এজিআর ইস্যু টেলিকম শিল্পের কাছে এক অভূতপূর্ব সঙ্কট: সুনীল মিত্তল

গত সপ্তাহেই সরকার ভোডাফোন আইডিয়া সহ সমস্ত মোবাইল সংস্থাকে নির্দেশ দেয় দ্রুত তাদের সমস্ত বকেয়া মিটিয়ে দিতে।

এজিআর ইস্যু টেলিকম শিল্পের কাছে এক অভূতপূর্ব সঙ্কট: সুনীল মিত্তল

সুপ্রিম কোর্টের রায় মেনে চলতে তাঁরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে জানান সুনীল ভারতী মিত্তল।

হাইলাইটস

  • এজিআর ইস্যুকে টেলিকম শিল্পের এক অভূতপূর্ব সঙ্কট বলো দাবি সুনীল মিত্তলের
  • ভারতী এয়ারটেলের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান সুনীল মিত্তল
  • তিনি জানান, সুপ্রিম কোর্টের রায় মেনে চলতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ তাঁর সংস্থা

ভারতীয় এয়ারটেলের (Bharti Airtel) প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান সুনীল ভারতী মিত্তল বৃহস্পতিবার জানালেন এজিআর ইস্যু টেলিকম শিল্পের কাছে এক অভূতপূর্ব সঙ্কট। টেলিকম মন্ত্রী রবি শঙ্কর টেলিকম শিল্প সম্পর্কে তাঁর সামগ্রিক বক্তব্য রাখার পরেই এই কথা জানালেন সুনীল। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘‘এজিআর নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায় মেনে চলতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এবং ভারতীয় এয়ারটেল বাকি পাওনাও দ্রুত মিটিয়ে দেবে।'' গত সপ্তাহেই সরকার ভোডাফোন আইডিয়া সহ সমস্ত মোবাইল সংস্থাকে নির্দেশ দেয় দ্রুত তাদের সমস্ত বকেয়া মিটিয়ে দিতে। তার আগে সুপ্রিম কোর্ট টেলিকম সংস্থাগুলিকে ধমক দিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের পাওনা মিটিয়ে দেওয়ার কথা বলে।

ভারতী এয়ারটেল সোমবার জানিয়ে দেয়, তারা বকেয়ার ১০,০০০ কোটি টাকা মিটিয়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় টেলিকম মন্ত্রককে। সংস্থার তরফ থেকে বলা হয়েছে, ‘‘সব মিলিয়ে ১০,০০০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে ভারতী এয়ারটেল, ভারতী হেক্সাকম ও টেলিনরের তরফ থেকে।''

এদিকে ভোডাফোন আইডিয়া এখনও পর্যন্ত ৩,৫০০ কোটি টাকা মিটিয়েছে।

গত অক্টোবরে সুপ্রিম কোর্ট টেকিম সংস্থাগুলেক নির্দেশ দেয়, তাদের বকেয়া মোট ৯২,০০০ কোটি টাকা মিটিয়ে দেওয়ার জন্য। এবং তা মেটানোর জন্য তিন মাস সময় দেওয়া হয়।

এয়ারটেলের মোট বকেয়ার পরিমাণ ৩৫,৫৮৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে রয়েছে লাইসেন্স ফি ও স্পেকট্রাম ব্যবহারের চার্জ।

ভোডাফোন আইডিয়ার বকেয়া ৫৩,০০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে স্পেকট্রাম ব্যবহারের চার্জ বাবদ ২৪,৭২৯ কোটি টাকা ও লাইসেন্স ফি বাবদ ২৮,৩০৯ টাকা।

বাকিদের মধ্যে বিএসএনএল-এর বকেয়া ৪,৯৮৯ কোটি, টাটা টেলি সার্ভিসেসের বকেয়া ১৩,৮০০ কোটি টাকা এবং এমটিএনএল-এর বকেয়া ৩,১২২ কোটি টাকা।

Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com