রাজ্য সরকারকে পার্শ্ব শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনায় বসার আহ্বান জানালেন রাজ্যপাল

Para-Teacher: সরকারি-বেসরকারি বিদ্যালয়ে চুক্তিবদ্ধ শিক্ষক হিসাবে কাজ করা এক হাজারেরও বেশি শিক্ষক ১১ নভেম্বর থেকে অবস্থান বিক্ষোভ করছেন

রাজ্য সরকারকে পার্শ্ব শিক্ষকদের  সঙ্গে আলোচনায় বসার আহ্বান জানালেন রাজ্যপাল

West Bengal: রাজ্যের পার্শ্ব শিক্ষকদের প্রতি সহানুভূতিশীল হলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়

কলকাতা:

রাজ্যের (West Bengal) পার্শ্ব শিক্ষকদের দাবি দাওয়া নিয়ে তাঁদের সঙ্গে আলোচনায় বসুক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার, এমনটাই চান রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। বেতন বৃদ্ধির দাবিতে অনির্দিষ্টকালীন অনশনে বসেছেন রাজ্যের পার্শ্ব শিক্ষকরা। সেই অনশন চলাকালীনই শুক্রবার রাজ্য সরকারকে সমস্যার সমাধানের লক্ষ্যে তাঁদের (Para-Teacher) সঙ্গে আলোচনায় বসার আহ্বান জানালেন রাজ্যপাল । তিনি (Governor Jagdeep Dhankhar) টুইট করে বলেন, "@ মমতাঅফিশিয়াল। আমি দেখছি যে গত ১১ নভেম্বর থেকে এক হাজারেরও বেশি পার্শ্ব শিক্ষক আন্দোলন করছেন এবং তাঁদের মধ্যে ৩৭ জন শুক্রবার থেকে অনির্দিষ্টকালের উপবাসে রয়েছেন। আমি এ বিষয়ে সবপক্ষকেই আলোচনায় বসার আহ্বান জানাচ্ছি"। বৃহস্পতিবার পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় পার্শ্ব শিক্ষক রেবতী রাউতের মৃত্যুর কথা উল্লেখ করে ধনখড় টুইট করেন, "পশ্চিম মেদিনীপুরের রেবতী রাউতের মৃত্যুর খবর এবং অন্যদের অসুস্থতার খবর খুবই উদ্বেগজনক।" গত কয়েকদিন ধরেই পার্শ্ব শিক্ষকদের বিক্ষোভে অংশ নেওয়া মাঝবয়সী প্যারা-টিচার রেবতী রাউত বৃহস্পতিবার পশ্চিম মেদিনীপুরের ডেবরায় নিজের বাড়িতেই মারা যান। এই খবর জানান ওই আন্দোলনের নেতৃত্বদানকারী সংগঠন ''প্যারা-টিচার ঐক্য মঞ্চ''-এর সহ-আহ্বায়ক ভাগীরথ ঘোষ।

বেতনবৃদ্ধির দাবিতে অনশনে পার্শ্বশিক্ষকরা

তিনি জানান, সরকারি-বেসরকারি বিদ্যালয়ে চুক্তিবদ্ধ শিক্ষক হিসাবে কাজ করা এক হাজারেরও বেশি শিক্ষক ১১ নভেম্বর থেকে অবস্থান বিক্ষোভ করছেন। তাঁদের মধ্যে অন্তত ৩৭ জন শুক্রবার থেকে অনির্দিষ্টকালের অনশনে বসেছেন, ইতিমধ্যেই কমপক্ষে ১০ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তিনি বলেন যে তাঁদের বেতন এবং অন্যান্য দাবি-দাওয়া বাড়ানোর বিষয়ে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে কোনও সাড়া মেলেনি। তাঁরা দাবি তোলেন যে অন্তত পক্ষে রাজ্য সরকারের গ্রুপ ডি কর্মীদের সমান বেতন চাই তাঁদের।

বিক্ষোভ না করে ক্লাস নেওয়া উচিত para-teacher দের, বললেন মুখ্যমন্ত্রী

''প্যারা-টিচার ঐক্য মঞ্চ''-এর সহ-আহ্বায়ক ভাগীরথ ঘোষ আরও জানান, প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয়গুলির পার্শ্ব শিক্ষকদের মাসিক বেতন যথাক্রমে ১০,০০০ এবং ১৩,০০০ টাকা, যা বাড়িয়ে ২২,০০০-২৫,০০০ করা উচিত। রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এর আগে বলেন যে পার্শ্ব শিক্ষকদের রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসার জন্য তাগিদ দেখানো উচিত।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com