WBJEE Result 2020 Date: রাজ্যে ৭ অগাস্ট জয়েন্টের ফলপ্রকাশ করা হবে

WBJEE 2020 Result Date: পশ্চিমবঙ্গে জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষার ফল দেখা যাবে wbjeeb.nic.in এই ওয়েবসাইটে

WBJEE Result 2020 Date: রাজ্যে ৭ অগাস্ট জয়েন্টের ফলপ্রকাশ করা হবে

West Bengal: এবছর ২ ফেব্রুয়ারি জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষা নেওয়া হয় (প্রতীকী চিত্র)

হাইলাইটস

  • চলতি বছরের ২ ফেব্রুয়ারি জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষা হয়
  • আগামী ৭ অগাস্ট সেই পরীক্ষার ফলপ্রকাশ করা হবে
  • wbjeeb.nic.in ওয়েবসাইটে নিজের ফল দেখতে পারবে পরিক্ষার্থীরা
কলকাতা:

আগামী ৭ অগাস্ট পশ্চিমবঙ্গে (West Bengal) জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষার (WBJEE) ফলপ্রকাশ করা হবে, NDTV-কে একথা জানিয়েছেন ওয়েস্ট বেঙ্গল জয়েন্ট এন্ট্রান্স একসামিনেশন বোর্ডের একজন আধিকারিক। ওই দিন বিকেল তিনটের সময় ফল (WBJEE Result) জানতে পারবে এবছরের জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষার্থীরা। জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ডের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট wbjeeb.nic.in এ গিয়ে নিজেদের WBJEE এর ফল দেখতে পারবে তাঁরা। জানা গেছে, চলতি কোভিড-১৯ মহামারী পরিপরিস্থিতিতে এবছরের জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষায় সফল (WBJEE 2020 Result) ছাত্রছাত্রীদের কাউন্সেলিং অনলাইনেই করা হবে। পাশাপাশি রিপোর্টিং করার ক্ষেত্রেও ছাত্রছাত্রীরা এবছর সেটি ভার্চুয়ালি করতে পারবে, পরিকল্পনা রাজ্য জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ডের। অর্থাৎ এতদিন ধরে অনলাইনে কাউন্সেলিং হলেও ছাত্রছাত্রীদের বিভিন্ন ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে গেলে সরাসরি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে যেতে হত। কিন্তু এবছর করোনা পরিস্থিতিতে ছাত্র-ছাত্রীদের আর ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে যেতে হবে না। অনলাইন মারফত তাঁরা ভার্চুয়ালি রিপোর্টিং করতে পারবেন, এমন পরিকল্পনা নিয়েছে রাজ্য জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ড।

এই বছর, জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষাটি গত ২ ফেব্রুয়ারি অফলাইনেই হয় (ওএমআর ভিত্তিক)। গণিত (প্রথম পত্র) এবং পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন (দ্বিতীয় পত্র) বিদ্যার পরীক্ষা হয়। বোর্ড সফল প্রার্থীদের মেধা তালিকা প্রকাশ করে না।

করোনা ভাইরাস এবছর দেশে মহামারী রূপে দেখা দেওয়ায় জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষার ফলপ্রকাশে অনেকটাই দেরি হলো। সাধারণত,  মে বা জুন মাস নাগাদ জয়েন্টের ফল ঘোষণা করা হয়।

জয়েন্ট বোর্ড সূত্রে খবর উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের ফলাফল বেরোনোর সঙ্গে সঙ্গেই র‌্যাঙ্ক কার্ড দিয়ে দেবে বোর্ড। তার ফলে পরীক্ষার্থীরা আগে থেকেই সিদ্ধান্ত নিয়ে নিতে পারবে যে তাঁরা এবার কোন কলেজে বা কি নিয়ে পড়বে। এর জেরে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের আসন খালি থাকা প্রবণতা আটকানো যাবে বলে মনে করছে বোর্ডের আধিকারিকরা।