকা মিটিয়ে দিতে এরিকসনকে। অন্যথায়, তিনমাস জেল হয়ে মুকেশ আম্বানির ভাইয়ের।

কোন ব্যাঙ্কে সেভিং অ্যাকাউন্টের ‘মিনিমাম ব্যালেন্স' কত?

প্রসঙ্গত, রিলায়েন্স কমিউনিকেশনসের থেকে ৫৭১ কোটি টাকা পাওনা ছিল এরিকসনের। তার মধ্যে প্রথমবারের সমঝোতার জন্য ৫৫০ কোটি টাকা এবং তার সুদ বাবদ ২১ কোটি টাকা মিলিয়ে মোট অঙ্কটা দাঁড়িয়েছিল ৫৭১ কোটি টাকা। গত ফেব্রুয়ারিতেই তার মধ্যে ১১৮ কোটি টাকা সুপ্রিম কোর্টের কাছে জমা করে দিয়েছিল রিলায়েন্স কমিউনিকেশনস।

জিরো ব্যালেন্স অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে কয়েকটি তথ্য যা আপনাকে জানতেই হবে

২০১৪ সালে এই চুক্তিটি হয়। চুক্তি সাক্ষর হওয়ার পর ঠিক হয়েছিল রিলায়েন্স কমিউনিকেশনসের নেটওয়ার্ককে পরিচালনা করবে এরিকসন। গত বছর এই সুইডিশ সংস্থাটি বকেয়া অর্থের জন্য আদালতের শরণাপন্ন হয়।   



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)