বাংলায় নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে অব্যাহত বিক্ষোভ, বাতিল বহু ট্রেন

West Bengal: নাগরিকত্ব বিলের বিক্ষোভের কারণে উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলওয়ের কাটিহার শাখার বেশ কয়েকটি ট্রেন সোমবার বাতিল করা হয়েছে

বাংলায় নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে অব্যাহত বিক্ষোভ, বাতিল বহু ট্রেন

Citizenship Amendment Act: নাগরিকত্ব বিলের প্রতিবাদে বিক্ষোভের জেরে বহু ট্রেন বাতিল করে দিতে হয়েছে (ফাইল চিত্র)

হাইলাইটস

  • নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে বাংলাতেও বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ
  • বিক্ষোভ দেখানো হচ্ছে রেল ও সড়ক পথ অবরোধ করে
  • বহু ট্রেন বাতিল করতে হচ্ছে এই বিক্ষোভের জেরে
কলকাতা:

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন, ২০১৯ (Citizenship Amendment Act) বাস্তবায়নের পরেই দেশের বিভিন্ন জায়গায় জনগণের রোষ আছড়ে পড়েছে। বিক্ষোভ প্রদর্শন চলছে বাংলার বিভিন্ন জায়গাতেও। রবিবার থেকেই এ রাজ্যে (West Bengal) যেন এই বিক্ষোভের মাত্রা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। সোমবারও রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় রেল ও সড়ক পথ অবরোধ করে চলছে বিক্ষোভ-আন্দোলন। এর জেরে বাতিল করতে হয়েছে বহু ট্রেন।  উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলওয়ের কাটিহার শাখার বেশ কয়েকটি ট্রেন সোমবার বাতিল (Train cancelled) করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পূর্ব রেলওয়ের প্রধান জনসংযোগ আধিকারির। তিনি জানান, নিউ জলপাইগুড়ি থেকে হাওড়া এবং হাওড়া থেকে নিউ জলপাইগুড়িগামী শতাব্দী এক্সপ্রেস সোমবার বাতিল থাকবে। পাশাপাশি হাওড়া থেকে চেন্নাইগামী করমণ্ডল এক্সপ্রেস, যা সোমবার হাওড়া থেকে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল, তাও বাতিল করা হয়েছে এই পরিস্থিতির জেরে।

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে রেড রোড থেকে শুরু তৃণমূল কংগ্রেসের মহামিছিল

যদিও নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে রাজ্যে শুরু হওয়া হিংসার পরিপ্রেক্ষিতে রবিবারই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে ফের একবার বার্তা দেন এই বলে যে, ‘‘রাস্তা ও রেল অবরোধ করবেন‌ না। সাধারণ মানুষের হেনস্থা মেনে নেওয়া হবে না। যারা এটা করছে ও হাতে আইন হাতে তুলে নিচ্ছে তাদের ছাড়া হবে না। যারা বাসে আগুন লাগাচ্ছে, ট্রেনে আগুন লাগাচ্ছে ও জনতার সম্পত্তি নষ্ট করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'' 

তবে এই নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন এবং এনআরসি, দুটোর কোনওটাই বাংলায় প্রয়োগ করা হবে না বলে, রাজ্যের মানুষকে আশ্বস্ত করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি এর প্রতিবাদে কলকাতায় মহা মিছিলেরও ডাক দেন তিনি।

এদিকে মুখ্যমন্ত্রী টুইট করে সোমবারের ‘‘মহামিছিলের'' কথা ঘোষণা করার পরই রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় টুইট করে জানিয়ে দেন যে তিনি ‘‘অত্যন্ত বিরক্ত'' এই ‘‘অসাংবিধানিক'' কাজে। তিনি টুইট করে জানান, ‘‘আমি অত্যন্ত বিরক্ত মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর মন্ত্রীদের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে মিছিল করার সিদ্ধান্তে। এটা অসাংবিধানিক। আমি মুখ্যমন্ত্রীকে এই অসাংবিধানিক কাজ থেকে বিরত থাকতে বলছি। এই সঙ্কটের মুহূর্তে এবং এই মারাত্মক পরিস্থিতিকে শুধরানোর জন্যেও তাঁকে অনুরোধ করছি।''

নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতা করায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে আদালতে যাচ্ছে বিজেপি

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন, ২০১৯ পাস হওয়ার পরেই দেশের উত্তর-পূর্বের বেশ কয়েকটি জায়গায় বিক্ষোভ শুরু হয়।পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ভারতীয় সেনা সোমবার অসমের উপরিভাগে ২৪ কলাম সেনা এবং অসমের নিম্নভাগে ১২ কলাম সেনা মোতায়েন করেছে।

বৃহস্পতিবারই রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে সম্মতি দিলে সেটি আইনে পরিণত হয়। আইনানুযায়ী, ২০১৪-এর ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত, পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং বাংলাদেশ থেকে ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হয়ে যে সমস্ত অ-মুসলিমরা ভারতে এসেছেন, তাঁদের অবৈধ অনুপ্রবেশকারী বলে ভাবা হবে না, বরং তাঁদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। সোমবার বিলটি লোকসভায় এবং বুধবার রাজ্যসভায় পাস হয়।

More News