করোনা বিপর্যয় রোধে করদাতাদের ভার লাঘবে একাধিক ঘোষণা অর্থমন্ত্রীর

২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের জন্য আইটি রিটার্ন ফাইলের মেয়াদ ৩০ জুন, ২০২০ করা হয়েছে

করোনা বিপর্যয় রোধে করদাতাদের ভার লাঘবে একাধিক ঘোষণা অর্থমন্ত্রীর
নয়া দিল্লি:

করোনা বিপর্যয়ের জেরে ভারতের অর্থনীতিকে চাঙ্গা রাখতে একগুচ্ছ ঘোষণা করল অর্থ মন্ত্রক। মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ, সপার্ষদ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন। সেই বৈঠকে আগামী ৩ মাস, কোন পথে হাঁটবে কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রক, তার একটা দিশা দেখানো হয়েছে। করদাতা ও কর্পোরেট করদাতাদের ঘাড় থেকে বোঝা লাঘবে একাধিক ঘোষণা করা হয়েছে। ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের জন্য আইটি রিটার্নসের সময়সীমা বাড়িয়ে ৩০ জুন করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে আধার ও প্যান সংযুক্তির সময়সীমা। এই বিপর্যয়ের জেরে প্রভাবিত শিল্পের খাতে কোনও আর্থিক প্যাকেজ প্যাকেজ ঘোষণা করা যায় কিনা, খতিয়ে দেখছে মন্ত্রক। এদিন জানান অর্থমন্ত্রী। 

এক ঝলকে দেখে নিন কী বলেছেন অর্থমন্ত্রী:

  • ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের জন্য আইটি রিটার্ন ফাইলের মেয়াদ ৩০ জুন, ২০২০ করা হয়েছে
  • মেয়াদের পর কর পরিশোধে সুদের হার ১২% থেকে কমিয়ে ৯% করা হয়েছে। 
  • আধার ও প্যান সংযুক্তির সময়সীমা ৩১ মার্চ থেকে বাড়িয়ে ৩০ জুন করা হয়েছে। 
  • "বিবাদ সে বিশ্বাস' অর্থাৎ কর সংক্রান্ত বিবাদ মেটাতে আরও ৩ মাস সময় দেওয়া হয়েছে। জুন ৩০ অভদি বাড়ানো হয়েছে সীমা। 
  • যারা বিবাদ সে বিশ্বাস প্রকল্পের সঙ্গে জড়িয়ে তাঁদের ১০% সুদ দিতে হবে না। 
  • আয়কর দফতরের আওতাধীন একাধিক বিজ্ঞপ্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।
  • কমানো হয়েছে দেরিতে আয়কর পরিশোধের সুদের হার।
  • মারছ-মে, ত্রৈমাসিকে জিএসটি রিটার্ন পরিশোধের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। 
  • ৫ কোটি অবধি বার্ষিক লাভ, এমন সংস্থাকে একাধিক ছাড় দেওয়া হয়েছে। 
  • সেপ্টম্বর ৩০, ২০২০ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে মোরাটোরিয়াম মেয়াদ। এমসিএ ২১ রেজিস্ট্রি মোতাবেক
  • দেরিতে ফাইল করলে কোনও অতিরিক্ত চার্জ বসবে না
  • সংস্থার বোর্ড মিটিং আয়োজনের ক্ষেত্রেও ছাড় দেওয়া হয়েছে
  • ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে কোনও বোর্ড মিটিং না হলে,  সেটা কোম্পানি ল'-এর উল্লঙ্ঘন না।  
  • এটিএম টাকা তোলার ক্ষেত্রে ডেবিট কার্ড ব্যবহারের বিধিনিষেধ তুলে দেওয়া হয়েছে। তিন মাস লাগবে না কোনও চার্জ
  • করোনা বিপর্যয় প্রতিরোধে স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের নেতৃত্বাধীন এই বৈঠক
  • নির্দেশিকায় কিছুটা ছাড় দিয়েছে সেবিও। 
  • দিনে তিনবার বাজারের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করছে সরকার।